কুরবানি সংক্রান্ত কিছু প্রয়োজনীয় মাসআলা

প্রকাশ | ১৩ আগস্ট ২০১৮, ১৭:২৭ | আপডেট: ১৩ আগস্ট ২০১৮, ১৮:০৫

হাফেজ মাওলানা মো. নাসির উদ্দিন

কুরবানি একটি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। হাদিস শরিফে এ ইবাদতের প্রতি উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে। নবী কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হজরত ফাতেমা (রা.) কে তার কুরবানির নিকট উপস্থিত থাকতে বলনে এবং ইরশাদ করেন, এই কুরবানির প্রথম রক্তবিন্দু প্রবাহিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আল্লাহ তাআলা তোমার গুনাহসমূহ ক্ষমা করে দেবেন। তিনি জিজ্ঞাসা করলেন, ইয়া রাসূল্লাহ- এটা কি শুধু আহলেবায়তের জন্য, নাকি সকল মুসলিমের জন্য? উত্তরে নবীজী বললেন, এই ফজিলত সকল মুসলিমের জন্য। (মুসনাদে বাযযার ২/১৫৪)

কার উপর কুরবানি ওয়াজিব

মাসআলা: ১০ জিলহজ ফজর থেকে ১২ জিলহজ সূর্যাস্ত পর্যন্ত যে প্রাপ্তবয়স্ক সুস্থ মস্তিষ্ক সম্পন্ন নর নারীর কাছে প্রয়োজনের অতিরিক্ত সাড়ে ৫২ তোলা রুপার সমমূল্যের সম্পদ থাকে তার কুরবানি করা ওয়াজিব। টাকা-পয়সা, সোনা-রুপার অলংকার, ব্যবসায়িক পণ্য, অপ্রয়োজনীয় আসবাবপত্র এসব কিছুর মূল্য কুরবানির নেসাবের ক্ষেত্রে হিসাবযোগ্য। (ইবনে মাজাহ শরীফ ২২৬; ফাতওয়ায়ে আলমগীরী ৫/২৯২)

নেসাবের মেয়াদ

মাসআলা: কুরবানির নেসাব পুরো বছর থাকা জরুরি নয়; বরং কুরবানির দিনগুলোতে থাকলেই কুরবানি ওয়াজিব হবে। (বাদায়েউস সানায়ে ৪/১৯৬; রদ্দুল মুহতার ৬/৩১২)

নাবালেগের কুরবানি

 মাসআলা: নাবালেগ শিশু-কিশোর বা যে সুস্থ মস্তিষ্ক সম্পন্ন নয়, এরা নেসাবের মালিক হলেও তাদের উপর কুরবানি ওয়াজিব হবে না। (বাদায়েউস সানায়ে ৪/১৯৬; রদ্দুল মুহতার ৬/৩১৬)

নাবালেগের পক্ষ থেকে কুরবানি

মাসআলা: নাবালেগের পক্ষ থেকে কুরবানি দেওয়া অভিভাবকের উপর ওয়াজিব নয়; মুস্তাহাব। (রদ্দুল মুহতার ৬/৩১৫; কাজিখান ৩/৩৪৫)

কুরবানি করার পূর্ণ সময়

মাসআলা: মোট তিনদিন কুরবানি করা যায়। জিলহজ মাসের ১০,১১ তারিখ ও ১২ তারিখ সূর্যাস্ত পর্যন্ত। হবে সম্ভব হলে জিলহজের ১০ তারিখেই কুরবানি করা উত্তম। (মুয়াত্তায়ে মালেক ১৮৮; ফাতওয়ায়ে আলমগীরী ৫/২৯৫)

কুরবানি করতে না পারলে

কেউ যদি কুরবানির দিনগুলোতে ওয়াজিব কুরবানি দিতে না পারে তাহলে পরে তার উপর কুরবানির উপযুক্ত একটি পশুর মূল্য সদকা করা ওয়াজিব। (কাজিখান ৩/৩৪৫)

কোন কোন পশু কুরবানি করা যায়

মাসআলা: উট, গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া ও দুম্বা দ্বারা কুরবানি করা জায়েজ। এসব গৃহপালিত পশু ছাড়া অন্যান্য পশু যেমন হরিণ, বন্যগরু ইত্যাদি দ্বারা কুরবানি করা জায়েজ নয়। (কাজিখান ৩/৩৪৮)

কুরবানির কোন পশুর কত বয়স হতে হবে  

মাসআলা: উট কমপক্ষে ৫ বছরের হতে হবে। গরু ও মহিষ কমপক্ষে ২ বছরের হতে হবে। আর ছাগল, ভেড়া ও দুম্বা কমপক্ষে ১ বছরের হতে হবে। ভেড়া ও দুম্বা যদি ১ বছরের কিছু কমও হয়, কিন্তু এমন স্বাস্থ্য সম্পন্ন যে, দেখতে ১ বছরের মতো মনে হয় তাহলে তা দিয়েও কুরবানি করা জায়েজ। ৬ মাসের কম বয়সের হলে চলবে না।  (কাজিখান ৩/৩৪৮) 


আরও পড়ুন :

সৌদিতে ২৫ দিনে ৩২ বাংলাদেশি হাজির মৃত্যু

 

এমকে