• ঢাকা বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫

ত্রিপোলিতে সংঘর্ষ, কারাগার থেকে পালাল ৪০০ বন্দি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৮:৩৩ | আপডেট : ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৮:৪৮
লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলির কাছে একটি কারাগার থেকে অন্তত ৪০০ বন্দি পালিয়ে গেছে। পুলিশ জানিয়েছে, শহরে কয়েকটি সশস্ত্র গোষ্ঠীর মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের সুযোগে এসব বন্দি পালিয়ে যায়। ২ সেপ্টেম্বর রোববার এ ঘটনা ঘটে। খবর প্রেসটিভি, আল-জাজিরা।

পুলিশ জানায়, ত্রিপোলির নিকটবর্তী আইন জারা কারাগারের বন্দিরা জেলখানার দরজা ভেঙে দলবেঁধে বেরিয়ে যায়।  এসময় কারাগারের নিরাপত্তারক্ষীরা প্রাণভয়ে পলায়নরত বন্দিদের বাধা দেয়ার চেষ্টা করেননি।

আইন জারা কারাগারে আটক বন্দিদের বেশিরভাগ সাবেক লিবীয় নেতা মুয়াম্মার গাদ্দাফির অনুসারী বলে জানা গেছে। ২০১১ সালে গাদ্দাফি বিরোধী গণ-অভ্যুত্থানের সময় এসব ব্যক্তি বিক্ষোভ দমন করতে গিয়ে বহু মানুষকে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলোর মধ্যে সংঘর্ষের জের ধরে লিবিয়ার জাতিসংঘ-সমর্থিত সরকার নগরীতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করতে বাধ্য হয়েছে।

-------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : সোমালিয়ায় আত্মঘাতী বোমা হামলায় ২ শিশুসহ নিহত ৬
-------------------------------------------------------

উল্লেখ্য, ২০১১ সালের শেষদিকে গাদ্দাফি ক্ষমতাচ্যুত ও নিহত হওয়ার পর থেকে লিবিয়ায় সহিংসতা অব্যাহত রয়েছে। গাদ্দাফি সরকারের পতনের পর দেশটিতে বহু সশস্ত্র গোষ্ঠীর জন্ম হয় এবং এসব গোষ্ঠী এক একটি এলাকার নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করে। বর্তমানে জাতিসংঘ-সমর্থিত একটি সরকার রাজধানী ত্রিপোলির ক্ষমতায় থাকলেও লিবিয়ার বেশিরভাগ এলাকা সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলো নিয়ন্ত্রণ করছে।

এদিকে লিবিয়ার ক্ষমতা দখল করতে চাওয়া প্রতিদ্বন্দ্বী পক্ষগুলোর সংঘর্ষে সম্প্রতি গত কয়েকদিনে রাজধানী ত্রিপোলিতে অন্তত ৩৯ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে অন্তত ১৮ জন বেসামরিক নাগরিক রয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে প্রতিদ্বন্দ্বী পক্ষগুলোকে তাৎক্ষণিকভাবে প্রাণঘাতি সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানিয়ে যৌথ বিবৃতি দিয়েছে চারটি পশ্চিমা দেশ। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও ইতালির যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, লিবিয়ার আইনসঙ্গত কর্তৃপক্ষকে দুর্বল করার পদক্ষেপ ও চলমান রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় বিঘ্ন ঘটানোর চেষ্টা গ্রহণযোগ্য নয়।

আরও পড়ুন :

এপি/এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়