• ঢাকা শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭ আশ্বিন ১৪২৫

কেমন হবে বৃষ্টি দিনের শাড়ি

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২৪ জুলাই ২০১৭, ১৬:০৩
শাড়ি কমবেশি প্রায় সব নারীর কাছেই পছন্দের পোশাক। তবে এই বর্ষায় অনেকেই বৃষ্টিতে ভিজে অথবা কাপড় নষ্ট হবার ভয়ে শাড়ি এড়িয়ে চলেন। কিন্তু সেই শাড়িই যদি হয় বর্ষার আবহকে ঘিরে তাহলে তো কথাই নেই। নীলাভ আভা বা শুভ্র আবহে বর্ষার শাড়িকে আরো বেশি প্রাণবন্ত করে তোলে। তাই তো ফ্যাশন হাউসগুলো বর্ষার শাড়িতে প্রাধান্য পেয়েছে বিভিন্ন রঙ। প্রায় প্রতিটি ফ্যাশন হাউস বর্ষার শাড়িতে কখনো নীল রং, কখনো সাদা বা হালকা রং বেজ করে কারুকাজ করে থাকে।

তবে বৃষ্টির দিনে জর্জেট শাড়ি পরাই ভালো। বর্ষার সময়টাতে ক্রেতারা জর্জেট কাপড়ের শাড়িই বেশি কিনে থাকেন। কারণ, বৃষ্টিতে ভিজলে জর্জেট কাপড় তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যায় এবং কাপড়ে কোনো ধরনের দাগ থাকে না, যেটা অন্য শাড়িতেও থাকতে পারে। জর্জেটের শাড়িতে ছিটে দাগও পড়ে না। তাই বৃষ্টির দিনে এমন শাড়ির সুবিধা বেশি। আবার পরার আগে ইস্ত্রি করার ঝামেলাও নেই।

এরপর আসে সিল্ক বা হাফ সিল্ক। পিওর সিল্ক না হয়ে এই সময়ে সামু সিল্ক বা সার্টিন সিল্কের শাড়ি বেছে নিতে পারেন। অ্যান্ডি কটন শাড়িও সময়োপযোগী। এ ধরনের শাড়ি এমনিতেই পরিপাটি আর সামলানো সহজ। কাদা পানি লাগলেও ধোয়া সহজ।

বর্ষায় মণিপুরী তাঁতের শাড়িও পরা যেতে পারে। বর্ষার উপযোগী শাড়িতে ব্যবহার করা হয়ে থাকে তাঁতের ডিজাইনের সঙ্গে মণিপুরী মোটিভের পাড়। এই পোশাকগুলোতে ব্যবহার করা হয় মোটা সুতোর বুনন। এছাড়া শাড়ির ডিজাইনে রাতে ও দিনে ব্যবহার করার জন্য আলাদা রং ব্যবহার করা হয়েছে। রাতে লাল, কালো, নীল, মেজেন্টা, কমলা এবং দিনে গোলাপি, বেগুনি, আকাশি, অ্যাশ রঙের প্রাধান্য দেয়া হয়।

রঙের ক্ষেত্রে এ সময় শাড়ির জন্য বেছে নিতে পারেন উজ্জ্বল রঙগুলো। মেজেন্টা, বেগুনি, গাঢ় সবুজ বা কলাপাতা সবুজ, নীল, লাল, হলুদ রংগুলো দারুণ লাগবে। অন্যান্য রঙের ক্ষেত্রে বেছে নিতে পারেন ব্রাউন, নেভি ব্লু, রেড, মেরুন, অলিভ।

শাড়ির যত্ন

বর্ষার এই সময়টাতে দরকার শাড়ির উপযুক্ত যত্ন। বর্ষার এই মৌসুমে আকাশে কড়া রোদের খেলা চলে তখন অন্তত একঘণ্টা করে শখের শাড়ি শুকিয়ে নিন, আর্দ্র ভাব চলে যাবে। শাড়ির ভাঁজে ন্যাপথলিন, কালোজিরা বা নিমপাতা ইত্যাদি দিয়ে রাখতে পারেন এতে পোকায় কাটবে না।

কাঠের আলমারিতে শাড়ি রাখলেও তা মাঝে খেয়াল করতে হবে আলমারি ঘুণে ধরেছে কি-না। আবার স্টিলের আলমারিতে মরিচা লেগে শাড়ি নষ্ট হতে পারে। তাই আলমারিতে আর্দ্র ভাব লক্ষ্য করলে শুকনো কাপড় দিয়ে মুছে দিতে পারেন। আবার পরিহিত শাড়ি বাইরে থেকে এসে সঙ্গে সঙ্গে তুরে রাখা উচিত না।

কিছুক্ষণ বাতাসে রেখে ঘাম শুকিয়ে নিতে হবে।এর ফলে দাগ পড়বে না। না। এছাড়া সুতি শাড়ি ইস্ত্রি করে কিছুক্ষণ বাতাসে রেখে তারপর আলমারিতে তুলে রাখুন। অনেকদিনের জন্য রাখতে হলে মাড় না দেয়াই ভালো। মসলিন বা কাতান শাড়ির ক্ষেত্রে সাদা কাগজ ব্যবহার করতে হবে। এসব শাড়িতে ড্রাই ওয়াশ না করে পলিশ বা কাঁটা ওয়াশ করানোই ভালো। জর্জেট ও শিফন শাড়ি ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। ভালোভাবে শুকিয়ে গেলে শাড়িগুলোতে নিম পাতা বা কালোজিরা দিয়ে রাখতে পারেন।

আরকে/এসজে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়