close
বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০১৮

কেন ব্রিটেন সফর বাতিল করলেন ট্রাম্প?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
|  ১২ জানুয়ারি ২০১৮, ২২:২১ | আপডেট : ১২ জানুয়ারি ২০১৮, ২২:৩৮
আগামী ফেব্রুয়ারিতে ব্রিটেন সফরে যাওয়ার কথা ছিল যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের। লন্ডনে নতুন মার্কিন দূতাবাস উদ্বোধনের জন্য ওই সফর করার কথা ছিল মার্কিন প্রেসিডেন্টের। তবে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তার এই সফর বাতিল করেছেন। খবর বিবিসির।

বিশ্লেষকরা বলছেন, বিক্ষোভের মুখে পড়তে পারেন এমন আশঙ্কা থেকেই মূলত এই সফর বাতিল করেছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। এছাড়া এটিকে পূর্ণাঙ্গ রাষ্ট্রীয় সফরের মর্যাদা দেয়া হবে না বলেও তিনি সফরটি বাতিল করে থাকতে পারেন।

যদিও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এক টুইট বার্তায় দাবি করেছেন, লন্ডনে মার্কিন দূতাবাস যেভাবে নতুন জায়গায় সরিয়ে নেয়া হয়েছে সেটি তার পছন্দ হয়নি। আর তাই তিনি লন্ডন সফরে যাচ্ছেন না।

তিনি বলেন, লন্ডনের সবচেয়ে দামি একটি এলাকা থেকে ভক্সহলে যেখানে মার্কিন দূতাবাস নেয়া হয়েছে, সেখানে গিয়ে ফিতা কেটে এটি উদ্বোধন করার প্রশ্নই ওঠে না।

লন্ডনের ট্রাফালগার স্কয়ারের অদূরে অভিজাত মেফেয়ার এলাকায় মার্কিন দূতাবাস অবস্থিত ছিল। তবে সেটি এখন দক্ষিণ লন্ডনে টেমস নদীর ধারে নতুন এক ভবনে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। ওই ভবনটি নির্মাণে খরচ হয়েছে প্রায় একশ কোটি ডলার।

এসময় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তার পূর্বসূরি বারাক ওবামার সমালোচনা করে বলেন, দূতাবাস সরিয়ে নেয়ার এই পরিকল্পনাটি ছিল খুবই বাজে। যদিও এই দূতাবাস সরানোর সিদ্ধান্ত হয়েছিল প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের আমলে।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের পরিবর্তে এখন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন নতুন মার্কিন দূতাবাস উদ্বোধন করতে আসবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

তবে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যে দাবিই করুক না কেন সফর বাতিলের পেছনে অন্য কিছু খুঁজে পাচ্ছেন বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, লন্ডনে এলে ব্যাপক বিক্ষোভের মুখে পড়তে পারেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আর এই ভয়েই সফর বাতিল করেছেন তিনি।

এর আগে ব্রিটেনের পক্ষ থেকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে রাষ্ট্রীয় সফরের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। কিন্তু এরপর থেকেই এর তীব্র সমালোচনা হচ্ছিল। বামপন্থী দলগুলো ব্যাপক বিক্ষোভ করে লন্ডন অচল করে দেয়ার ঘোষণা দেয়। লন্ডনের মেয়র সাদিক খান এমনকি ক্ষমতাসীন দলের এমপিরাও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের রাষ্ট্রীয় সফরের ব্যাপারে অস্বস্তির কথা জানান।

এদিকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সফর প্রত্যাহারের দাবিতে অনলাইনে একটি দরখাস্তে এ পর্যন্ত ১৮ লাখ মানুষ সই করেছেন। এই বিষয়টি নিয়ে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে পর্যন্ত আলোচনা হয়েছে।

এ/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়