• ঢাকা রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫

শিরোপা ও বাংলাদেশের মাঝে বাধা ভারত

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১৮ আগস্ট ২০১৮, ১২:৩৯ | আপডেট : ১৮ আগস্ট ২০১৮, ১৩:১০
সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী ফুটবলের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ। আরেকটি শিরোপার দ্বারপ্রান্তে তারা। মাঝখানে বাধা শুধু ভারত। অন্য যে কোন ক্রীড়া ইভেন্টে ভারত ফেভারিটের তকমা মেখে নামলেও আজকের ফাইনাল ম্যাচের পরিষ্কার ফেভারিট হিসেবে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। 

শনিবার বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৭টায় ভুটানের চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামে ফাইনালে ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। 

এর আগের বারও ফাইনালে এই ভারতকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে বাংলাদেশের মেয়েরা। সেবার ভেন্যু ছিল বাংলাদেশ। আজ আবার সেই ফাইনালে ভারতের মুখোমুখি বাংলাদেশ। তবে এবার ভেন্যু ভুটান। গত ডিসেম্বরের ফাইনালে জয়ের স্মৃতি এখনো তরতাজা বাংলাদেশের কিশোরীদের মনে। ৮ মাস পর আবার ওই চ্যাম্পিয়নশিপের ট্রফি ধরে রাখার পথে শেষ বাধা ভারত। 

বাংলাদেশ ফেভারিট হওয়ার যুক্তিযুক্ত কারণও রয়েছে। কারণ এই টুর্নামেন্টের প্রথম আসরে ভারতকে দুইবার পরাজিত করে শিরোপা ঘরে তোলে তহুরারা। আর এবারের আসরে উভয় দলের পারফরম্যান্স বিবেচনায় বাংলাদেশ ঢের এগিয়ে ভারতের চেয়ে। গ্রুপ পর্ব ও ফাইনাল মিলে যে তিনজন সর্বোচ্চ গোলদাতা তার মধ্যে দু’জনই বাংলাদেশের। তাই তাদের পারফরম্যান্সের ধারে ভারতকে হারিয়ে শিরোপা তুলে ধরার স্বপ্ন দেখতেই পারে বাংলাদেশ।

এমন ফাইনালকে সামনে রেখে প্রশ্ন একটাই বাংলাদেশের মেয়েরা কী পারবে ঢাকা কমলাপুরের পর ভুটানের থিম্পুতে বাংলাদেশের লাল-সবুজ পতাকা উড়িয়ে ধরতে? নাকি এখানেই থেমে যাবে তাদের জয়রথ। অবশ্য তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে রাত ৮টা পর্যন্ত। 

এবারের টুর্নামেন্টে পাকিস্তানকে ১৪ গোলে বিধ্বস্ত করে শুরু, তারপর একে একে নেপালকে ৩ ও ভুটানকে ৫ গোলে উড়িয়ে দ্বিতীয়বারের মতো ফাইনালে মারিয়া-তহুরারা। 
-------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : প্রস্তুতি ম্যাচে ব্রাজিলের তারুণ্য নির্ভর দল
-------------------------------------------------------

ফাইনাল ম্যাচকে সামনে রেখে প্রস্তুত বাংলাদেশের কিশোরীরা। দলের সবাই সুস্থ, শারীরিক ও মানসিকভাবে ফিট আছে। প্রধান কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটন ও টেকনিক্যাল অ্যান্ড স্ট্রাটেজিক ডিরেক্টর থমাস পল স্মলি বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়দের নানাভাবে অনুপ্রাণিত ও উজ্জীবিত করছেন। মেয়েরা ফাইনালে তাদের সেরাটা দিয়ে খেলে শিরোপা জিততে প্রস্তুত।

অনুশীলন শেষে কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটন বলেন, এই ম্যাচে আমরা আমাদের সামর্থের সবকুটু দিয়ে খেলব যাতে শিরোপা জিততে পারি। এই টুর্নামেন্ট খেলতে আসার আগে এটাই আমাদের লক্ষ্য ছিল। গ্রুপ পর্ব ও সেমিফাইনালে আমরা আমাদের স্বাভাবিক খেলাটা খেলেছি। ফাইনালে এসেছি। এই টুর্নামেন্টের জন্য গেল ৭ মাস আমরা অনুশীলন করেছি। দেশের সবাই আমাদের দলের জন্য দোয়া করবেন।

বাংলাদেশ দলের গোলপোস্ট অক্ষত রাখার দায়িত্ব গোলরক্ষক মাহমুদা আক্তারের কাঁধে। গ্রুপ পর্ব ও সেমিফাইনাল- তিন ম্যাচেই তিনি গোলপোস্ট অক্ষত রেখেছেন। ফাইনালেও তেমনটা রাখতে চান, স্বাগতিক ভুটানের বিপক্ষে সেমিফাইনালে বড় ব্যবধানে জিতে ফাইনালে আসতে পেরে আমি খুবই খুশি। এখন আমাদের আরও ভালো খেলতে হবে। আমি আমার সর্বোচ্চটুকু দিয়ে চেষ্টা করব যাতে ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে জয় পাই। গোলরক্ষক হিসেবে আমি আমাদের গোলপোস্ট অক্ষত রাখার চেষ্টা করব। যেমনটা আগের তিন ম্যাচে করেছি। আমাদের জন্য দোয়া করবেন।

অন্যদিকে ভারতকে পরাজিত করতে বল ছুঁয়ে প্রতিজ্ঞা করেছেন মারিয়া-তহুরারা। সকলে এক বাক্যে বলেন, আমাদের আসল পরীক্ষা দিতে হবে ফাইনালে। সে পরীক্ষায় পাশ করতেই হবে। ঝড়ের গতিতে এতদূর এসে থামা যাবে না। ট্রফি হাতে আছে, হাতেই রাখতে হবে। জাতিকে উপহার দিতে হবে আরেকটি বিজয়ের আনন্দ।

অধিনায়ক মারিয়া মান্ডা বলেন, ভারত অনেক শক্তিশালী দল। তাদের অভিজ্ঞতাও অনেক বেশি। অভিজ্ঞ ফুটবলার দলে আছেন। যারা পার্থক্য গড়ে দিতে পারেন। আমাদের খেয়াল রাখতে হবে সব দিকেই। 

সহ-অধিনায়ক আঁখি খাতুন স্বপ্ন পূরণ করে শিরোপা নিয়ে দেশে ফিরতে চান, আমার স্বপ্ন হচ্ছে ফাইনাল ম্যাচ জেতা এবং বর্তমান চ্যাম্পিয়ন হিসেবে শিরোপা নিয়ে দেশে ফেরা।

আরও পড়ুন : 

 

এএ/এমকে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়