কোন ভাষায় কত অক্ষর

প্রকাশ | ০৭ মার্চ ২০১৮, ২০:০৭ | আপডেট: ০৭ মার্চ ২০১৮, ২৩:২৩

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক

সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে রয়েছে অসংখ্য ভায়া। কিন্তু আমরা কি জানি, কোন ভাষায় কতগুলি করে অক্ষর রয়েছে? বিশ্বের উল্লেখযোগ্য কয়েকটি ভাষায় কয়টি অক্ষর রয়েছে তা জেনে নেওয়া যাক। 

বাংলা ৫২

বাংলায় সব মিলিয়ে ৩২টি অক্ষর আছে। তবে যুক্তাক্ষর ধরলে ৫২টি অক্ষর। দেবনাগরী লিপি না হলেও তার সঙ্গে বাংলা বর্ণের প্রচুর মিল। মূলত এই লিপির জন্ম ব্রাহ্মী থেকে। 

আরবি ২৯

বিশ্বের প্রায় ৩৪ কোটি মানুষ কথা বলে আরবি ভাষায়। ২২টি দেশে আরবি ভাষায় কথা বলা হয়। এর মধ্যে মিশরে সবচেয়ে বেশি ৮ কোটি মানুষ কথা বলে।  আরবি লিপি ডান থেকে শুরু করে বাম দিকে শেষ করতে হয়।  ২৯টি বর্ণ বা হরফের এই লিপিতে কেবল ব্যঞ্জন ও দীর্ঘ স্বরধ্বনি নির্দেশ করা হয়। আরবিতে বড় হাতের ও ছোট হাতের অক্ষর বলে কিছু নেই।

তামিল ২৪৭

তামিল ভাষায় মূল অক্ষর ৩১টি। তবে যুক্তাক্ষর ধরলে সেখানে আরও ২১৬টি অক্ষর যুক্ত হয়। অর্থাৎ, সব মিলিয়ে ২৪৭টি অক্ষর। বিশ্বের যে কোনো ভাষার চেয়ে বেশি অক্ষর  তামিলে রয়েছে। 
--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন: ন্যাশনাল জিওগ্রাফির তালিকায় ১০ মসজিদ
--------------------------------------------------------

খামের ৭৪

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার পুরনো দেশগুলির অন্যতম কম্বোডিয়া। খামের সংস্কৃতি বহু শতাব্দীর। খামের ভাষাও খুব সমৃদ্ধ। খামের ভাষায় ৭৪টি অক্ষর আছে, যার মধ্যে ৩৫টি ব্যাঞ্জনবর্ণ এবং ১৪টি স্বরবর্ণ। বাকি অক্ষরগুলি যুক্তবর্ণ। তবে ব্যাঞ্জনবর্ণের মধ্যে ৩৩টি এখন ব্যবহৃত হয়, ২টির কোনো ব্যবহার নেই। 

থাই ৭০

থাইল্যান্ডের ভাষা থাই। থাই ভাষায় সব মিলিয়ে ৭০টি অক্ষর, যার মধ্যে ৪৪টি ব্যাঞ্জনবর্ণ এবং ১৫টি স্বরবর্ণ । এই দুই অক্ষর মিলিয়ে বেশ কিছু যুক্তাক্ষরও তৈরি হয়।

মালয়ালম ৫৮

দক্ষিণ ভারতের কেরলে মালয়ালম ভাষার প্রচলন আছে। এই ভাষায় মোট ৫৮টি অক্ষর, যার মধ্যে ১৩টি স্বরবর্ণ এবং ৩৬টি ব্যাঞ্জনবর্ণ। আর কিছু অন্তচিহ্ন আছে। ওই অঞ্চলের ছোট ছোট বেশ কয়েকটি ভাষাও মালয়ালম অক্ষরেই লেখা হয়। 

তেলেগু ৫৬

ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশে তেলেগু মুখ্যভাষা। তেলেঙ্গানা প্রদেশেও। কন্নড় ভাষার সঙ্গে তেলেগু লিপির বহু মিল আছে। কারণ, দুইটি ভাষারই সৃষ্টি একই জায়গা থেকে। সব মিলিয়ে ৫৬টি অক্ষর আছে এই ভাষায়। 

