• ঢাকা বুধবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৮ | ১২ বৈশাখ ১৪২৫

অঘটনের জন্ম দিতে চায় আইসল্যান্ড

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১২ এপ্রিল ২০১৮, ১৪:৫৩ | আপডেট : ১২ এপ্রিল ২০১৮, ১৫:২৭
মাত্র তিন লক্ষ জনসংখ্যার দেশ এবং পৃথিবীর সবচেয়ে ক্ষুদ্র জাতি হিসেবে রাশিয়ার টিকেট নিশ্চিত করাটা আলোচনার মত ব্যপারই বটে। ইংরেজিতে একটা কথা আছে "Quantity not quality matters" সেই কথাটিরই যেন বাস্তব উদাহরণ দিয়ে দিল টীম আইসল্যান্ড। ১৯৩০ এর দশকে ফুটবলে হাতে খড়ি এই জাতির আজকের উত্থান কিংবা সাম্প্রতিক সফলতার পেছনের গল্পটাই  কি আর কিভাবেই বা এটা সম্ভব হল?

আইসল্যান্ডের জাতীয় খেলা হ্যান্ডবল সেখানে বরাবরই জনপ্রিয়। হ্যান্ডবলের জনপ্রিয়তার তুলনায় যেখানে ফুটবল ছিল অনেকটাই ফিকে। তাদের সর্বোচ্চ সাফল্য ছিল ইউরোর বাছাই পর্যন্তই। সবচেয়ে ক্ষুদ্র জাতি হিসেবে বিশ্বকাপের টিকিটটা তারা চার বছর আগেই পেতে পারত কিন্তু প্লে অফে ক্রোয়েশিয়ার কাছে ২-০ গোলে হেরে স্বপ্নভঙ্গ হয়। আইসল্যান্ড ফুটবল ফেডারেশন (KSI) বেশকিছু দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা হাতে নেয় ফুটবল জনপ্রিয় করা এবং সফল জাতীয় দল হিসেবে গড়ে তোলার জন্য। তারই অংশ হিসেবে ২০০৯ সালে একদল তরুণ কোচ ইংল্যান্ড পাড়ি জমায় উয়েফা লাইসেন্স এর প্রস্তুতির জন্য।

--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : এশিয়া কাপের উদ্বোধনী দিনেই নামবে বাংলাদেশ
--------------------------------------------------------

কেএসআই এর প্রথম থেকেই লক্ষ্য ছিল দক্ষ কোচের পাইপলাইন তৈরি। তারা যে সঠিক ছিল তার প্রমাণ তিন লক্ষ মানুষের দেশে আজকে প্রায় ৬০০ জন প্রশিক্ষিত কোচ আছে যাদের মধ্যে ৪০০ জন উয়েফা বি লাইসেন্সধারী অর্থাৎ প্রতি ৮২৫ জন মানুষের জন্য একজন করে কোচ এবং ইংল্যান্ডে এই সংখ্যাটা দশ হাজারের উপরে। বর্তমানে আইসল্যান্ডে অনুর্ধ-১০ বয়সভিত্তিক দলের কোচ হতেও প্রয়োজন হয় উয়েফা বি লাইসেন্স।

ফুটবলের বড় কোনো আসরে এই প্রথম খেলছে আইসল্যান্ড। উত্তর আটলান্টিক মহাসাগরের বুকে জেগে ওঠা এ দ্বীপরাষ্ট্রটির ইউরো কাপে ফুটবল নৈপুণ্যে অবাক দর্শকরা। বরফে ঢাকা আইসল্যান্ডের খেলোয়াড় ও জনগণের অনেক কিছুই ছিল আমাদের অজানা। কিন্তু তাদের ফুটবল দলের এমন সাফল্যে দেশটির বিভিন্ন দিক সামনে চলে এসেছে। তাদের খাদ্যাভ্যাস, বাসস্থান ও লড়াইয়ের বিভিন্ন দিক বেশ চমকপ্রদ। 

২০১১ সালে আইসল্যান্ডের স্থানীয় ফুটবল ক্লাব এসটিজারনানের খেলোয়াড়দের জয় উদযাপন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়ে। এক ম্যাচ জিতে দলের খেলোয়াড় বিভিন্ন ভঙ্গিতে অদ্ভুতভাবে উদযাপন করে। একটিতে মাঠের মধ্যে খেলোয়াড়দের দিয়ে তৈরি কৃত্রিম টয়লেট তৈরি করে কৃত্রিমভাবে প্রাকৃতিক কাজ সারার অভিনয় করে তারা। অন্য খেলোয়াড়ের পিঠের ওপর চড়ে পানিতে ঝাপ দেয়ার দৃশ্য মাঠেই দেখান তারা। খেলোয়াড়দের দিয়ে তৈরি কৃত্রিম বাইসাইকেল তৈরি করে তা চালাতে দেখা যায় এক খেলোয়াড়কে। আবার এক সময় দেখা যায়, গোল করে এক খেলোয়াড় গর্ভবতী নারীর সন্তান প্রসবের দৃশ্যে অভিনয় করছেন। সবকিছু মিলিয়ে তাদের সেই উদযাপন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ইউটিউবে ভাইরাল হয়।

বাছাইপর্বের ১০ ম্যাচের ৭টিতে জিতে গ্রুপের শীর্ষে থেকেই বিশ্বকাপের টিকেট পায় আইসল্যান্ড। বিশ্বকাপের টিকেট পেয়ে আরেকটি ‘রেকর্ডও’ করেছে আইসল্যান্ড। পৃথিবীর ক্ষুদ্রতম দেশ হিসেবে বিশ্বকাপ খেলতে যাচ্ছে তাঁরা। আইসল্যান্ডের আগে ক্ষুদ্রতম দেশ হিসেবে বিশ্বকাপ খেলার রেকর্ড ছিল ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোব্যাকোর (জনসংখ্যা ১.৩ মিলিয়ন)। বিশ্বকাপ খেলা নর্দান আয়ারল্যান্ডের জনসংখ্যা ছিল ১.৮৫ মিলিয়ন, স্লোভেনিয়ার ২-.০৮ মিলিয়ন, জ্যামাইকার ২.৮৯ মিলিয়ন। 
 
যেভাবে রাশিয়া বিশ্বকাপে
২০১৭ সালের ২৪ মার্চ কসভোর বিপক্ষে ম্যাচে জয় দিয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের যাত্রা শুরু করে আইসল্যান্ড। ক্রোয়েশিয়া, ইউক্রেন ও তুরস্ককে হারিয়ে বাছাই পর্বে চমক দেয় আইসল্যান্ড। বাছাই পর্বের শেষ ম্যাচে কসোভোকে ২-০ গোলে পরাজিত করে রাশিয়া বিশ্বকাপ খেলার টিকিট অর্জন করে তারা।

ডাকনাম

:

আওয়ার বয়েজ

অ্যাসোসিয়েশন

:

ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন অব আইসল্যান্ড

কনফেডারেশন

:

উয়েফা (ইউরোপ)

হেড কোচ

:

হেমিয়ার হিলগ্রিমসন

অধিনায়ক

:

অ্যারন গিনারসসন

সর্বাধিক ম্যাচ

:

রুনার ক্রিসটিনসন (১০৬)

সর্বাধিক গোলদাতা

:

ইইউর গুয়ার্জোনেশেন (২৬)

হোম ভেন্যু

:

লাউগারডালসভলোউর

বর্তমান র‌্যাংকিং

:

১৮

বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ

:

২০১৮

সেরা খেলোয়াড়

:

বিরিকির বার্জারন

আরও পড়ুন :

এএ/ওয়াই

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়