• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫

নিষেধাজ্ঞার ছায়ার মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনা নয়: রুহানি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
|  ০৭ আগস্ট ২০১৮, ০৮:৫১ | আপডেট : ০৭ আগস্ট ২০১৮, ০৮:৫৭
ফাইল ছবি

ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেছেন, মাথার ওপর নিষেধাজ্ঞা ছায়া নিয়ে ‘অনাস্থাভাজন’ ট্রাম্প প্রশাসনের সঙ্গে কোনও আলোচনায় বসবে না তেহরান। আজ মঙ্গলবার ইরানের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম দফায় নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হওয়ার কয়েক ঘণ্টা আগে এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে এমন মন্তব্য করেন ইরানি প্রেসিডেন্ট। খবর আল-জাজিরার।

রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন ইসলামিক রিপাবলিক অব ইরান ব্রডকাস্টিং (আইআরআইবি)-তে পার্সিয়ান ভাষায় দেয়া ওই সাক্ষাৎকারে রুহানি বলেন, কেউ একজন আপনাকে ছুরিকাঘাত করার পর সেই ছুরি আপনার পিঠে থাকা অবস্থায়ই আপনি তার সঙ্গে কোনও আলোচনার আশা করতে পারেন না।

তিনি বলেন, ছয় জাতির পরমাণু চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্র সরে যাওয়ায় এটি প্রমাণিত হয়েছে যে সমঝোতার জন্য যুক্তরাষ্ট্র একটি অনির্ভরযোগ্য অংশীদার।

-------------------------------------------------------------------------------
আরও পড়ুন :  ইতালির বোলোনিয়া বিমানবন্দরের কাছে বিস্ফোরণ, নিহত ১
--------------------------------------------------------------------------------

ইরানি প্রেসিডেন্ট বলেন, যদি বিশ্বাসযোগ্যতা নিশ্চিত করা যায়, তাহলে এ ধরনের আলোচনা ইরান সব সময় স্বাগত জানাবে। কিন্তু নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকার মধ্যেই আলোচনার কোনও মানে হয় না।

গেল মাসের শেষদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানি নেতাদের সমালোচনা করে বলেছিলেন যে, তিনি কোনও পূর্বশর্ত ছাড়াই তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসতে চান। যদিও পরে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের বেঁধে দেয়া শর্ত পূরণ হলেই তেহরানের সঙ্গে আলোচনা হতে পারে।

আইআরআইবি’র সাক্ষাৎকারে রুহানি বলেন, ইরানের মানুষের মধ্যে ‘বিভাজন সৃষ্টির’ লক্ষ্যে এই আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছেন ট্রাম্প। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ট্রাম্প ইরানের জনগণের বিরুদ্ধে ‘মনস্তাত্ত্বিক লড়াই’ শুরুর চেষ্টা করছেন।

এর আগে সোমবার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প একটি নির্বাহী আদেশে সই করেন যার মাধ্যমে মঙ্গলবার থেকে তেহরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা কার্যকরের পথ সুগম হয়।

মার্কিন এই নিষেধাজ্ঞার ফলে ইরান যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাংক নোট কিনতে পারবে না। একইসঙ্গে স্বর্ণ ও বিভিন্ন মেটালের ব্যবসা করতে পারবে না। এছাড়া এই নিষেধাজ্ঞার ফলে সফটওয়্যার ও অটোমোটিভ সেক্টরেও ইরানের প্রবেশ সীমিত হয়ে পড়বে।

যুক্তরাষ্ট্র বলছে, ইরানের বিরুদ্ধে ‘সর্বোচ্চ অর্থনৈতিক চাপ’ দেয়াটাই এই অবরোধের লক্ষ্য। এর আগে এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউজ জানায়, ৭ আগস্ট থেকে ইরানের ওপর প্রথম দফায় নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল করা হবে। আর ইরানের তেল সেক্টরকে লক্ষ্য করে আগামী ৫ নভেম্বর দ্বিতীয় দফায় নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা হবে।

আরও পড়ুন :  

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়