লিবিয়ার জাতীয় তেল করপোরেশনে বন্দুকধারীদের হামলা

প্রকাশ | ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৭:৩৫ | আপডেট: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৭:৫৭

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
ত্রিপোলির এনওসি ভবনে হামলার পর ধোঁয়া উড়তে দেখা যাচ্ছে

লিবিয়ার ত্রিপোলিতে জাতীয় তেল করপোরেশন (এনওসি)-র সদরদপ্তরে সশস্ত্র বন্দুকধারীরা হামলা চালিয়েছে। কর্মকর্তা ও প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে গণমাধ্যম জানিয়েছে, সেখান থেকে বিস্ফোরণ ও গুলির শব্দ শোনা গেছে। খবর আল-জাজিরার।

লিবিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুল সালাম আসোর বার্তা সংস্থা এপিকে জানিয়েছেন, সোমবার ছয়জন বন্দুকধারী ভবনটিতে হামলা চালিয়েছে এবং কয়েকজনকে জিম্মি করেছে।

আসোর বলেন, আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী ভবনের ভেতর প্রবেশ করবে এবং জিম্মিদের উদ্ধার করবে।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বন্দুকধারীরা ভেতর প্রবেশ করার পর কমপক্ষে একটি বড় ধরনের বিস্ফোরণে ভবনটি কেঁপে ওঠে। পরে ভবনে আগুন লেগে যায় এবং তা নিচের ফ্লোরগুলোতে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশিত একটি ছবিতে দেখা গেছে, দমকল বাহিনীর কর্মীরা ভবনের উপরের তলাগুলো থেকে মানুষজনকে বের করে আনার চেষ্টা করছেন। আরেকটি ছবিতে দেখা গেছে, আহত ব্যক্তিদের ঘটনাস্থল থেকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

এনওসি’র প্রধান মুস্তাফা সানাল্লাহ লিবিয়ার একটি চ্যানেলকে বলেছেন, বিস্ফোরণের পর ভবনের নিরাপত্তারক্ষী ও বন্দুকধারীদের মধ্যে গুলি বিনিময়ের ঘটনায় অনির্দিষ্ট সংখ্যক ব্যক্তি নিহত এবং আহত হয়েছেন।

সানাল্লাহ বলেন, অগ্নিকাণ্ডের কারণে ভবনটি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পুরো ভবনজুড়ে ধোঁয়া ছড়িয়ে পড়েছে।
------------------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : দক্ষিণ সুদানে বিমান বিধ্বস্ত, নিহত ১৯
------------------------------------------------------------------

তিনি বলেন, বন্দুকধারীরা বিস্ফোরণের পর ভবনের নিচতলাগুলোয় নির্বিচারে গুলি চালাতে থাকে। এটি একটি সহিংস হামলা।

ত্রিপোলির পুলিশ বাহিনী হিসেবে কাজ করা সশস্ত্র গ্রুপ আল-রেদার একজন মুখপাত্র আহমেদ বেন সালেম বলেছেন, নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা বন্দুকধারীদের খুঁজছে। কিন্তু তাদের মূল অগ্রাধিকার হচ্ছে ‘ভবনের ভেতর আটকে পড়া বেসামরিক ব্যক্তিদের উদ্ধার’ করা।

ভবনটির জানালা দিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়া এনওসি’র একজন স্টাফ বলেছেন, হামলায় বেশ কয়েকজন ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

এদিকে কোনও গ্রুপই এখন পর্যন্ত এই হামলার দায় স্বীকার করেনি।

আরও পড়ুন  :

এ/জেএইচ