close
ঢাকা, রোববার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭ | ০৩ পৌষ ১৪২৪

হাথুরুকে পেতে বিসিবিকে লঙ্কান বোর্ডের চিঠি

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২৩ নভেম্বর ২০১৭, ১০:৩২ | আপডেট : ২৩ নভেম্বর ২০১৭, ১০:৩৮
বাংলাদেশ দলের দায়িত্বে আর ফিরছেন না চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। তাই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডও তার অপেক্ষায় আর নেই। নতুন কোচের সন্ধানে নেমেছে বিসিবি। গুঞ্জন চলছিলো লঙ্কান ক্রিকেট দলের কোচ হচ্ছেন হাথুরু। যদিও তারপর বার বার বোর্ড থেকে বলা হচ্ছে হাথুরুসিংহে আগেই আসুক, তারপর কথা বলে চূড়ান্ত ব্যবস্থা।

২০১৯ সাল পর্যন্ত চুক্তি থাকলেও বাংলাদেশের কোচের পদে আর চাকরি না করারই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত এই কোচের। কিন্তু চুক্তি যখন আছে, চাইলেও তো আর সেটিকে অস্বীকার করে চলে যেতে পারেন না তিনি। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড(বিসিবি) ব্যাপারটি এত সহজে মেনে নেবে কেন?

এসব বিষয় মাথায় রেখেই গতকাল বুধবার বিসিবি সভাপতিকে চিঠি লিখেছেন শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের (এসএলসি) সভাপতি থিলাঙ্গা সুমাথিপালা। হাথুরুসিংহেকে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট দলের কোচ পদপ্রার্থী হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকারও করা হয়েছে সেই চিঠিতে। তবে এসএলসি জানিয়েছে, হাথুরুকে কোচ হিসেবে বিবেচনা করা হবে বাংলাদেশের সঙ্গে তার চুক্তির সবকিছু চুকেবুকে গেলেই।

গ্রাহাম ফোর্ড চাকরি ছেড়ে দেন চলতি বছরের জুনে। এরপর থেকে কোচের জায়গা ফাঁকাই পড়ে আছে শ্রীলঙ্কার। অন্তর্বর্তীকালীন কোচ নিক পোথাসকে দিয়ে কাজ চালাচ্ছে তারা। সঙ্গে পূর্ণকালীন কোচও খুঁজছিল দ্বীপ দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। যে জায়গা পূরণে শ্রীলঙ্কা হাত বাড়িয়েছে হাথুরুসিংহের দিকে। 

এক বিবৃতিতে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড জানিয়েছে, এই মুহূর্তে তারা হাথুরুসিংহের আইনজীবির সঙ্গে আলোচনা করছে। একই সঙ্গে হাথুরুসিংহেকে ‘কোচ করতে তারা প্রস্তুত’, যদি বিসিবির চুক্তি থেকে তাকে ‘মুক্ত’ করা সম্ভব হয়। এসএলসি প্রধান সুমাথিপালার ওই বিবৃতির শেষ দিকে জানানো হয়েছে, বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসানকে তারা হাথুরুসিংহের ব্যাপারে আগ্রহের কথা জানিয়েছে চিঠিতে।

মূলত হাথুরুসিংহেকে কোচ হিসেবে নিয়োগ দেওয়ার ক্ষেত্রে বিসিবির কোনো আপত্তি আছে কিনা সেটা জানতে চেয়েই বিসিবিকে লিখিত বার্তা পাঠিয়েছেন তিনি। এটা একটি আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়া। যাতে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডের সম্পর্ক অটুট থাকে। যেহেতু হাথুরুসিংহে আর বাংলাদেশের দায়িত্বে ফিরতে আগ্রহী নন, তাই এক্ষেত্রে বিসিবির কোনো সমস্যা থাকার কথা নয়। এই চিঠি দেওয়ার অর্থ হচ্ছে বিসিবি যাতে হাথুরুসিংহেকে ছেড়ে দেয়।

নাজমুল হাসান পাপনকে চিঠি দেওয়ার বিষয়ে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের প্রধান সুমাথিপালা বলেন, ‘আমাদের স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদের পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে হাথুরুসিংহে হতে পারেন যথাযোগ্য কোচ। আজ (বুধবার) আমি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের কাছে লিখিত বার্তা পাঠিয়েছি। সেখানে আমি হাথুরুসিংহেকে নিয়ে আমাদের উদ্দেশ্যের কথা উল্লেখ করেছি। আমাদের নির্বাহী কমিটি মনে করে হাথুরুসিংহে শ্রীলঙ্কার কোচ হওয়ার জন্য যোগ্য। আমরা শিগগিরই তার সঙ্গে আলোচনায় বসব। আমরা তাকে কোচ হিসেবে নিয়োগ দেওয়ার ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা ও যথাযথ উপায় মেনে চলতে চাই।’

এর আগেও একবার শ্রীলঙ্কা চেষ্টা চালিয়েছিল হাথুরুসিংহেকে দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার। যদিও ‘বেতন সংক্রান্ত’ ঝামেলায় সেবার যাওয়া হয়নি বলে গুঞ্জন আছে। বাংলাদেশের সঙ্গে তার চুক্তির মেয়াদ ২০১৯ বিশ্বকাপ পর্যন্ত। সবকিছু ঠিকঠাকই চলছিল। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে বাংলাদেশের বাজে পারফরম্যান্সের জের ধরে হাথুরুসিংহে পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দেন বিসিবিকে। কী কারণে হঠাৎ তিনি দায়িত্ব ছেড়ে দিলেন, সেটা অবশ্য এখনও রহস্য।

হাথুরুসিংহে ২০১৪ সালে কোচ হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করার পর থেকে সাফল্যের পথেই হেঁটেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। মোটামুটি দীর্ঘ সেই সাফল্যের ফিরিস্তি। আইসিসির ওয়ানডে র‍্যাঙ্কিংয়ে ওপরের দিকে উঠে আসা, অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের ওয়ানডে বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালে খেলা, টেস্টে শ্রীলঙ্কা, অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ডের মতো দলকে হারানোসহ সর্বশেষ চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সেমিফাইনালে খেলা—বাংলাদেশকে অন্য উচ্চতাতেই নিয়ে গেছেন হাথুরু। ২০১৫ সালে তিন মাসের ব্যবধানে পাকিস্তান, ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বাংলাদেশের ওয়ানডে সিরিজ জয়ের নেপথ্য নায়ককে এখন তার নিজের দেশ পেতে চাইছে খুব করেই। অথচ শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট দলের সহকারী কোচ হিসেবে কাজ করার সময়ই চাকরি হারিয়েছিলেন ২৬টি টেস্ট ও ৩৫টি ওয়ানডে খেলা এই ক্রিকেটার।

এএ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়