আর্জেন্টিনার আক্রমণভাগের নতুন সেনানীরা!

প্রকাশ | ২৩ আগস্ট ২০১৮, ২০:১৪ | আপডেট: ২৩ আগস্ট ২০১৮, ২০:৪১

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন

রাশিয়া বিশ্বকাপে ভরাডুবির পর পুরো দলকে ঢেলে সাজানোর চিন্তা করছে আর্জেন্টিনা ফুটবল ফেডারেশন (এএফএ)। বিশ্বকাপে আলবিসেলেস্তেদের এবারের দলটি ছিল তুলনামূলক বয়স্ক একটি দল। দলের পরাজয়ের কারণ হিসেবে রক্ষণ, মাঝমাঠ ও গোলরক্ষকের ভূমিকা ছিল অন্যতম। 

তাই বিশ্বকাপ পরবর্তী দল সাজানো হিসেবে তারুণ্যকেই প্রাধান্য দিতে যাচ্ছে ফেডারেশন। পাশাপাশি জোর দিচ্ছে রক্ষণ, মাঝমাঠ, আক্রমণভাগে ও গোলরক্ষকের দিকে। দল পুনর্গঠন নিয়ে আলোচনায় আসে ৬৫জন উদীয়মান খেলোয়াড়। 

সেখান থেকে এএফএ আক্রমণভাগে যাদের চিন্তা করছে তাদের গড় বয়স ২৩ থেকে ২৪ বছরের মধ্যে। পাশাপাশি তাদের উচ্চতা ৫ ফিট ৭ ইঞ্চি থেকে ৫ ফিট ১১ ইঞ্চি।

আক্রমণভাগের দায়িত্বে নতুন যাদেরকে দলে নেয়ার চিন্তা করছে আর্জেন্টিনা তাদের মধ্যে একজন ছাড়া সকলেই জাতীয় দলের হয়ে মাঠ মাতিয়েছেন। 

দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন দেশটির ফুটবল বিষয়ক সব ধরনের সংবাদ প্রচার করে আসছে গোলাজো আর্জেন্টিনো। গণমাধ্যমটি লাতিন দেশটির তরুণ তুর্কিদের পরিচয় সামনে নিয়ে এসেছে।

আর্জেন্টিনার মূল আক্রমণভাগে কারা থাকবেন তা এখনই নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। কারণ বর্তমান অধিনায়ক লিওনেল মেসি যদি অবসরে না যান তাহলে আর্জেন্টিনা দলের আক্রমণভাগ হবে এক ধরনের; আর যদি মেসি জাতীয় দলের হয়ে খেলা চালিয়ে যান, সেক্ষেত্রে আক্রমণভাগ হবে মেসিকেন্দ্রিক। কিন্তু রাশিয়া বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা নকআউট পর্ব থেকে ছিটকে যাওয়ার পর জাতীয় দলের হয়ে খেলা চালিয়ে যাবেন কি যাবেন না তা নিয়ে মিডিয়ার সামনে মুখ খোলেননি লিওনেল মেসি। তবে কিছুদিন আগে আর্জেন্টিনার ভারপ্রাপ্ত কোচ জানিয়েছেন, মেসি এ বছর আর আর্জেন্টিনার হয়ে মাঠে নামবেন না। কিন্তু কবে নামবেন তাও তিনি বলতে পারেননি।

একনজরে দেখে নিবো আর্জেন্টিনার ভবিষ্যত আক্রমণভাগকে
লিওনেল মেসি

বর্তমান সময়ে ফুটবল বিশ্বের সেরা খেলোয়াড় লিওনেল মেসি। পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী তিনি। আর্জেন্টিনা অনূর্ধ্ব-২০ ও অনূর্ধ্ব-২৩ দলের হয়েও খেলেছেন তিনি। আর্জেন্টিনা জাতীয় দল ও স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনার প্রাণভোমরা। ৩১ বছর বয়সী ৫ ফুট ৭ ইঞ্চির এ তারকা খেলোয়াড় ২০০৪ সালে বার্সেলোনার মূল দলে সুযোগ পান। এরপর থেকে কাতালান ক্লাবটির হয়ে মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। বর্তমানে দলটির আর্মব্যান্ড তার দায়িত্বে। ক্লাব ফুটবলের ইতিহাসে অসংখ্য রেকর্ড তিনি নিজের করে নিয়েছেন। তিনি যখন মাঠে খেলেন তখন তার খেলা প্রতিপক্ষ খেলোয়াড় ও কোচরা মন্ত্রমুগ্ধের মতো চেয়ে চেয়ে দেখেন। 

আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের হয়ে ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট হাঙ্গেরীর বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচে ১৮ বছর বয়সে তার অভিষেক হয়। ঐ ম্যাচের ৬৩ মিনিটের সময় তিনি মাঠে নামেন। ২০১১ সালে ২৪ বছর বয়সে তৎকালীন কোচ সাবেলা তাকে অধিনায়কের আর্মব্যান্ড তুলে দেন। ২০১৪ বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় হিসেবে তিনি গোল্ডেন বল লাভ করেন। কিন্তু টানা তিনটি বড় বড় টুর্নামেন্টের ফাইনালে পরাজয়ের রেশ ধরে হঠাৎ করে অবসরে চলে যান। পরবর্তীতে দেশ ও বিশ্বের আর্জেন্টাইন ফুটবলপ্রেমীদের অনুরোধে অবসর ভেঙে আবার জাতীয় দলে ফিরে আসেন। এখন পর্যন্ত জাতীয় দলের হয়ে ১২৮টি ম্যাচ খেলে ৬৫টি গোল করেছেন। যা তাকে জাতীয় দলের সর্বোচ্চ গোলদাতার আসনে বসিয়েছে। 

মাউরো ইকার্দি
ইতালিয়ান লিগের ক্লাব ইন্টার মিলানের হয়ে মাঠ মাতাচ্ছেন ২৫ বছর বয়সী ৫ ফুট ১১ ইঞ্চি উচ্চতার মাউরো ইকার্দি। দলটির আর্মব্যান্ডের দায়িত্ব তার উপরই ন্যাস্ত। ইতালিয়ান ক্লাব সাম্পাদোরিয়ার হয়ে ২০১২-১৩ মৌসুমে ৩৩ ম্যাচে ১১ গোল করেছিলেন। এরপর ২০১৩ থেকে ইতালির জনপ্রিয় ক্লাব ইন্টার মিলানে চলে আসেন। এখন পর্যন্ত দলটির হয়ে ১৬০টি ম্যাচ খেলে ১০০টি গোল করতে সক্ষম হয়েছেন। আর্জেন্টিনা অনূর্ধ্ব-২০ দলের হয়ে ২০১২-১৩ মৌসুমে ৫ ম্যাচ খেলে ৩টি গোল করতে সক্ষম হন। 

২০১৩ সালের ১৫ অক্টোবর উরুগুয়ের বিপক্ষে বিশ্বকাপ কোয়ালিফার ম্যাচে আগাস্তু ফার্নান্দেজের বদলি হিসেবে জাতীয় দলের হয়ে অভিষেক ম্যাচ খেলেন। এরপর ২০১৬ সালে কোপা আমেরিকায় জাতীয় দলের স্কোয়াডে সুযোগ পান। ২০১৮ বিশ্বকাপের প্রাথমিক দলে সুযোগ পেলেও অপ্রত্যাশিতভাবে মূল স্কোয়াড থেকে ছিটকে পড়েন। আর্জেন্টিনার জাতীয় দলের হয়ে ৪ ম্যাচ খেললেও কোনও গোল করতে পারেননি।

পাওলো দিবালা
ইতালিয়ান লিগের ক্লাব জুভেন্টাসের হয়ে মাঠ মাতাচ্ছেন ২৪ বছর বয়সী ৫ ফুট ১০ ইঞ্চি উচ্চতার পাওলো দিবালা। যাকে আর্জেন্টিনার পরবর্তী মেসি হিসেবে গণ্য করা হয়ে থাকে। গত কয়েক মওসুম ধরেই দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছেন তিনি। মেসি ও দিবালা একই জায়গায় খেলে থাকেন বলে তিনি দলে থাকলেও মাঠে নামতে পারেন না। আর্জেন্টিনার করদোভা অঞ্চলের ক্লাব ইন্সটিটিউটের হয়ে ২০১১-১২ মৌসুমে ৩৮টি ম্যাচ খেলে ১৭টি গোল করেন। এরপর ২০১২-২০১৫ মৌসুমে ইতালির ক্লাব পালেরমোর হয়ে ৮৯টি ম্যাচ খেলে ২১টি গোল করেন। পরে ২০১৫ মৌসুমে জুভেন্টাসে যোগ দেন। এখন পর্যন্ত জুভিদের হয়ে ৯৮টি ম্যাচে ৫২টি গোল করতে সক্ষম হয়েছেন। 

