close
বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০১৮

এলএমটেনে উড়ে গেলো সেল্টা

স্পোর্টস ডেস্ক
|  ১২ জানুয়ারি ২০১৮, ১০:৫৩ | আপডেট : ১২ জানুয়ারি ২০১৮, ১১:০১
এই ম্যাচের আগে সেল্টার শেষ কয়েকটি ম্যাচে দৃষ্টি দিলে দেখা যায় লা লিগায় সেল্টার বিপক্ষে শেষ ম্যাচে ড্র করেছিল বার্সেলোনা। একই ফলাফল ছিল কোপা দেল রের শেষ ষোলোর প্রথম লেগে। এরপর বার্সার চিরপ্রতিদ্বন্দী রিয়াল মাদ্রিদকেও একইভাবে আটকে দিয়েছিল তারা। কোপা দেল’রের শেষ ষোলোর প্রথম লেগে ড্র করার পর দ্বিতীয় লেগে আর ঝুঁকি নিতে চায়নি ভালভার্দে। আর এতেই কপাল পুড়ে সেল্টার। 

কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করে কোপা দেল’রেতে নিজেদের সেরাটা জানান দিয়ে রাখল বার্সেলোনা। লা লিগায় আধিপত্যের সঙ্গে কোপা দেল’রেতেও চমৎকার পারফরম্যান্সে ভক্তদের ট্রেবল শিরোপার জয়ের আভাসটা ভালোভাবেই দিয়ে রাখল মেসি-সুয়ারেজরা।

বড়দিন ও নতুন বছরের ছুটি কাটিয়ে সেল্টার বিপক্ষে কোপার দেল’রের প্রথম ম্যাচে ছিলেন না মেসি ও সুয়ারেজের মতো তারকা খেলোয়াড়রা। তবে গতকাল তাদের একাদশে ফেরায় পাল্টে গেছে বার্সার পারফরম্যান্সও। চেনা মাঠে গতকাল রাতে বার্সার গোল উৎসবের শুরুটা করেন মেসি।

দ্বিতীয় লেগে ম্যাচের প্রথম থেকেই ‘আক্রমণই মূলমন্ত্র’ এমন মনোভাব নিয়েই খেলতে নেমেছিল বার্সেলোনার ফুটবলাররা। আক্রমণে আক্রমণে সেল্টার ডিফেন্সের ত্রাহি অবস্থা। যার ফল বার্সা পায় ম্যাচের ১৩ মিনিটে। বাঁ প্রান্ত থেকে স্প্যানিশ ডিফেন্ডার জর্ডি আলবার লো ক্রস থেকে লো ভলিতে সেল্টার গোলরক্ষক সার্জিও আলভারেজকে পরাস্ত করেন এই আর্জেন্টাইন জাদুকর।

এর দুই মিনিট পর ম্যাচের ১৫ মিনিটে বাঁ দিকে আলবাকে বল বাড়িয়ে ডি-বক্সে ঢুকে সতীর্থের ফিরতি পাস পেয়ে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন পাঁচ বারের ব্যালন ডি’অর জয়ী তারকা মেসি। এই ম্যাচে জোড়া গোলের মধ্যে দিয়ে কোপা দেল রের ইতিহাসে সেরা গোলদাতাদের মধ্যে প্রথম দশে নিজের নাম লিখিয়েছেন তিনি। 

ম্যাচের ২৮ মিনিটে আবারো মেসি-আলবা শো। এবার আলবাকে গোল করতে সাহায্য করেন মেসি। দূর থেকে সতীর্থের দারুণ ক্রস ডি-বক্সে ফাঁকায় পেয়ে কোনাকুনি শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন তিনি। অনেকে মনে করতে পারেন মেসি এর মধ্য দিয়ে আগের দুই অ্যাসিস্টের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। মেসি এ নিয়ে শেষ ১৪ ম্যাচে নিজে ১৪ গোল করার পাশাপাশি ১০টিতে অ্যাসিস্ট করেন। এই না হলে গোলমেশিন মেসি! বিশ্রামে যাওয়ার আগেই ৪-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। 

ম্যাচের ৩১ মিনিটে ডি-বক্সের ঠিক বাইরে থেকে ডেনমার্কের ফরোয়ার্ড সিস্তো গোলরক্ষককে ব্যাকপাস দিতে গেলে বল আরেক জনের পায়ে লেগে চলে যায় উরুগুয়ের স্ট্রাইকার সুয়ারেসের কাছে। সেটি সফলভাবে কাজে লাগিয়ে সেল্টার জালে বল পাঠান সুয়ারেজ।

বিরতির পর সেল্টার খেলায় কিছুটা ধার ফিরে আসলেও ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ ছিল বার্সার হাতে। তাই ৫৯ মিনিটে মেসিকে তুলে নিয়ে ফরাসি মিডফিল্ডার উসমান দেম্বেলেকে নামান কোচ। কিছুক্ষণ পর আন্দ্রেস ইনিয়েস্তাকেও উঠিয়ে নেন ভালভার্দে। দেম্বেলের নেয়া কর্ণার থেকে ৮৭ মিনিটে দারুণ এক হেডে ম্যাচের শেষ গোলটি করেন বার্সার ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডার ইভান রাকিতিচ।

এদিন মাঠে দর্শক সারিতে বসে বার্সার গোল উৎসবের ম্যাচটি উপভোগ করেন রেকর্ড মূল্যে লিভারপুল থেকে বার্সায় যোগ দেয়া ব্রাজিলিয়ান তারকা ফুটবলার ফিলিপে কুতিনহো। 

আগের দুই ড্রয়ের প্রতিশোধ হিসেবে ৫-০ গোলে তার উড়িয়েই দিয়েছে সেল্টাকে। এই টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠা বাকি দলগুলো হচ্ছে-  রিয়াল মাদ্রিদ, অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ, ভ্যালেন্সিয়া, দেপোর্তিভো আলাভেস, সেভিয়া, এস্পানিওল ও লেগানেস।

এএ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়