• ঢাকা শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫

ব্যাগের মধ্যে জীবন যে নারীর!

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক
|  ০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০৯:০৯ | আপডেট : ০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০৯:৪৪
রূপকথার গল্পে শোনা যায়, কোনো এক দৈত্যের জীবন অন্য কোনো কিছুর মধ্যে আছে। কিন্তু বাস্তবে এমন কোনো মানুষ থাকতে পারেন যার জীবন অন্য কোনো কিছুর মধ্যে আছে? এই প্রশ্নের উত্তর হয়তো ভালো দিতে পারবেন ব্রিটেনের বাসিন্দা সেলওয়া হুসেইন। কারণ তার জীবন আটকে আছে একটি ব্যাগের মধ্যে।

আসলে ঘটনা হচ্ছে সেলওয়ার শরীরে সত্যিকারের কোনো হৃদপিণ্ড নেই। বরং সেটি সবসময় থাকে তার সঙ্গের ব্যাগে। শুনতে অবিশ্বাস্য লাগলেও এটাই সত্যি।

সেলওয়াই হচ্ছেন যুক্তরাজ্যের প্রথম নারী যার শরীরের বাইরে একটি কৃত্রিম হৃদপিণ্ড লাগানো হয়েছে।

হৃদপিণ্ডের সমস্যায় আক্রান্ত হওয়ার পর ব্রিটেনের চিকিৎসকরা তার শরীরে এটি লাগিয়ে দিয়েছেন।

যতদিন তিনি একজন হৃদপিণ্ডের ডোনার না পাচ্ছেন, ততদিন তাকে এটি বয়ে বেড়াতে হবে।

সেলওয়া হুসেইন বলেন, একদিন সকালে বুকে ভয়াবহ ব্যথা শুরু হয়। সেইসঙ্গে শ্বাসকষ্ট। আমি বুঝতে পারছিলাম মারাত্মক কিছু একটা হয়েছে।

তিনি বলেন, দ্রুত হাসপাতালের যাওয়ার পর চিকিৎসকরা জানালেন, আমার হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপন করতে হবে। কিন্তু আমি খুবই অসুস্থ ছিলাম। তাই তারা বাধ্য হয়ে আমাকে একটি কৃত্রিম হৃদপিণ্ড সংযোজন করে দেয়।

এই বহনযোগ্য যন্ত্রটি তার শরীরের রক্ত সরবরাহ ঠিক রাখে। নানা টিউবের মধ্য দিয়ে শরীরের রক্ত এই কৃত্রিম হৃদপিণ্ড এসে পরিশোধিত হয়ে আবার টিউবের মাধ্যমে শরীরে চলে যায়। সেলওয়ার শরীরের ভেতরেও এরকম প্লাস্টিকের কৃত্রিম হৃদপিণ্ড রয়েছে, যেগুলো সত্যিকারের হৃদপিণ্ডের মতোই রক্ত পাম্প করে শরীরের নানা অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে পাঠিয়ে দেয়।

সেলওয়ার মতো যুক্তরাজ্যে কয়েকশ রোগী আছেন যারা হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপনের জন্য অপেক্ষা করছেন। কিন্তু তাদের সবাই সময়মতো ডোনার পাননা।

গেলো দুই বছর এরকম অপেক্ষার তালিকায় থাকা ৪০ জন রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

তবে কৃত্রিম হৃদপিণ্ড স্থাপনের পর সেলওয়ার চিন্তাভাবনায় ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে।

সেলওয়া বলেন, মৃত্যুশয্যায় শুয়ে অনেক কিছুই আমি উপলব্ধি করতে পেরেছি। তার একটি হলো যেসব বিষয় নিয়ে আমরা চিন্তা করি, এই যেমন বয়লার সমস্যা, গাড়ির সমস্যা বা মানুষের সমস্যা, এগুলো আসলে কিছুই না। আমি এখন জীবনকে আরও ভালোভাবে উপলব্ধি করতে শিখেছি।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়