• ঢাকা শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭ আশ্বিন ১৪২৫

আনন্দে মাতোয়ারা প্যারিস

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১৬ জুলাই ২০১৮, ১৪:০৫ | আপডেট : ১৬ জুলাই ২০১৮, ১৫:০০
প্রথম হাফে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। আত্মঘাতী থেকে পেনাল্টিতে গোল। গোলকিপারের মারাত্মক ভুল থেকে ফের গোল। শেষ মুহূর্তে প্রশান্তির বৃষ্টি। বিশ্বকাপ ফাইনালটা এমটাই হওয়া উচিৎ। সবই ছিল মস্কোর লুঝিনিকি স্টেডিয়ামে। শেষ হাসিটা হাসল ফ্রান্সই। জিনেদিন জিদানের পর আতোঁয়া গ্রিজম্যান ফ্রেঞ্চদের এনে দিলেন ফুটবলের সর্বোচ্চ মর্যাদা। 

প্যাট্রিক ভিয়েরার পর পল পগবা ১৯৯৮ সালের চ্যাম্পিয়নদের ফুটবল বিশ্বে আরও উচ্চতা পৌঁছে দিলেন। রোববার উরুগুয়ে ও আর্জেন্টিনার মতো দ্বিতীয়বার বিশ্বকাপ জিতে নিলো ফ্রান্স। 

এদিন ৪-২ গোলে ক্রোয়েশিয়াকে হারিয়ে ফুটবলের সর্বোচ্চ আসরের সেরা দল হিসেবে রাশিয়া মিশন শেষ করলো দিদেয়ের দেশমের শিষ্যরা।

অন্যদিকে, ভাগ্যের পরিহাসে রানার্স হয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হলো ক্রোয়েটদের। যদিও ম্যাচ হারলেও, হৃদয় জিতল মাত্র ৪২ লাখ মানুষের ছোট্ট এই দেশটি।
--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন  : ‘ইডিয়ট’ জোকোভিচই জয় করলেন উইম্বলডন
--------------------------------------------------------

ৃঅন্যদিকে ১৯৯৮ বিশ্বকাপে অধিনায়ক হয়ে দেশকে কাপ জেতানোর পর, এবার কোচ হিসেবে ফ্রান্সকে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন করে ইতিহাসের খাতায় নাম লেখালেন দেশম। 

যদিও ফাইনালে ভাগ্যের সহায়তা পেল ফ্রান্স। আত্মঘাতী গোল, পেনাল্টি গোল দুটিতেই ভাগ্য সঙ্গ দিল জিদানের উত্তরসূরীদের। 

দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপা জয়ের পর আইফেল টাওয়ারে আরও উজ্জ্বল হয়ে গেলো। চলতি বিশ্বকাপে নিজেদের ম্যাচের দিনে উৎসব আর আনন্দে মাতোয়ারা ছিল ফ্রেঞ্চরা। ইউরোপের দেশটির রাজধানী প্যারিস থেকে শুরু করে ছোট বড় শহরগুলোতে পতাকা হাতে আর গানের তালে তারে মাতিয়েছেন ফুটবলপ্রেমীরা। ফাইনালের দিনটিতেও কমতি ছিল না। জয় নিশ্চিত হবার পর উল্লাসে ফেটে পড়ে ফ্রান্সের সাধারণ জনগণ। পুরো দেশজুড়েই চলেছে সোনালী কাপ জয়ের আনন্দ।

 

ওয়াই/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়