• ঢাকা শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫

সুস্থ সালাহ খেলবেন প্রথম ম্যাচ থেকেই!

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ০৯ জুন ২০১৮, ১৯:৪১
মোহামেদ সালাহ। মিশর জাতীয় ফুটবল দলের কান্ডারী। যার হাত ধরে বিশ্বকাপের মূলমঞ্চে উঠে এসেছে তারা। আলোচনার প্রাক প্রদীপে উঠে এসেছেন চলতি মৌসুমে ক্লাবের পারফরম্যান্সের কল্যাণে। আর এমন তুখোড় পারফরম্যান্সের পরেও কিনা শংকায় ছিল বিশ্বকাপের মূলমঞ্চে না খেলার। 

গত ২৬ মে কিয়েভে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে রিয়াল ডিফেন্ডার সার্জিও রামোসের অবৈধ ট্যাকেলে কান্নাভেজা চোখ নিয়ে মাঠ ছাড়েন মিসরের সুপারস্টার মোহামেদ সালাহ। তার মাঠ ছাড়র সঙ্গে সঙ্গেই চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়ের স্বপ্ন নিভে যায় লিভারপুলের। এরপর থেকেই মিডিয়ার বাহিরে ছিলেন সালাহ। 

রামোসের সেই ফাউলের ধকল কাটিয়ে বিশ্বকাপ শুরুর আগেই মাঠে ফেরার অপেক্ষায় রয়েছেন সালাহ। তবু সংবাদ মাধ্যমে কি শেষ হয় সেই ফাউলকে নিয়ে আলোচনা। সম্প্রতি স্প্যানিশ সংবাদ মাধ্যমে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে সালাহ জানিয়েছেন রামোসের করা সেই ফাউলটি ছিল তার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বাজে মুহূর্ত।

স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম ‘মার্কা’কে সালাহ বলেছেন, ফাইনালে মাঠ ছেড়ে যাওয়া আমার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বাজে মুহূর্ত। সেদিন সালাহর কান্নাই বলে দিয়েছে ক্যারিয়ারে এর আগে কখনো এমন নির্মম মুহূর্তের সম্মুখীন হননি। আমি ভাবছিলাম হয়তো বিশ্বকাপটাও খেলতে পারবো না। এটা খুবই ভয়াবহ ছিল।

সেদিন লিভারপুলের চেয়ে মিসরের কান্নাটা বেশি ছিল। কারণ সালাহকে ঘিরেই যে মিসরের বিশ্বকাপ স্বপ্ন বোনা। শুরুতে জানা গিয়েছিল বড়জোর গ্রুপ পর্বে মিসরের জার্সিতে শেষ ম্যাচটি খেলতে পারেন সালাহ। 

২৫ বছর বয়সী সালাহ বলেন, প্রথমে ভেবেছিলাম, হয়তো বিশ্বকাপ খেলতে পারবো না। এটা ছিল খুব ভয়ানক। বিশ্বকাপের শুরু থেকেই সালাহ খেলবেন কিনা সে ব্যাপারে কিছুই বলেননি। 

সালাহ বলেন, আমাদের (মিশর) জন্য বিশ্বকাপে সুযোগ পাওয়াটাই স্পেনের বিশ্বকাপ জয়ের সমান। স্পেনে আমার অনেক বন্ধু রয়েছে। আমি ডিয়েগোকে (কস্তা) অনেক পছন্দ করি। সে একজন উঁচু মানের মানুষ এবং খেলোয়াড়।

তবে মিসরীয় ফুটবল ফেডারেশনের সদস্য খালেদ লতিফ জানান, সালাহ প্রথম ম্যাচ থেকে খেলার জন্য প্রস্তুত। আমরা প্রথম ম্যাচে তাকে অন্তত বদলি প্লেয়ার হিসেবে হলেও মাঠে নামাব।

এদিকে গতকাল দলের সাথে কিছুক্ষণ অনুশীলন করেছেন সালাহ। 

সালাহর ইনজুরি নিয়ে কোচ হেক্টর কুপার বলেন, সালাহ দ্রুতই উন্নতি করছে। ডাক্তার আমাদের খুব ভালো সংবাদ দিয়েছে। আমরা আশা করি প্রথম ম্যাচ থেকেই তাকে পাব এবং আমরা তার জন্য অপেক্ষা করছি।

যেই রামোসের কারণে চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনাল পুরোটা খেলতে পারেননি সালাহ, সেই রামোসের স্পেনের বিপক্ষে দ্বিতীয় রাউন্ডে মুখোমুখি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে সালাহর দেশ মিশরের। তবে এতো কিছু ভাবছেন না সালাহ। তার মতে স্পেনের কাছে বিশ্বকাপ জেতাটা যত আনন্দের, মিশরবাসীর কাছে বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করাটাই সেই আনন্দের।

২৫ বছর বয়সী সালাহর জীবনে এটাই প্রথম বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ। তবে তার জীবনের প্রথম বিশ্বকাপের স্মৃতি হলো ২০০২ বিশ্বকাপের ফাইনাল। এই বিষয়ে তিনি তিনি বলেন, আমার মনে হয় আমার দেখা প্রথম বিশ্বকাপ হলো ২০০২ সালের বিশ্বকাপ। সব মনে নেই তবে সেই ম্যাচটি আমি আমার শহরে এবং আমাদের বাসায় বসেই দেখেছি। সেই ম্যাচে ব্রাজিল ২-১ ব্যবধানে জিতে। ব্রাজিলের হয়ে দুটিই গোলই করেন রোনালদো।

১৫ জুন প্রথম ম্যাচে উরুগুয়ের বিপক্ষে মাঠে নামবে সালাহর মিসর। গ্রুপের অন্য দুই দল স্বাগতিক রাশিয়া ও সৌদি আরব।

এএ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়