• ঢাকা বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫

পৃথিবীর তাপমাত্রা আরও ২ ডিগ্রি বাড়লেই ভয়াবহ ঝুঁকি

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক
|  ১৩ আগস্ট ২০১৮, ১৫:০০ | আপডেট : ১৩ আগস্ট ২০১৮, ১৫:০৭
বৈশ্বিক উষ্ণায়নে ভুগবে বাংলাদেশও (ছবিটি প্রতীকী)
তাপমাত্রা মাত্র ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়লেই বড় ধরনের ঝুঁকি তৈরি হবে পৃথিবীর জন্য। সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, বিশ্বের তাপমাত্রা দুই ডিগ্রি বাড়লেই হটহাউস পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে। বিবিসি বাংলা এক ভিডিও প্রতিবেদনে এ ভয়াল আশঙ্কার কথা জানায়।

তাপমাত্রা দুই ডিগ্রি বাড়লে বৈশ্বিক উষ্ণায়নকে আর নিয়ন্ত্রণে রাখা যাবে না বলে জানিয়েছেন স্টকহোম রেজিলিয়েন্স সেন্টার। টেকসই উন্নয়ন ও পরিবেশ নিয়ে কাজ করা এ প্রতিষ্ঠানটি জানায়, এর মারাত্মক প্রভাব আগামী কয়েক দশকের মধ্যেই দেখা যাবে।

বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ফলে উত্তর মেরুর বরফ গলে যাবে। সেখানকার প্রাণীজগত ভয়াবহ ঝুঁকির মুখে পড়বে। সমুদ্রে পানির পরিমাণ বাড়বে, সেই পানি বেশি সূর্যকিরণ শোষণ করবে এবং এর ফলে কমে যাবে বরফ। ভাবতে পারেন, বরফ কমে গেলে আর কী হবে? বরফ কমে গেলে সারা পৃথিবীর উষ্ণতাও যাবে বেড়ে।

এর ফলে পৃথিবীর কয়েকটি দেশের অধিবাসীদের তাদের নিজেদের থাকার জায়গা পরিবর্তন করতে হবে। এই দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশও। আর আছে মালদ্বীপ। বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের নিচু এলাকা থেকে মানুষকে অন্য জায়গায় সরিয়ে নিতে হবে।

তাপমাত্রা বৃদ্ধি এবং বনভূমি ধ্বংসের ফলে বৃষ্টিপাত অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। যখন-তখন হতে পারে বৃষ্টি আবার যখন-তখন তীব্র রোদে কাতর করে ফেলতে পারে। এর ফলে বন্যা ও খরা বাড়বে, ধীরে ধীরে পশুপাখির অস্তিত্ব শেষ হতে থাকবে। তবে বাস্তুসংস্থানের উপর যে কী প্রভাব পড়বে সেটা বিজ্ঞানীরা এখনও নিশ্চিত হতে পারেনি।

ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ফান্ড ফর নেচার নামে দাতব্য সংস্থাটি জানায়, বেশিরভাগ গাছপালা ও বন্যপ্রাণীকে অন্য জায়গায় সরিয়ে নিতে হবে। তবে জলবায়ু ও পরিবেশ পরিবর্তনের ফলে বেশিরভাগ প্রাণীই খাপ খাওয়াতে ব্যর্থ হবে।

শুধু তাই নয়, অনেক প্রয়োজনীয় উদ্ভিদ বিলুপ্ত হয়ে যাবে এই উষ্ণায়নে। এর মধ্যে আছে চকলেট। চকলেটের কোকো বিন চাষের জন্য উষ্ণ ও আর্দ্র আবহাওয়া লাগে। বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ফলে কোকো চাষীরা পড়বেন বিপদে। বিজ্ঞানীরা বলেছেন, প্রচুর পরিমাণে বৃক্ষরোপণ করে এবং বাতাস থেকে কার্বনডাই অক্সাইড কমিয়ে এই ‘হটহাউস’অবস্থা রোধ করা সম্ভব।

তবে অনেকেই বৈশ্বিক উষ্ণায়ন নিয়ে বলা এইসব কথা বিশ্বাস করেন না। তারা বলেন, এইসব হতে আরও সময় লাগবে।

আরও পড়ুন  :

কেএইচ/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়