• ঢাকা সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫

৬৬’র পুনরাবৃত্তি চায় ইংল্যান্ড

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১০ জুন ২০১৮, ১৬:০৯
ইংল্যান্ড দেশটি যুক্তরাজ্যের অংশ। এর জনবসতি সমগ্র যুক্তরাজ্যের লোকসংখ্যার ৮৩% এবং দেশটি গ্রেট ব্রিটেন দ্বীপের দক্ষিণাংশের দুই-তৃতীয়াংশ নিয়ে গঠিত। ইংল্যান্ডের রাজধানী লন্ডন ইউরোপের অন্যতম বৃহৎ নগর ও অর্থনৈতিক কেন্দ্র।

ইংরেজ জাতীয় ফুটবল দল (পুরুষ) ইংল্যান্ডের আন্তর্জাতিক ফুটবল খেলার দল এবং ফুটবল এসোসিয়েশন কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত হয়, যা ইংল্যান্ডে ফুটবলের প্রশাসনিক প্রতিষ্ঠান।

বিশ্বের প্রথম আন্তর্জাতিক ফুটবল খেলা হয়েছিল ১৮৭২ সালে স্কটল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের মধ্যে। প্রথম আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা ১৮৮৪ সালে শুরু হয় ব্রিটিশ হোম চ্যাম্পিয়নশিপ নামে। এ সময়ে গ্রেট ব্রিটেন ও আয়ারল্যান্ডের বাইরে ফুটবল খেলা বলতে গেলে অনুষ্ঠিতই হত না। সেই শতাব্দীর শেষের দিকে বিশ্বের অন্যান্য প্রান্তে ফুটবলের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পেতে থাকে এবং এটিকে ১৯০০, ১৯০৪ ও ১৯০৬ সালের অলিম্পিকে প্রদর্শনী খেলা হিসেবে রাখা হয় তবে এর জন্য কোনও পুরস্কার বরাদ্দ ছিল না। ১৯০৮ সালের অলিম্পিক ফুটবল প্রথম আনুষ্ঠানিক খেলার মর্যাদা পায়। 

ঐতিহাসিকভাবে ইংল্যান্ডের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী হচ্ছে স্কটল্যান্ড। স্কটল্যান্ডের সাথে ইংল্যান্ডের সর্বশেষ খেলা হয়েছে ইউরো ২০০০ এর প্লে-অফে ১৯৯৯ সালের নভেম্বরে। পুরাতন ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এ খেলায় স্কটল্যান্ড ১-০ গোলে জয়ী হয়।

১৯৮০ সাল থেকে স্কটল্যান্ডের সাথে নিয়মিত খেলা বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর থেকে অন্যান্য জাতির সঙ্গে ইংল্যান্ডের প্রতিদ্বন্দ্বীতা বৃদ্ধি পেতে থাকে। এর মধ্যে আর্জেন্টিনা বনাম ইংল্যান্ড ও জার্মানি বনাম ইংল্যান্ড, চির-প্রতিদ্বন্দ্ব্বী হিসেবে খ্যাতি পায়।

এবার ২০১৮ সালের বিশ্বকাপে তারুণ্যের জয়গান নিয়েই রাশিয়া উড়াল দিতে প্রস্তুত ইংল্যান্ড। ৫২ বছর পর বিশ্ব জয়ের ট্রফি জিততে মরিয়া কোচ সাউথগেট ও তার শিষ্যরা। কতোটা কঠিন সেই চ্যালেঞ্জ জেতা, বেকহ্যাম, রুনির উত্তরসূরীদের। গ্রুপ ‘জি’তে ইংল্যান্ডের সঙ্গে আছে পানামা, তিউনিসিয়া ও বেলজিয়াম।

