• ঢাকা শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫

মাদক উৎপাদনে ‘দ্বিতীয় কলম্বিয়া’ হয়ে উঠছে মিয়ানমার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ২৩ আগস্ট ২০১৮, ১০:৩৪ | আপডেট : ২৩ আগস্ট ২০১৮, ১১:২৬
মিয়ানমার থেকে আসা সাড়ে চার কোটি ডলার মূল্যের এক কোটি ৪০ লাখ ইয়াবা জব্দ করেছে থাইল্যান্ডের পুলিশ। বিপুল পরিমাণ এই ইয়াবা মালয়েশিয়া এবং এর পার্শবর্তী দেশগুলোতে পাচার করা হচ্ছিল বলে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের বরাত দিয়ে খবরটি প্রকাশ করেছে চ্যানেল নিউজ এশিয়া।

থাইল্যান্ড পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এত বিপুল পরিমাণ মাদক এর আগে কমই জব্দ করা হয়েছে এই অঞ্চলে।

মাদক জব্দের এই ঘটনাটি ঘটে শনিবার ব্যাংককের উত্তর অংশের আয়ুথ্থায়া প্রদেশে। তবে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ গণমাধ্যমকে ঘটনাটি জানায় মঙ্গলবার।

এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে তিনজন থাই মাদক পাচারকারীকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানায় পুলিশ। বিপুল পরিমাণ এ মাদক উত্তর পূর্ব মিয়ানমারের শান অঙ্গরাজ্য থেকে আসে বলে প্রতিবেদনে জানা যায়। এই অঙ্গরাজ্যটি মিয়ানমার সরকার বিদ্রোহী হিসেবে পরিচিত ওয়া মিলিশিয়া কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত। ওয়া মিলিশিয়া নিজেদের অঙ্গরাজ্যকে স্বাধীন দেশ বলে দাবি করে আসছে বহুদিন থেকে।

-------------------------------------------------------
আরও পড়ুন  : অং সান সু চির ফ্রিডম অব এডিনবার্গ পুরস্কার প্রত্যাহার
-------------------------------------------------------

থাই মাদক দমন ব্যুরো প্রধান কার্যালয়ে জব্দ হওয়া মাদকগুলো সংবাদমাধ্যমের সামনে প্রদর্শন করে। ইয়াবাগুলো একটি পুলিশের গাড়িতে বিশাল কনটেইনার ব্যাগে পরিষ্কার করে জড়ো করা ছিল।

মাদক দমন ব্যুরোর কমান্ডার ল্যাফটেনেন্ট জেনারেল সোমমাই কঙ্গভিসাইসাক গনমাধ্যমকে জানান, মাদকগুলো মালয়েশিয়াতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। তারপর সেখান থেকে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের বাজারে ছড়িয়ে দেয়া হতো।

তিনি বলেন, মাদকগুলো মালয়েশিয়া থেকে ইউরোপ, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, জাপান, সিঙ্গাপুর এবং কোরিয়ায় বিতরণ করা হতো।

মাদক জব্দের এই ঘটনাটি এই অঞ্চলের ইয়াবা জব্দের সর্বশেষ সবচেয়ে বড় ঘটনা। মেথাম্ফেটামাইন কিংবা ক্রেজি ড্রাগ বলে পরিচিত এই উদ্দীপক ও নিষিদ্ধ মাদক জব্দের ঘটনা ঘটছে সম্প্রতি মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়াতে।

জাতিসংঘের মাদক এবং অপরাধ দপ্তর (ইউএনওডিসি) গেলো মে মাসে এক প্রতিবেদনে সতর্ক করে দিয়েছিল এই বলে যে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় মেথাম্ফেটামাইন (ইয়াবা) এর উৎপাদন ও পাচারের ঘটনা ‘ভয়ানক মাত্রা’য় পৌঁছেছে।

দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় সবচেয়ে বেশি ইয়াবা উৎপাদন হয়ে থাকে মিয়ানমার সরকারের নিয়ন্ত্রণের বাইরে থাকা শান অঙ্গরাজ্য থেকে। ওয়া মিলিশিয়াদের নিয়ন্ত্রণাধীন সরকার বিদ্রোহী এই অঙ্গরাজ্যটি ইয়াবা ছাড়াও আফিম এবং হেরোইন উৎপাদন করে থাকে।

গেলো কয়েক বছরে মাদক সিন্ডিকেটগুলো ইয়াবার উৎপাদন বাড়িয়েছে আগের চেয়ে বহুগুণ।

বিশ্লেষকরা বলছেন, পাবলো এসকোবারসহ কলম্বিয়ার ড্রাগ লর্ডরা যেভাবে আমেরিকাসহ সারা বিশ্বে কোকেন ছড়িয়ে দিয়েছিল, মিয়ানমার বিশেষত এর শান অঙ্গরাজ্যের ড্রাগ সিন্ডিকেট সেভাবেই বাংলাদেশসহ দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া ও বিশ্বের নানা প্রান্তে ইয়াবা ছড়িয়ে দিচ্ছে। মিয়ানমার যেন মাদক উৎপাদন ও পাচারে ‘দ্বিতীয় কলম্বিয়া’ হয়ে উঠেছে।

কেএইচ/এমকে  

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়