বৃষ্টিভেজা দিনেও রান্নাঘর থাকুক সতেজ

প্রকাশ | ১১ মার্চ ২০১৭, ১৫:৫১ | আপডেট: ১১ মার্চ ২০১৭, ১৬:০৭

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক

বৃষ্টির দিনে বাড়ির প্রতিটি ঘরেই একটি স্যাঁতসেঁতে ভাব তৈরি হয়। রান্নাঘরও এ থেকে বাদ থাকে না। রান্নাঘর হচ্ছে বাসার প্রাণকেন্দ্র। বাসার সবার সুস্থ থাকার পেছনে রান্নাঘরই মূখ্য।

তাই রান্নাঘর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা খুবই জরুরি। রান্নাঘরের সঠিক স্বাস্থ্যবিধি, নিরাপদ খাদ্য প্রস্তুতি এবং পরিচ্ছন্নতার বিষয়টি আপনাকে সবার আগে জানতে হবে।

আপনার রান্নাঘরের স্বাস্থ্যবিধি কেমন হওয়া উচিত তা জেনে রাখতে হবে। কোথায় কোথায় জীবাণু থাকতে পারে সেটাও জানা থাকা দরকার।  

রান্নাঘর পরিষ্কার রাখার প্রয়োজনীয় কিছু টিপস রইল আপনাদের জন্য।

কাপড়ের টুকরো বা স্পঞ্জ : যদি রান্নাঘর পরিষ্কার করার কাপড়ের টুকরা বা স্পঞ্জ স্যাঁতসেঁতে হয়ে যায়, তাহলে তা থেকে দ্রুত ব্যাকটেরিয়া ছড়াতে থাকে। এই ধরনের কাপড়ের টুকরা বা স্পঞ্জ যখন রান্নাঘর পরিষ্কার করার কাজে ব্যবহার করবেন তখন তার মাধ্যমে ব্যাকটেরিয়া রান্নাঘরের অন্যান্য জায়গায়ও ছড়িয়ে পড়ে। এই ধরনের কাপড়ের টুকরা বা স্পঞ্জ পুনরায় ব্যবহারের ক্ষেত্রে উন্নতমানের অ্যান্টিসেপটিক লিকুইডে ভিজিয়ে নিতে হবে।

খাবার রাখার জায়গা : মাংস, পোলট্রি, সালাদ আইটেম, ফল এবং সবজি ইত্যাদি থেকে ব্যাকটেরিয়া ছড়িয়ে পড়তে পারে। কাঁচা এবং খাওয়ার জন্য তৈরি খাদ্য অবশ্যই আলাদা রাখতে হবে। আলাদা চপিং বোর্ড হলে আরো ভালো হয়। কাটাকাটির কাজ শেষ হয়ে গেলে সিঙ্ক এবং কাটিং, চপিং বোর্ডের উপরিভাগ পরিষ্কার করে ফেলতে হবে। সেই সঙ্গে আপনার হাতও পরিষ্কার করতে হবে।

সিঙ্ক : খাবার প্রস্তুত করার আগে ধোয়ার জন্য কাঁচা খাবার সিঙ্কে রাখা হয়। এর ফলে এখান থেকে ব্যাকটেরিয়া ছড়াতে পারে। তাই খাবার প্রস্তুতের পূর্বে অবশ্যই পরিষ্কার করে নিতে হবে। এছাড়া সিঙ্ক পরিষ্কার করার জন্য কাপড়ের টুকরা বা স্পঞ্জ থেকেও ব্যাকটেরিয়া ছড়াতে পারে।  তাই সিঙ্কের উপরভাগ এবং পার্শ্ববর্তী জায়গাগুলো জীবাণুমুক্ত রাখতে হবে।

আবর্জনার পাত্র : আবর্জনার পাত্র হচ্ছে জীবাণু ছড়ানোর আরেকটি অন্যতম মাধ্যম। আবর্জনার পাত্র ঢেকে রাখতে হবে এবং পোষা প্রাণী বা কীট যেন সেটি থেকে ময়লা ছড়াতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। আবর্জনার পাত্র খালি, পরিষ্কার এবং জীবাণুমুক্ত রাখতে হবে। পাশাপাশি এটির হাতা এবং ঢাকনাও নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবে।

হাত ধুতে ভুলবেন না : বাসায় জীবাণু ছড়াতে আপনার হাত কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। তাই যখন রান্নাঘরে কাজ করবেন আগে-পরে উন্নতমানের লিকুইড হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে হাত ধুতে হবে। খাওয়ার আগে-পরেও হাত ধুতে হবে। কোনোভাবেই ভুলে গেলে চলবে না।

আরকে/ এমকে