চল্লিশের পর ফিটনেস ধরে রাখতে যা করবেন

প্রকাশ | ০২ আগস্ট ২০১৮, ১১:২৮ | আপডেট: ০২ আগস্ট ২০১৮, ১১:৩৪

লাইফস্টাইল ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন

বয়স চল্লিশ ছুঁই ছুঁই বা পেরিয়ে যাচ্ছে। এ বয়সে ফিটনেস ঠিক রাখাটা একটু কঠিন। কারণ জীবনের এই পর্যায়ে হরমোনজনিত পরিবর্তনের কারণে ওজন কমানোটা দুরহ হয়ে উঠে। তারপরও মনের জোর থাকলে কোনও কিছুই সাধ্যের বাইরে থাকে না। ভারতীয় এক স্বাস্থ্যবিষয়ক অনলাইন পোর্টাল অবলম্বনে জেনে নিন কীভাবে ঠিক রাখবেন আপনার ফিটনেস।

প্রথমেই কথা বলুন ডাক্তারের সঙ্গে

রাতারাতি ওজন কমানোর চেষ্টা করলে শরীরে তার কোনও বিপরীত প্রতিক্রিয়া হতেও পারে। এ নিয়ে সবার আগে আপনার ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলে ব্যপারটা নিশ্চিত হয়ে নিন। ওজন কমার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে আপনার ক্রমশ সুস্থ হয়ে ওঠার কথা, তার বদলে যদি অন্য কোনও সমস্যা দেখা দেয় বা এনার্জি লেভেলে ঘাটতি আসে, তাহলে বুঝতে হবে কোথাও কোনও গণ্ডগোল হচ্ছে। এরকম পরিস্থিতিতে ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে ভুলবেন না।

ডায়েটিশিয়ানের পরামর্শ নিন

ইন্টারনেটের কল্যাণে ওজন কমানোর হাজার পদ্ধতির খোঁজ আমরা সবাই জানি। কিন্তু ঠিক কোনটা  শরীর আর স্বাস্থ্যের সঙ্গে খাপ খাবে সেটা নিশ্চিত হওয়ার জন্য খুব ভালো হবে যদি কোনও ডায়েটিশিয়ানের সঙ্গে পরামর্শ করে নিতে পারেন। দৈনন্দিন আপনার কত ক্যালরি খরচ হয়, প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় যেসব খাবার থাকতে পারে এ ব্যাপারে সাহায্য করতে পারবেন তিনি। 

--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন: ব্যায়ামের পর খেতে হবে যে পাঁচ পানীয়
--------------------------------------------------------

ধৈর্য ধরুন

২০ ও ৩০ বছরের কোঠা থেকে নিয়মিত হাঁটলে বা ফ্রিহ্যান্ড এক্সারসাইজ় করলেই ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে। কিন্তু ৪০ এর পর কিন্তু সেটুকুতে হবে না। এ বয়সে নানা ধরনের ব্যায়ামের পাশাপাশি সুষম খাদ্য এবং বিশ্রাম নিতে হবে নিয়ম করে। সঙ্গে সঙ্গে ফলাফল পাবেন না, ধৈর্য ধরে লেগে থাকতে হবে।

বিশ্বাস রাখুন প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে

রাতে ভালো ঘুম না হলে ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়াই ওষুধ খাওয়ার অভ্যাস থাকলে আজই বাদ দিন। এ বয়সে বাড়তি সাবধানতা অবলম্বন করা প্রয়োজন।

ডায়েটের দিকে খেয়াল রাখুন

দিনের বেলা অপরিমিত চা-কফি বা চিনিমিশ্রিত শরবত/ প্যাকেটজাত পানীয়/ কোমল পানীয় খাওয়া বন্ধ করতে হবে। তাজা শাকসবজি-ফলমূল খাওয়ার উপর জোর দিন। ময়দা, সাদা ভাতের বদলে লাল চালের ভাত, ভুষিসমেত আটা, ওটসের মতো কার্বোহাইড্রেট রাখুন প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায়। রান্নায় তেল-মশলার পরিমাণ কমান, ভাজাভুজি বা মিষ্টিও চলবে না। তবে ডায়েটিশিয়ান অনুমতি দিলে শুকনো ফল ও বাদাম খেতে পারেন।

আরও পড়ুন:

কেএইচ/এসআর