সিংহলী ৫৪

শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রভাষা ভাষা সিংহলী। অসামান্য সুন্দর এই ভাষার অক্ষর বিন্যাস। সব মিলিয়ে অক্ষরের সংখ্যা ৫৪৷ এই ভাষাতেও সংযুক্ত অক্ষরের প্রচলন আছে। 

কন্নড় ৪৯

দক্ষিণ ভারতের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ৪টি ভাষার একটি কন্নড়। কর্ণাটকে মূলত এই ভাষা ব্যবহৃত হয়। কন্নড় ভাষায় ১৩টি স্বরবর্ণ আছে। তবে তার মধ্যে অনুস্বর এবং বিসর্গ নেই। কন্নড়ে ব্যাঞ্জনবর্ণের সংখ্যা ৩৬। 

হিন্দি ৪৪

হিন্দিও স্বরবর্ণ এবং ব্যাঞ্জনবর্ণে বিভক্ত, যার মধ্যে ১১টি স্বরবর্ণ এবং ৩৩টি ব্যাঞ্জনবর্ণ। হিন্দি ভাষার উৎপত্তি দেবনাগরী থেকে। সংস্কৃতের প্রচুর প্রভাব আছে এই ভাষায়। 

হাঙ্গেরিয়ান ৪৪

লাতিন বর্ণমালা থেকেই হাঙ্গেরিয়ান বর্ণমালার উৎপত্তি। রোমান বর্ণমালার এ থেকে জেড ছাড়াও এই বর্ণমালায় আরো বেশ কিছু অক্ষর দেখতে পাওয়া যায়। 

অবখাজ ৪১

জর্জিয়ার কোনো কোনো অংশে এই ভাষায় কথা বলা হয়। অবখাজ ভাষায় ৪১টি অক্ষর। ১৮৮০ সালে এই ভাষার বর্ণমালা তৈরি করা হয়। 

আর্মেনিয়ান ৩৯

আর্মেনিয়ার প্রধান ভাষা আর্মেনিয়ান। তাদের বর্ণমালায় মোট অক্ষরের সংখ্যা ৩৬। তবে কালে কালে সেই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৯৷

রুশ ৩৩

আধুনিক রুশ বর্ণমালায় ৩৩টি অক্ষর। রুশ ভাষায় সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত অক্ষর ঔ, এ, আ এবং ন। রুশ ভাষার সাহিত্য সারা পৃথিবীতেই এক সময় অত্যন্ত জনপ্রিয় ছিল। 

আজারবাইজানি ৩২

আজারবাইজানে বলা হয় আজারবাইজানি ভাষা। এই ভাষার অক্ষরবিন্যাসও তৈরি হয়েছে লাতিন বর্ণমালার উপর ভিত্তি করে। তবে লাতিনের চেয়ে কিছু আলাদা অক্ষরও তাদের বর্ণমালায় ব্যবহার করা হয়। 

ইংরেজি ২৬

ইংরেজিতে মোট ২৬টি অক্ষর আছে, যার মধ্যে ৫টি ভাওয়েল এবং ২১টি কনসোনেন্ট। সারা পৃথিবীতেই ইংরেজি ভাষার ব্যাপক ব্যবহার। মূলত রোমান স্ক্রিপ্ট থেকেই তৈরি হয়েছে ইংরেজির বর্ণমালা। 

গ্রিক ২৪

গ্রিক বর্ণমালায় মোট ২৪টি অক্ষর, যার প্রথম অক্ষর আলফা৷ আর শেষ হয় ওমেগা দিয়ে। বিজ্ঞান এবং গণিতের বহু ক্ষেত্রে এখনো গ্রিক অক্ষর ব্যবহার করা হয় সারা পৃথিবীতেই। 

হিব্রু ২২

আরবি, ফারসি কিংবা উর্দুর মতো হিব্রু ভাষাও  ডান দিক থেকে বাঁ দিকে লেখা হয়। এই ভাষার বর্ণমালায় মোট ২২টি অক্ষর আছে। ইজরায়েলের রাষ্ট্রভাষা হিব্রু।এই ভাষার ইতিহাসও কয়েক হাজার বছর প্রাচীন। 

আরও পড়ুন: 

এমকে