২০১২ সালে তাকে আর্জেন্টিনা অনূর্ধ্ব-২০ দলে ডাক পেলেও তিনি খেলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। পরবর্তীতে ২০১৫ সালের ২২ সেপ্টেম্বর আর্জেন্টিনার তৎকালীন কোচ জেরার্ডো মার্টিনো তাকে জাতীয় দলের হয়ে খেলার জন্য পুনরায় ডাকেন এবং ২০১৫ সালের ১৩ অক্টোবর বিশ্বকাপ কোয়ালিফাইং ম্যাচে প্যারাগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচের ৭৫তম মিনিটে কার্লোস তেভেজের পরিবর্তে মাঠে নামেন। আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের হয়ে এ পর্যন্ত ১৩টি ম্যাচে প্রতিনিধিত্ব করলেও গোলের খাতা খুলতে পারেননি তিনি।

ক্রিশ্চিয়ান পাভন
আর্জেন্টিনার ক্লাব অ্যাথলেটিকো কোলোনের হয়ে মাঠ মাতাচ্ছেন ২২ বছর বয়সী ৫ ফুট ৭ ইঞ্চি উচ্চতার ক্রিশ্চিয়ান পাভন। ফুটবল ক্যারিয়ার শুরু করেছেন আর্জেন্টিনার ক্লাবগুলো থেকে। এর আগে আর্জেন্টিনার ক্লাব টেলেরেস দ্য করডোভার হয়ে ১৯টি ম্যাচে ৪টি গোল করেছেন। এরপর আর্জেন্টিনারই আরেকটি ক্লাব বোকা জুনিয়র্সের হয়ে ৬৭টি ম্যাচ খেলে ১৮টি গোল করেন। বর্তমানে লোনে অ্যাথলেটিকো কোলোনের হয়ে খেলছেন। দলটির হয়ে ইতোমধ্যে ২০টি ম্যাচে ৫টি গোল করেছেন তিনি। 

আর্জেন্টিনার হয়ে অনূর্ধ্ব-১৭, অনূর্ধ্ব-২০ ও আর্জেন্টিনা অলিম্পিক দলের হয়ে খেলেছেন। ২০১৩ সালে অনূর্ধ্ব-১৭ দলের হয়ে ৩টি ম্যাচ খেলেছেন কিন্তু গোল আদায় করতে ব্যর্থ হন। ২০১৫ সালে অনূর্ধ্ব-২০ দলের হয় ২টি ম্যাচ খেললেও গোলের দেখা পাননি। ২০১৬ সালে আর্জেন্টিনার অলিম্পিক দলের হয়ে ৩টি ম্যাচ খেললেও গোল পাননি। পরে ২০১৭ সালে আর্জেন্টিনার মূল দলে রাশিয়ার বিপক্ষে এক প্রীতি ম্যাচে অভিষেক ম্যাচ খেলেন। মাঠে নেমেই তার অ্যাসিস্ট থেকে আগুয়েরো গোল করেন। আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের হয়ে এ পর্যন্ত ৯টি ম্যাচ খেললেও এখন পর্যন্ত কোনও গোলের দেখা পাননি তিনি। সবশেষ রাশিয়া বিশ্বকাপে মূল দলে সুযোগ পান এবং মাঠে পরিবর্তিত খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামেন।

অ্যাঞ্জেল কোরেয়া
স্প্যানিশ ক্লাব অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের হয়ে মাঠ মাতাচ্ছেন ২৩ বছর বয়সী ৫ ফুট ৮ ইঞ্চির ফুটবলার অ্যাঞ্জেল কোরেয়া। আর্জেন্টিনার ক্লাব সান লরেঞ্জো দিয়েই সিনিয়র লেভেলের ক্যারিয়ার শুরু করেন কোরেয়া। ২০১২-২০১৪ পর্যন্ত দলটির হয়ে ৪৯টি ম্যাচ খেলে ১০টি গোল করেন। এরপর ২০১৪ সালে স্প্যানিশ ক্লাব অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদে তিনি চলে আসেন। দলটির হয়ে এখন পর্যন্ত ৯৪টি ম্যাচ থেকে আদায় করে নিয়েছেন ১৭টি গোল। 

