• ঢাকা মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫

ভারতে এই প্রথম জিন এডিট করে ঠেকানো হলো ক্যানসার

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক
|  ৩০ জুলাই ২০১৮, ১৫:০৩ | আপডেট : ৩০ জুলাই ২০১৮, ১৫:৩৫
ছবিটি প্রতীকী
ভারতের বেঙ্গালুরুর মেয়ে স্বয়ম প্রভা। আক্রান্ত হয়েছেন মরনব্যাধি ক্যানসারে। নিজের মায়ের শরীরেও ছিল ক্যানসার। কিন্তু নিজের সন্তান ও পরবর্তী প্রজন্মকে ক্যানসার থেকে মুক্ত করতে চেয়েছিলেন তিনি। আধুনিক চিকিৎসা পদ্ধতির মাধ্যমে নিজের সন্তানদের জন্মমুহূর্ত থেকেই ক্যানসার জিন মুক্ত করতে চেয়েছিলেন তিনি। আর পারলেনও। ‘জিন এডিটিং’-এর সাহায্যে মুম্বাইয়ের হাসপাতালে হলো এই অসাধ্য সাধন। ভারতে প্রথমবারের মতো জিন এডিটিংয়ের মাধ্যমে ক্যানসারের জন বদলে জন্ম নিলো সুস্থ যমজ সন্তান।

স্বয়ম প্রভার মা, দুই খালা এবং এক মামা ক্যানসারে আক্রান্ত। ক্যানসারে মৃত্যু হয়েছে তার দুই মাসিরই। আট বছর আগে স্বয়ম প্রভা জানতে পারেন যে ক্যানসার সৃষ্টিকারী বিআর সিএ-১ মিউটেশন রয়েছে তারও। নিজ স্বামী দেবাশিস পাণিগ্রাহীর সঙ্গে আলোচনা করে তিনি মুম্বাইয়ের যশলোক হাসপাতালে ভর্তি হন।

এই প্রসঙ্গে আমেরিকার হেনরি ফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক পারিজাত সেন বলেন, সাধারণত মায়ের থেকে সন্তানের শরীরে এই ক্যানসার জিন আসে। কিন্তু প্রি-ইমপ্ল্যানটেশন জেনেটিক পদ্ধতি ব্যবহার করায় এক্ষেত্রে ওই নারীর সন্তান ক্যানসার জিন থেকে মুক্ত হয়েছে।

মুম্বাইয়ের আইভিএফ (ইনভিট্রো ফার্টিলিটি) বিশেষজ্ঞ ফারুজা পারিখ বলেন, ভারতে এই ধরনের চিকিৎসায় প্রথমবার সাফল্য মিলল বলেই মনে করা হচ্ছে।

আমেরিকার অ্যাবভিয়ে ফার্মাসিউটিক্যালস রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের গবেষক কৌশাম্বী রায় সরকার বলেন, ‘প্রথমে হরমোনাল স্টিমুলেশনের মাধ্যমে অনেকগুলি ডিম তৈরি করা হয়। তারপর একটি শুক্রাণুকে পরিণত ডিম্বানুগুলির সাইটোপ্লাজমে ইনজেকশনের মাধ্যমে স্থানান্তরিত করা হয়। ইনকিউবেশনের পর ব্লাস্টোসিস্ট দশায় ভ্রূণের বায়োপসি করা হয়। এরপরই জেনেটিক অ্যানালাইসিস করে জানা যায়, কোনও ভ্রূণে মিউটেশন রয়েছে। এরপর যেগুলিতে বিআরসিএ মিউটেশন নেই, সেই ভ্রূণগুলিই স্থানান্তরিত করা হয় স্বয়ম প্রভার দেহে।

বছর কয়েক আগে হলিউড অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলির দেহে বিআরসিএ ওয়ান এবং বিআরসিএ টু মিউটেশন ধরা পড়েছিল। যার ফলে তার ক্যানসার হওয়ার সম্ভাবনা বেশি বলে জানান চিকিৎসকরা। এর পর নিজের স্তন ও ডিম্বাশয় অস্ত্রোপচার করে বাদ দিয়ে দেন এই অভিনেত্রী।

কিন্তু স্বয়ম প্রভার ক্ষেত্রে কোনোরকম রিমুভাল সার্জারির প্রয়োজন হয়নি। তার ক্ষেত্রে একটাই মিউটেশন ছিল, তাই প্রি-ইমপ্ল্যানটেশন জেনেটিক পদ্ধতির মাধ্যমে ছয়টি ভ্রূণকে আইভিএফ পদ্ধতির জন্যে বেছে নেওয়া হয়।

এভাবেই দুই সদ্যজাতের ক্যানসার কোষ মুক্ত করে সুস্থভাবে জন্ম দিয়েছেন স্বয়ম প্রভা।

কেএইচ/জেএইচ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়