• ঢাকা বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫

মোনাকোর হয়ে খেলা গোলরক্ষকরা ফাইনাল জিতেনি

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১৬ জুলাই ২০১৮, ২০:৪৭ | আপডেট : ১৬ জুলাই ২০১৮, ২১:২৩
বিশ্বকাপ ফাইনালের আগেই আলোচনায় ছিলেন ক্রোয়েশিয়ান গোলরক্ষক ড্যানিয়েল সুবাসিচ। এবারের বিশ্বকাপে অসাধারণ পারফর্ম করে দলকে নিয়ে এসেছেন বিশ্বকাপ ফাইনালে। সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডকে পরাজিত করে ফাইনালে জায়গা করে নেয়ার পরই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসেন সুবাসিচ। অবশ্য এর কারণও রয়েছে। এর কারণ তিনি ক্লাব ফুটবলে মোনাকোর হয়ে গোলবার সামলানোর দায়িত্ব পালন করে থাকেন। 

২০০৬ বিশ্বকাপ থেকে এবারের বিশ্বকাপ অর্থাৎ ২০১৮ বিশ্বকাপ পর্যন্ত ফাইনালে গোলবারের দায়িত্বে ছিলেন মোনাকোর হয়ে খেলা গোলরক্ষকরাই। কিন্তু কী দুর্ভাগ্য তারা কেউই বিশ্বকাপ ট্রফি উঁচিয়ে ধরতে পারেননি। শিরোপা না জিতলেও মোনাকে এ চারজনকে নিয়ে গর্ব করতেই পারে। কারণ তাদের দলে খেলে বিশ্বকাপের ফাইনালে যে তারা অংশ নিয়েছেন। 

আসুন জেনে নিই কী সেই ইতিহাস? 

এ ইতিহাসের শুরু করেছিলেন মূলত ৯৮ বিশ্বকাপ জয়ী ফাবিয়েন বার্থেজ। নিজ দেশে হওয়া বিশ্বকাপ সেবার নিজেদের দেশেই রেখে দেয় ফ্রান্স। পুরো বিশ্বকাপে দুর্দান্ত পারফর্ম করেন বার্থেজ। এক বছর বিরতি দিয়ে ২০০৬ জার্মানি বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলে ফ্রান্স। সে সময়ও গোলবারের দায়িত্বে ছিলেন বার্থেজ। যিনি একসময় ক্লাব ফুটবলে মোনাকোর হয়ে গোলবার সামলে ছিলেন। কিন্তু ফাইনালে ইতালির কাছে পরাজয়বরণ করতে হয়। 

এরপর চলে আসি ২০১০ আফ্রিকা বিশ্বকাপে। যেখানে ফাইনালে মুখোমুখি হয় স্পেন ও নেদারল্যান্ডস। নেদারল্যান্ডসের হয়ে গোলবারের দায়িত্ব সামলান মার্টিন স্টেকেলেনবার্গ। কিন্তু ফাইনালে আন্দ্রেস ইনিয়েস্তার দেয়া অন্তিম সময়ের গোলে বিশ্বকাপের সোনালী ট্রফিতে চুমু খাওয়ার স্বপ্নভঙ্গ হয়। রানার্সআপ হয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়।

এরপর আবারও সেই মোনাকো ট্রাজেডি। এবার তালিকায় সার্জিও রোমেরো। ২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপে ফাইনালে জার্মানির মুখোমুখি হয় আর্জেন্টিনা। দুর্দান্ত খেলেই ফাইনালে উঠেছিল। সকলেই ভাবছিল তৃতীয়বারের মতো বুঝি ট্রফিটা ঘরেই তুলে নিচ্ছে আর্জেন্টিনা। কিন্তু অতিরিক্ত সময়ের শেষ মুহূর্তে মারিও গোৎসের গোলে রানার্সআপ হয়েই বিশ্বকাপ শেষ করে আর্জেন্টিনা। 

আর এবারের বিশ্বকাপে সেই মোনাকো ট্রাজেডির আরেক নায়ক হিসেবে ‍যুক্ত হলেন ড্যানিয়েল সুবাসিচ। মোনাকোর হয়ে এই কয় বছরে একবার লিগও জিতেছেন তিনি। এই বিশ্বকাপেও ক্রোয়েশিয়ার ফাইনালে ওঠার পেছনে সুবাসিচের অবদান অনেক। দ্বিতীয় রাউন্ডে ডেনমার্ক আর কোয়ার্টার ফাইনালে রাশিয়ার বিপক্ষে টাইব্রেকারে সুবাসিচই ছিলেন বীর। কিন্তু আবারও সেই ফাইনাল ট্রাজেডি। পারেননি দলকে সঠিক সার্ভিস দিতে। গুণে গুণে চারটি গোল খেয়ে বসেন তিনি। আর এতেই মোনাকো ট্রাজেডির চতুর্থ সদস্য হিসেবে যুক্ত হন তিনি। 

এএ/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়