• ঢাকা বুধবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৮, ৯ কার্তিক ১৪২৫

তর্ক-বিতর্ক ও আলোচনায় ৫০’র ব্রাজিল বিশ্বকাপ

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১৩ জুন ২০১৮, ১২:৩৭
ফুটবল বিশ্বকাপের জন্ম ১৯৩০ সালে। হয়ে গেছে কুড়িটা আসর। সেরা হতে পেরেছে কেবল ৮খানা দল। কিন্তু আয়োজনে-প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সেরা আসর? তা নিয়ে বিতর্ক থাকলেও একবাক্যে সবাই মানবেন এখনো সবচেয়ে গরম আলোচনার জন্ম দেয় ১৯৫০-এর ব্রাজিল বিশ্বকাপ। 

১৯৫০ সালে বিশ্বকাপ জেতেনি ইতালি। তারপরও আজ্জুরিদের কাছে সেই আসরটি হয়ে আছে একটি রেকর্ডের মাইল ফলক। সময়ের হিসেবে বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি সময় চ্যাম্পিয়ন থাকার রেকর্ডটি এখন পর্যন্ত ধরে রেখেছে ইতালি। ১৯৩৪ সালে বিশ্বকাপ জয়ের পর ১৯৩৮ সালেও বিশ্বকাপ জিতে নেয় ব্লুজরা। বিশ্বকাপের পরের দুই আসর অনুষ্ঠিত হতে পারেনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারণে। ফলে ১৯৩৪ থেকে ১৯৫০ সাল পর্যন্ত টানা ১৬ বছর বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ছিল ইতালি। যে রেকর্ডটি এখন পর্যন্ত তাদেরই দখলে।

১৯৫০ সালের বিশ্বকাপের আসর বসে, ব্রাজিলে। সে বিশ্বকাপে ছিলো না কোনও নক আউট পর্ব। রাউন্ড রবিন লিগ পদ্ধতিতে সর্বোচ্চ পয়েন্ট সংগ্রহকারী দলকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়। আর এই নিয়মে সবচেয়ে বেশি পয়েন্ট নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়ে যায় উরুগুয়ে। অবশ্য ফাইনাল না থাকলেও লিগ পর্বের ব্রাজিল-উরুগুয়ের মধ্যকার শেষ ম্যাচটি হয়ে দাঁড়ায় অলিখিত ফাইনাল।

হার এড়াতে পারলেই প্রথমবারের মতো বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হবে ব্রাজিল। সে ম্যাচ নিয়ে যেনো আগ্রহের কমতি ছিল নেই সেলেসাও সমর্থকদের। খেলা দেখতে রিওর মারাকানা স্টেডিয়ামে হাজির হয় ১ লাখ ১৯ হাজার ৯৮৪ জন দর্শক। বিশ্বকাপের ইতিহাসে এখন পর্যন্ত এটাই সর্বোচ্চ দর্শক উপস্থিতির রেকর্ড। কিন্তু সে ম্যাচটি ১-২ গোলে হেরে যায় ব্রাজিল। এই হারের যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করে বেশ কয়েকজন ব্রাজিলিয়ান ভক্ত।

ব্রাজিলের কাছে যেমন যন্ত্রণাময় ১৯৫০ সালের সেই বিশ্বকাপটি এখনো এক দীর্ঘ নিঃশ্বাস হয়ে আছে ভারতের কাছেও। এই আসরে খেলার সুযোগ পেয়েছিল টিম ইন্ডিয়াও। কিন্তু সে সময় জুতো পড়ে খেলায় অভ্যস্ত ছিল না ভারত। তাই খালি পায়ে খেলার দাবি জানায় তারা। কিন্তু ফিফার অনুমতি না মেলায় নাম প্রত্যাহার করতে বাধ্য হয় অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশন। সেই সুযোগটি আজো অধরা ভারতের কাছে।

এএ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়