close
ঢাকা, রোববার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭ | ০৩ পৌষ ১৪২৪

পালিয়ে বিয়ে করলে ইসলাম কী বলে

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক
|  ০৭ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৫:০৭ | আপডেট : ০৭ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৫:২২
আরটিভির সরাসরি ইসলাম নিয়ে প্রশ্নোত্তরমূলক বিশেষ অনুষ্ঠান ‘শরিফ মেটাল প্রশ্ন করুন’। এ অনুষ্ঠানে কোরআন ও হাদিসের আলোকে দর্শক-শ্রোতাদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেয়া হয়। এবারের পর্বে উত্তর দিয়েছেন ইসলামী চিন্তাবিদ হাফেজ মুফতি কাজী মুহাম্মদ ইব্রাহিম।

১. ইসলামের দৃষ্টিতে নিজের সন্তানকে বাবা বলে ডাকা জায়েজ কিনা? 

উত্তর: হ্যাঁ, ইসলামী শরিয়ত মতে নিজের ছেলেকে বাবা বলা জায়েজ। আদর করে পুত্রকে বাবা বলে ডাকলে এতে কোনো সমস্যা নেই।

২.  বাবা-মাকে না জানিয়ে পালিয়ে বিয়ে করা ইসলামী শরিয়ত মতে জায়েজ কিনা?

উত্তর: এ বিষয়ে নবী করীম (সা.) বলেছেন, যদি কোনো নারী তার অভিভাবকের অমতে বা অভিভাবকে না জানিয়ে বিয়ে করে তার সে বিয়ে বাতিল, বাতিল, বাতিল। এটা একেবারেই উচিৎ নয়। এছাড়া বাব-মা যদি সন্তানের বিয়ের ব্যাপারে উদাসীন হন তাহলে তার বড়ো ভাই বা চাচা-জেঠার মতামত নিয়ে বিয়ে করতে পারেন। মোট কথা বিয়ের ক্ষেত্রে পরিবারের যে কোনো বয়োজ্যেষ্ঠ অভিভাবকের মতামত নিতেই হবে।

৩. জিনের প্রভাব থেকে রক্ষা পাওয়ার উপায় কী?

উত্তর : জিনের প্রভাব থেকে রক্ষা পেতে মুখের কাছে মোনাজাত আকারে হাত নিয়ে আউজুবিল্লাহ-বিসমিল্লাহসহ  সুরা এখলাস, সুরা নাস ও সুরা ফালাক এ তিনটি সুরা তিনবার করে পড়ে সারা শরীর মুছবেন।এতে শরীর বন্ধ হয়ে যাবে এবং সব ধরনের বদ প্রভাব থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। এছাড়া প্রত্যেক নামাজের পর আয়াতুল কুরসি পড়তে পারেন। এটিও বেশ কার্যকরী। আবার যে ঘরে তিনি ঘুমান সে ঘরে সুরা আল বাকারা পাঠ করলেও সব শয়তান জিন দূর হয়ে যাবে।

৪. আকিকা দেওয়ার ক্ষেত্রে বয়সের কোনো সময় সীমা আছে কী? 

উত্তর: এ বিষয়ে রাসুল (সা.) বলেছেন, শিশুর জন্মের সপ্তম দিনে তার আকিকা করা উত্তম। এছাড়া কোনো কোনো হাদিসে এসেছে শিশুর জন্মের সপ্তম দিন মিস হয়ে গেলে ১৪ তম দিনে। ১৪ তম দিন মিস হলে ২১ তম দিনে তারা আকিকা দেয়ার বিষয়ে নবী (স.)বলেছেন। তবে এর পরেও আকিকা করা যাবে। তবে মূল সুন্নাহ হলো সপ্তম দিনে। আকিকার দ্বারা যেহেতু শিশুর নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে তাই যত দ্রুত সম্ভব আকিকা দিয়ে দেয়া উচিৎ।

আরকে/এমকে 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়