• ঢাকা শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫

জার্মান প্রতিবেদন নিয়ে কে কী বললেন?

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২৪ মার্চ ২০১৮, ২৩:২১
বাংলাদেশ এখন স্বৈরশাসনের অধীন এবং এখানে এখন গণতন্ত্রের ন্যূনতম মানদণ্ড পর্যন্ত মানা হচ্ছে না। এখানে অনেক বছর ধরেই গণতন্ত্রকে ক্ষুণ্ণ করা হচ্ছে। আর এটা ঘটেছে ত্রুটিপূর্ণ নির্বাচনী ব্যবস্থার কারণে।

শুক্রবার জার্মানির গবেষণা প্রতিষ্ঠান বেরটেলসম্যান স্টিফটুংয়ে প্রকাশিত একটি রিপোর্টে এসব কথা বলা হয়েছে। প্রতিবেদনটি প্রত্যাখ্যান করেছে বাংলাদেশ সরকার। শনিবার আওয়ামী লীগ এবং ১৪ দলীয় জোটের অনেকেই এই বিষয়ে কথা বলেছেন। সরব হয়েছে বিএনপিও।

প্রতিবেদনটির বিষয়ে বিবিসি বাংলাকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম বলেছেন, এটি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও ভিত্তিহীন। যে সমীক্ষার ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি করা হয়েছে, সেটির তথ্য তারা কোথায় পেয়েছে?

তিনি বলেন, প্রতিবেদনটি যদি ২০১৫ সাল থেকে নেয়া তথ্যের ভিত্তিতে হয়ে থাকে, তবে সেই বছর তো বাংলাদেশে উল্টো ঘটনা ঘটেছিল। বাংলাদেশে বিরোধী দল বিএনপি যে অগ্নিসন্ত্রাস শুরু করে, তাতে সাধারণ মানুষ চরমভাবে লাঞ্ছিত হয়। তাদেরকে বিভিন্ন জায়গায় হত্যা করা হয়, আহত করা হয়।

তিনি আরও বলেন, গণতন্ত্রের মানদণ্ড কি আমাদের জার্মানদের কাছ থেকে শিখতে হবে? হিটলারের দেশ থেকে? ২০১৪ সালের নির্বাচন নিয়ে যেসব প্রশ্ন তোলা হয়েছে, সেসব পরে বিশ্বের সব দেশ মেনে নিয়েছে।

বাংলাদেশ সরকারের তথ্যমন্ত্রী ও জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেছেন, প্রতিবেদনটি একচোখা। তারা জঙ্গি-সন্ত্রাস দমনের ঘটনাকে অন্যভাবে চিত্রায়িত করছে। এটা ঠিক না। পৃথিবীর কোথাও অগণতান্ত্রিক শক্তি বিনাশের বিপক্ষে কেউ ওকালতি করে না।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে নিয়মিত সব নির্বাচন হচ্ছে। বিচার বিভাগ স্বাধীনভাবে কাজ করছে। গণমাধ্যমের প্রসার ও বিকাশ ঘটছে। সংবিধান অনুযায়ী বক্তব্য, বিবৃতি, সভা-সেমিনার এবং সমালোচনা করার অধিকার রয়েছে। সরকার জঙ্গি-সন্ত্রাস, নাশকতাসহ অগণতান্ত্রিক কর্মকাণ্ড মোকাবেলা করে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া রক্ষা করছে।

এই বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, জার্মান গবেষণা প্রতিষ্ঠান বেরটেলসম্যান স্টিফটুংয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বাংলাদেশের সঠিক চিত্র প্রতিফলিত হয়নি।

তিনি বলেন, আসলে প্রতিবেদনটি এমন নয় যে বাংলাদেশ একনায়কতন্ত্রের দিকে চলে গেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে বাংলাদেশের গণতন্ত্র একটু দুর্বল হয়ে পড়েছে। এটা হয়েছিল বিএনপি জামায়াতের ২০০১ সালে ক্ষমতায় যাওয়ার পরে। তখন ২৬ হাজার আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীকে হত্যাসহ চরম অত্যাচার নির্যাতন করা হয়।

তিনি আরও বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে বিএনপি যে জ্বালাও-পোড়াও করেছে সরকার তার বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়ায় তারা ভুল তথ্য দিয়ে এসব করাচ্ছে।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আমরা এতদিন ধরে যে কথাগুলো বলছিলাম, আজকে তা বিশ্বে স্বীকৃত হয়েছে। এই গবেষণার মধ্য দিয়ে আমাদের বক্তব্যের প্রতিফলন হয়েছে।

তিনি বলেন, জার্মান গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সমীক্ষায় বেরিয়ে এসেছে যে পৃথিবীর গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ নিচের দিকের পাঁচটি দেশের একটি। যেখানে গণতন্ত্র বিদায় নিয়েছে। স্বৈরতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এই গবেষণায় আমরা বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করে যারা স্বাধীনতা অর্জন করেছিলাম, তারা অত্যন্ত লজ্জাবোধ করছি এবং এর নিন্দা জানাচ্ছি।

কে/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়