• ঢাকা রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫

ফের শীর্ষে সাকিবরা

স্পোর্টস ডেস্ক
|  ০৬ মে ২০১৮, ১১:১৮ | আপডেট : ০৬ মে ২০১৮, ১১:৩২
চলতি আইপিএলে প্লে-অফের লড়াই থেকে প্রায় ছিটকে গেলো দিল্লি ডেয়ারডেভিলস। সানরাইজার্স হায়দরাবাদের কাছে ৭ উইকেটে হেরে আইপিএল জয়ের স্বপ্ন কার্যত শেষ হল দলটির। 

শনিবার টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন দিল্লির অধিনায়ক শ্রেয়াস আইয়ার। ইনিংসের শুরুটাও ভালো করে আইয়ারের দল। কিন্তু শেষটা হাসি মুখে করতে পারলেন না দিল্লির ক্রিকেটারেরা। দিল্লির হয়ে ব্যাট হাতে ভাল পারফর্ম করেন ভারতের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ী দলের অধিনায়ক পৃথ্বী শ। 

৩৬ বলে ৬৫ রানের ইনিংস খেলেন এই তরুণ তারকা। ছয়টি চার এবং তিনটি ছয় দিয়ে ইনিংসটি সাজানো ছিল এই ডানহাতি ব্যাটসম্যানের। পৃথ্বী ছাড়া রান পান অধিনায়ক শ্রেয়াস। দুটি ছয় এবং তিনটি চার দিয়ে সাজানো ছিল ৩৬ বলে ৪৪ রানের ইনিংস।

দুই জন ছাড়া আর কোনো দিল্লির ব্যাটসম্যানই এদিন বড় রান করতে পারেননি। দু-এক জনের দৌলতে এক দিন জয় পাওয়া যায় রোজ রোজ নয়, তা হয়তো বোঝোননি দিল্লির সাপোর্ট স্টাফেরা। নয়তো একটা দল প্রতিনিয়ত দল গঠনে ভুল করে কী করে! টি-টোয়েন্টি বিশেষজ্ঞ হিসেবে পরিচিত গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে এদিন ওপেন করতে পাঠায় দিল্লি টিম ম্যানেজমেন্ট। কিন্তু ওপেনিংয়ে এসেও নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি অস্ট্রেলিয়ান তারকা। মাত্র দুইরান করে রান আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন সমর্থকদের প্রিয় ম্যাক্সি। 

--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : ছোট পর্দায় আজকের খেলা
--------------------------------------------------------

রান পাননি নমন ওঝাও। ঋষভ পন্থের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে নিজের উইকেট হারান এই আইপিএলে প্রথম সুযোগ পাওয়া নমন। মাত্র ১ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরতে হয় এই ব্যাটসম্যানকে। নমন আউট হওয়ার কিছু সময়ের মধ্যেই আউট হন ঋষভ। ১৮ করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। শেষের দিকে ১৩ বলে ২৩ রানের ইনিংস খেলে লড়াই করার মতো জায়গায় দিল্লিকে নিয়ে যায় বিজয় শঙ্কর। 

সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে চমৎকার বল করেন আফগান লেগ স্পিনার রশিদ খান। ২৩ রান খরচ করে  দুটি উইকেট নেন রশিদ। একটি উইকেট পান সিদ্ধার্থ কল। দুটি উইকেট আসে রান আউট হিসেবে। বাংলাদেশের টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ৪ ওভারে ৩৪ রান দিয়ে কোনো উইকেট পাননি।

জবাবে ব্যাট হাতে নেমে এক বল বাকি থাকতেই সাত উইকেট হাতে নিয়ে জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় রান তুলে নেয় সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। এদিন অরেঞ্জ আর্মিদের হয়ে ম্যাচের ভীত শুরুতেই গড়ে দেয় তাদের ওপেনিং জুটি। শিখর ধাওয়ান এবং অ্যালেক্স হেলস মিলে প্রথম উইকেটে ৭৬ রানের পার্টনারশিপ গড়েন। ৩১ বলে ৪৫ রান করেন হেলস এবং ৩০ বলে ৩৩ রান করেন শিখর। তিনটি চার এবং তিনটি ছয় দিয়ে সাজানো ছিল অ্যালেক্সের ইনিংস, পাশাপাশি শিখরের ইনিংস সাজানো ছিল দুটি চার এবং একটি ছয় দিয়ে। ক্রিজে সেট হয়ে গেলেও এই দুই ব্যাটসম্যানকেই প্যাভিলিয়নে ফেরান অমিত মিশ্র।

সেট দুই ব্যাটসম্যানের উইকেট হারালেও জয় পেতে সমস্যা হয়নি সানরাইজার্সের। অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন এবং ইউসুফ পাঠান নিজেদের দায়িত্বে জয় এনে দেন হায়দরাবাদকে। 

মূলত ইউসুফের ঝড়ো ইনিংসই জয়ের রাস্তা পরিষ্কার করে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের জন্য। ১২ বলে ২৭ রানের ইনিংস খেলেন এই হার্ড হিটার। দুটি চার এবং দুটি ছয় দিয়ে সাজানো ছিল ডান-হাতি ব্যাটসম্যানের ইনিংস। স্ট্রাইক রেট ২২৫.০০। 

সিনিয়র পাঠানকে যোগ্য সঙ্গ দেন অধিনায়ক উইলিয়ামসন। ৩২ রান করে অপরাজিত থাকেন নিউজিল্যান্ড ও হায়দরাবাদের অধিনায়ক। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব ব্যাট হাতে নামার আগেই জয় পেয়ে যায় দল।

এই ম্যাচে জয়ের ফলে নয় ম্যাচ থেকে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে লিগ শীর্ষে পৌঁছে গেল ২০১৬ সালের চ্যাম্পিয়নরা। দশ ম্যাচ থেকে সমসংখ্যক পয়েন্ট থাকলেও রান রেটের বিচারে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে চেন্নাই সুপার কিংস।

আরও পড়ুন : 

ওয়াই/এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়