• ঢাকা সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫

বর্ণিল আলোয় বরণ নতুন বছর

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক
|  ০১ জানুয়ারি ২০১৮, ০৯:১৩ | আপডেট : ০১ জানুয়ারি ২০১৮, ১১:৩৫
প্রশান্ত মহাসাগরের ছোট দেশ টোংগো দিয়ে শুরু ২০১৮ সালকে বরণ করে নেয়া। এরপর একে একে সারা বিশ্ব বরণ করে নেয় ইংরেজি নতুন বর্ষকে। ঝড়, তুষারপাতে বিপর্যস্ত ইউরোপ ও আমেরিকার বিভিন্ন দেশ তারপরও বর্ষবরণে কোনো কমতি ছিল না।

ঘূর্ণিঝড় ডিলানের প্রচণ্ড বাতাস ও ভারি বৃষ্টির মধ্যেই নতুন বছরকে আগমন জানায় যুক্তরাজ্য। আয়ারল্যান্ড, ওয়েলসসহ যুক্তরাজ্যের বড় অংশ এখন ঘূর্ণিঝড়ে বিপর্যস্ত। তবু মধ্যরাতের লন্ডন শহর হয়ে ওঠে উৎসবপ্রিয় মানুষের বিনোদনকেন্দ্র।

একইভাবে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কবাসীরা পালন করছে তীব্র ঠাণ্ডা ও শীতে মোড়ানো নতুন বছরের শুরুর মুহূর্ত। একে অপরকে জড়িয়ে ধরে ও হাতে হাত রেখে উষ্ণতা ছড়িয়ে টাইম স্কয়ারে জড়ো হয়েছে উদযাপনকারীরা। তবে মাইনাস ১১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার মধ্যেও থেমে ছিল না নববর্ষকে বরণ করে নেয়ার হৈ হুল্লোড়।

যদিও অতিরিক্ত ঠাণ্ডার কারণে সেখানে অ্যালকোহল থেকে দূরে থাকতে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। অতিরিক্ত অ্যালকোহল গ্রহণ শরীরের তাপমাত্রার ভারসাম্য নষ্ট করে দিয়ে মৃত্যু ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে তাই এমন সতর্কতা।

লন্ডনের এক ঘণ্টা পরে অস্ট্রেলিয়ার মানুষ নতুন বছরে পা দেয়। প্রতি বছরের মতোই সিডনির বিখ্যাত অপেরা হাউজ হয়ে ওঠে আলোর ফোয়ারা। এখানকার মনোমুগ্ধকর আলো উৎসব দেখতে জড়ো হয় প্রায় ১৬ লাখ মানুষ।

লন্ডনের এক ঘণ্টা আগেই উৎসবে মাতে নিউজিল্যান্ড। নাচে আর গানে ২০১৮ সালকে বরণ করে নেয় তারা। 

এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে চীনে ঐতিহ্যবাহী আতশবাজি প্রদর্শনের মাধ্যমে বেইজিং আলোকিত হয়ে ওঠে। কয়েক হাজার বছর পূর্বে তাং সাম্রাজ্যের প্রচলন করা এই আতশবাজি উৎসব উপভোগ করতে রাস্তায় নেমে আসে হাজার হাজার লোক। আলো ছড়ায় হংকংও। ঘড়ির কাঁটা বারোটা ছুঁতেই আনন্দ-উন্মাদনায় ভেসে যায় হংকংবাসী।

এদিকে তুষারপাত দিয়ে নতুন বছরকে বরণ করে নেয় টোকিও। যুক্তরাষ্ট্রের ৩ ঘণ্টা পর এখানে ঘড়ির কাঁটা বারোটা ছোঁয়। টোকিও পার্ক থেকে উড়ানো হয় রংবেরঙের হাজারো বেলুন। আর ইয়োকোহামার সাগর পাড়ে চলে আতশবাজির প্রদর্শনী।

ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, বাংলাদেশে কাছাকাছি সময়ে নতুন বছর উদযাপন শুরু হয়। ভারতে বিপুল সংখ্যক মানুষ নেচে গেয়ে স্বাগত জানায় নতুন বছরকে। আর বাংলাদেশ ও পাকিস্তানে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে পালিত হচ্ছে নতুন বছরের উদযাপন।

অন্যদিকে সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়াতেও কাছাকাছি সময়ে নববর্ষ উদযাপন করে মানুষ। তবে আতশবাজি নিষিদ্ধ করা হয় থাইল্যান্ডে। পর্যটক প্রিয় কেন্দ্র হওয়ার এখানে বহু ভ্রমণপিপাসুদের দেখা মেলে।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়