• ঢাকা সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫

শিক্ষকদের হাতে অস্ত্র তুলে দেয়ার প্রস্তাব ট্রাম্পের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
|  ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১১:৪৪ | আপডেট : ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১১:৫৩
স্কুলে ম্যাস শুটিং ঠেকাতে শিক্ষকদের হাতে অস্ত্র তুলে দেয়ার প্রস্তাব করেছেন যুক্তরাষ্ট্র প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। খবর বিবিসির।

গতকাল বুধবার হোয়াইট হাউসের স্টেট ডাইনিং রুমে অনুষ্ঠেয় এক মিটিংয়ে একথাটি জানান। কিছুদিন আগে হয়ে যাওয়া শুটিংয়ের শিকার ফ্লোরিডার মার্জারি স্টোনম্যান ডগলাস হাই স্কুলের ৪০ জন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ প্রস্তাবটি করেন বলে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়। একঘন্টাব্যাপী চলা এ মিটিংয়ে খুবই আবেগঘন পরিবেশ বিদ্যমান ছিল বলে জানা যায়।

ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, শিক্ষকদের হাতে বন্দুক থাকলে খুব দ্রুতই তারা যে কোনো হামলা ঠেকিয়ে দিতে পারবেন। একজন শিক্ষকের কাছে যদি লুকানো একটি অস্ত্র থাকে, তাকে যদি প্রশিক্ষণ দেয়া হয়, তাহলে এইরকম পরিস্থিতি মোকাবেলা করা সহজ হবে। 

তিনি এ শুটিংয়ের ঘটনাটি ভুলে যেতে দেবেন না বলেও জানিয়েছেন। 

অস্ত্রের ক্রেতাদের ব্যাকগ্রাউন্ড আরও ভালোভাবে খতিয়ে দেখার যে দাবি উঠেছে, তার প্রতিও সমর্থন জানিয়েছেন ট্রাম্প। রিপাবলিকান এই প্রেসিডেন্ট জানান, আমরা খুব কঠোরভাবে ব্যাকগ্রাউন্ড পরীক্ষা করে দেখব। সেই সঙ্গে মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর অনেক বেশি গুরুত্ব দেব।

ফ্লোরিডার একটি হাই স্কুলে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি গুলির ঘটনা ঘটে। ছুটির আগে আগে ১৯ বছর বয়সী এক তরুণ একটি অ্যাসল্ট রাইফেল নিয়ে স্কুলে ঢুকে এলোপাতাড়ি গুলি চালায়। নিহত ১৭ জনের মধ্যে ১৪ জনই ছিল বিভিন্ন বয়সের শিক্ষার্থী।

ফ্লোরিডার এক স্কুলে গুলির ঘটনায় ১৭ জন নিহত হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রে যখন অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের দাবি আরও জোরালো হয়ে উঠেছে, তখনই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের এমন প্রস্তাব এলো।

আর্মড ক্যাম্পাসেস নামক একটি ওয়েবসাইট জানায়, এই ঘটনার প্রেক্ষিতে এরমধ্যেই যুক্তরাষ্ট্রের ডজনখানেক অংগরাজ্যের স্কুল-কলেজ সীমানায় অস্ত্র বহন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু ফ্লোরিডাতে এই বিষয়টি এখনো নিষিদ্ধ করা হয়নি।

যদিও ট্রাম্পের এই প্রস্তাব নাকচ করে দিয়েছেন ২০১২ সালে কানেকটিকাটের স্যান্ডি হুক এলিমেন্টারি স্কুলের ম্যাস শুটিংয়ে নিহত এক ছাত্রীর পিতা মার্ক বার্ডেন। তিনি বলেন, শিক্ষকদের হাতে অস্ত্র দেয়া কোনও সমাধানের মধ্যে পড়ে না। তাদের ঝুলিতে এরমধ্যেই অনেক দায়িত্ব আছে এই জীবনঘাতী কাজ করার চেয়ে।

আরও পড়ুন: 

কেইচ/জেএইচ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়