১৯৬৬ সালে সেই একবারই বিশ্বকাপ উন্মাদনায় মেতেছিল কট্টর ইংল্যান্ড সমর্থকরা। নিজ মাঠে আয়োজন করা বিশ্বকাপ ট্রফিটি নিজেদের করে নিয়েছিলেন। এরপর থেকেই শুন্য হাতে ফিরেছে থ্রি লায়ন।
 
কতোটা উচ্ছ্বসিত ইংল্যান্ড ফুটবল দল তার প্রমাণ রাশফোর্ডের একটি টুইট। মা আমরা বিশ্বকাপে যাচ্ছি, যেন পুরো দলের আবেগ উগড়ে দিয়েছেন এক রাশফোর্ড। বিশ্বের শ্রেষ্ঠ ক্রীড়াযজ্ঞে নাম লেখানোর থেকেও বড় চাওয়া বিশ্বকাপের সোনালী ট্রফি। 

ইংল্যান্ড কোচ গ্যারেথ সাউথগেট ২৩ জনের চূড়ান্ত স্কোয়াড দিয়েছেন। সেই তালিকায় আছেন ২০ বছর বয়সী ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ফরোয়ার্ড রাশফোর্ড। স্বপ্ন পূরনের পথে ডেলে আলি ও অ্যাশলি ইয়ং। ইংল্যান্ডের এই দলের গড় বয়স ২৬ বছর ১৮ দিন।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ১১টি দল থেকে ২৩ জন খেলোয়াড় বেছে নিয়েছেন সাউথগেট। টটেনহাম থেকে সুযোগ পেয়েছেন সর্বোচ পাঁচজন। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও সিটি থেকে ডাক পেয়েছেন চারজন করে। সুযোগ না পাওয়াদের মধ্যে বড় নাম জো হার্ট, সিটি থেকে বিদায় নিতে বাধ্য হওয়া এ গোলরক্ষক জায়গা পাননি ইংল্যান্ড স্কোয়াডে।

সাউথগেটের একাদশে থাকতে পারেন গোলকিপার জ্যাক বাটল্যান্ড। ডিফেন্স সামলাতে থাকছেন গ্যারি কাহিল, ফিল জোনস ও অ্যাশলি ইয়াং। ডেলে আলি, জেসি লিনগার্ডদের কাছ থেকে বল পাবেন ফরোয়ার্ড হ্যারি কেন, মার্কাস রাশফোর্ড, রহিম স্টার্লি ও বিস্ময় জেমি ভার্ডি। নাম দেখে দল চেনা, ইংল্যান্ড দল তাই বেশি চেনা।

ভাবা হচ্ছে, তরুণদের নিয়ে দল গঠন করে কিছুটা এগিয়ে থাকবে ইংল্যান্ড। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে যারা ভাল খেলেছেন তাদের জায়গা হয়েছে ২৩ সদস্যের দলে। ১৮ জুন তিউনিসিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামবে ইংল্যান্ড।

ডাকনাম

:

দ্য থ্রি লায়ন্স

অ্যাসোসিয়েশন

:

দ্য ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন

কনফেডারেশন

:

উয়েফা (ইউরোপ)

হেড কোচ

:

গেরেথ সাউথগেট

অধিনায়ক

:

হ্যারি কেইন

সর্বাধিক ম্যাচ

:

পিটার শিল্টন (১২৫)

সর্বাধিক গোলদাতা

:

ওয়েইন রুনি (৫৩)

হোম ভেন্যু

:

ওয়েম্বলি স্টেডিয়াম

বর্তমান র‌্যাংকিং

:

১২

সেরা সাফল্য

:

চ্যাম্পিয়ন ১৯৬৬ সাল

বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ

:

১৯৫০, ১৯৫৪, ১৯৫৮, ১৯৬২, ১৯৬৬, ১৯৭০, ১৯৮২,

১৯৮৬, ১৯৯০, ১৯৯৮, ২০০২, ২০০৬, ২০১০, ২০১৪, ২০১৮

সেরা খেলোয়াড়

:

হ্যারি কেইন

এএ/ওয়াই

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়