• ঢাকা শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫

ফাগুনের আগুনে রাঙান নিজেকে

লাইফস্টাইল ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ১৪:০৯ | আপডেট : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ১৬:১৫
কোকিলের কুহু কুহু ধ্বনি, স্নিগ্ধ বাতাস সবকিছু মিলিয়ে প্রকৃতিতে বিরাজ করছে অন্যরকম আমেজ। এ যেনো বসন্তের আগমনী বার্তা। দিকে দিকে রঙিন ফুলের সমারোহ আর দখিনের বাতাসই বলে দিচ্ছে বসন্ত এখন দুয়ারে। বসন্তকে বরণ করে নিতে উৎসাহের কমতি নেই কারো। তাইতো বসন্তের সাজপোশাকেও থাকে ভিন্নতা।

আপনার পোশাক দেখেও যেনো মনে হয় প্রকৃতির সঙ্গে মিলে-মিশে বসন্তের বার্তা নিয়ে এসেছেন। পহেলা ফাল্গুনে আপনাকে যেনো দেখায় বসন্তের দূত। তাই সবাই চোখ বুজে বেছে নেয় বাসন্তী রঙের কাপড়টা, তা সুতি, তাঁত, সিল্ক, হাফ সিল্ক বা শিফন যা-ই হোক না কেনো রংটা বাসন্তীই চাই।

তাছাড়া ফাল্গুনের দিনে ঘরে-বাইরে সবখানেই উৎসবের আমেজ। আর তাই তো পোশাকের সঙ্গে সাজটাও হওয়া চাই মানানসই। তবে সাজটা হওয়া চাই হালকা ও পরিপাটি। ফাগুনের উৎসবের আমেজে ভালোবাসার মানুষটির পাশেও থাকা চাই। এজন্য নিজের সাজটিও হতে হবে আকর্ষণীয়। তাহলে জেনে নিন কেমন হতে পারে ফাগুনের সাজ।

ফাগুনের সাজের জন্য প্রথমেই আপনার দরকার বেইজ মেকআপ। বেইজ মেকআপ করতে হলে প্রথমত রোদের জন্য মুখে সানস্ক্রিন লোশন লাগিয়ে ৫-৮ মিনিট অপেক্ষা করুন। সানস্ক্রিন শুকিয়ে এলে বেইজ মেকআপ করতে হবে। দিনের বেলায় ফাউন্ডেশন ব্যবহার না করাটাই ভালো। তাই বেইজ মেকআপের জন্য বিবি ক্রিম বা টিন্টেড ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে পারেন। কন্সিলার ব্যবহার করে মুখের ছোটখাটো দাগগুলো ঢেকে দিতে পারেন। সবশেষে ফাইনাল ফিনিশিং দিতে লুজ পাউডার বা ফেস পাউডার বুলিয়ে নিন। যখন দেখবেন আপনার ত্বক শুষ্ক হয়ে গেছে বুঝবেন আপনার বেইজ মেকআপ তৈরি হয়েছে।

এরপর চোখের সাজের দিকে নজর দিতে হবে। চোখের সাজের জন্য প্রথমে একটুখানি আই প্রাইমার লাগিয়ে নিন। এর ফলে আপনার আই মেকআপ দীর্ঘক্ষণ স্থায়ী হবে। চোখের সাজের জন্য ব্যবহার করতে পারেন উজ্জ্বল রংগুলো, যেমন ব্রাউন, গোল্ডেন, কপার, সোনালি বাদামি, লালচে সোনালি ইত্যাদি রঙের আই শ্যাডো। এরপর চোখে মোটা করে কাজল লাগান। চোখে কাজল না দিলে বসন্তের সাজে অপূর্ণতা রয়ে যাবে। এরপর চোখের পাপড়িতে মাশকারা লাগান এক কোট।

বেইজ মেকআপ ও চোখের সাজের পর চুলটাকেও সাজিয়ে নিতে হবে মানানসই করে। আপনি যদি চুল খোলা রাখতে পছন্দ করেন তাহলে ব্লো ডাই, আয়রন বা স্পাইরাল রোল করে চুল ছেড়ে রাখতে পারেন। এছাড়া চুলের এক পাশে ক্লিপ দিয়ে তাজা ফুল গুঁজে দিতে পারেন। সামনে দুই পাশ থেকে চুল টুইস্ট করে টেনে পেছনে নিয়ে ক্লিপ দিয়ে আটকে নিতে পারেন। শাড়ি পরলে শাড়ির সঙ্গে চুলে খোঁপা বা বেণি করলেই বেশি ভালো লাগবে। গাঁদা বা বেলি ফুলের মালা দিয়ে জড়িয়ে নিতে পারেন আপনার বেণীটি। খোঁপা করলে এর একপাশে দিতে পারেন বড় একটি ফুল যেমন, জারবেরা বা গোলাপ ইত্যাদি। আবার ফুলের মালা দিয়েও জড়িয়ে নিতে পারেন খোঁপাটি।

পুরো সাজের সঙ্গে গয়না পরতে হবে মিলিয়ে। যেহেতু সাজ-পোশাক সম্পূর্ণই হালকা। তাই দেশীয় গহনাগুলো বেছে নেয়াটাই ভালো। সালোয়ার কামিজ, ফতুয়া, পাঞ্জাবির সঙ্গে মাটি, কাঠ কিংবা মেটালের দুল পড়ুন। গলায় কিছু না পরাটাই ভালো। হাতভর্তি চুড়ি পরতে পারেন। এ ক্ষেত্রে বেছে নিতে পারেন কাঠ, মাটি, মেটাল বা কাচের রেশমি চুড়ি। শাড়ি পরলে গলায় পরতে পারেন লম্বা পুঁতির মালা। হাতভর্তি কাচের রেশমি চুড়ি পরলে বসন্তের সাজের সঙ্গে বেশ মানিয়ে যাবে।

কপালে পরতে পারেন বড় একটি লাল টিপ বা কুমকুম দিয়ে ডিজাইন করে টিপ এঁকে নিতে পারেন। আপনার সাজে স্নিগ্ধতা আনতে বেছে নিতে পারেন হালকা রঙের লিপস্টিক। এরপর ঠোঁটে লিপগ্লস বুলিয়ে নিন এবং আপনার সাজে সজীবতা ধরে রাখতে ব্যবহার করুন হালকা সুগন্ধি।

আরকে/ডিএইচ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়