আর্জেন্টিনা অনূর্ধ্ব-২০ ও আর্জেন্টিনা অলিম্পিক দলের হয়েও তিনি মাঠ মাতিয়েছেন। অনূর্ধ্ব ২০ দলের জার্সিতে ১১টি ম্যাচ খেলে করেছেন ৬টি গোল। অলিম্পিক দলের হয়ে ২টি ম্যাচ থেকে পেয়েছেন ১টি গোল। আর্জেন্টিনার মূল দলে ২০১৫ সালের ৪ সেপ্টেম্বর বলিভিয়ার বিপক্ষে এক প্রীতি ম্যাচে এজেক্যুয়েল লাভেজ্জির পরিবর্তে মাঠে নেমে অভিষেক ম্যাচ খেলেন। এরপর থেকে এ পর্যন্ত ৮টি ম্যাচে খেলে ১টি গোল করতে সক্ষম হন।

লাউতারো মার্টিনেজ
ইতালিয়ান ক্লাব ইন্টার মিলানের হয়ে মাঠ মাতাচ্ছেন ২১ বছর বয়সী ৫ ফুট ৯ ইঞ্চির ফুটবলার লাউতারো মার্টিনেজ। এর আগে আর্জেন্টিনার রেসিং ক্লাবের হয়ে ২০১৫-১৮ মৌসুম পর্যন্ত ৪৮টি ম্যাচ খেলে ২২টি গোল করেন। এবারের মৌসুমে তিনি ক্লাব পরিবর্তন করে ইতালিয়ান ক্লাব ইন্টার মিলানে যোগ দেন। 

মার্টিনেজ অনূর্ধ্ব-২০ দলের হয়ে ১১টি ম্যাচে ৮টি গোল করেন এবং ২০১৮ সালের ২৭ মার্চ আর্জেন্টিনার জাতীয় দলের হয়ে স্পেনের বিপক্ষে এক প্রীতি ম্যাচে গঞ্জালো হিগুয়েইনের পরিবর্তিত খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামেন।

জিওভান্নি সিমিওনে
আর্জেন্টিনার সাবেক খেলোয়াড় ও বর্তমানে স্প্যানিশ ক্লাব অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের কোচ দিয়েগো সিমিওনের ছেলে হলেন জিওভান্নি সিমিওনে। ২৩ বছর বয়সী ৫ ফুট ১১ ইঞ্চি উচ্চতার খেলোয়াড় তিনি। আর্জেন্টিনার ক্লাব রিভার প্লেটের হয়ে ২০১৩-১৬ মৌসুম পর্যন্ত ২৭টি ম্যাচ খেলে ২টি গোল করেন। মাঝখানে ২০১৫-১৬ মৌসুমে আর্জেন্টিনার আরেক ক্লাব অ্যাথলেটিকো বেনফিল্ডে ধারে খেলতে চলে যান। সেখানে ৩৪টি ম্যাচে ১২টি গোল করেন সিমিওনে। পরে ২০১৬-১৭ মৌসুমে ইতালিয়ান ক্লাব জেনোয়া সিএফসির হয়ে ৩৫টি ম্যাচ খেলে ১২টি গোল করেন। ২০১৭ মৌসুমে ইতালিয়ার আরেক ক্লাব ফিওরেন্টিনাতে চলে আসেন। এখন পর্যন্ত দলটির হয়ে ৩৮টি ম্যাচে ১৪টি গোল পেয়েছেন তিনি। 

আর্জেন্টিনার হয়ে অনূর্ধ্ব-২০ ও অনূর্ধ্ব-২৩ দলের হয়ে খেললেও এখন পর্যন্ত জাতীয় দলের জার্সি গায়ে জড়াতে পারেননি। তবে সামনের দুটি প্রীতি ম্যাচে হয়তো অভিষেক ম্যাচ খেলার সুযোগ পেলেও পেতে পারেন। আর্জেন্টিনা অনূর্ধ্ব-২০ দলের হয়ে ১২টি ম্যাচে ১২টি গোল এবং অনূর্ধ্ব-২৩ দলের হয়ে ৩টি ম্যাচ খেললেও কোনও গোল করার সুযোগ পাননি। 

এএ/পি