• ঢাকা শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭ আশ্বিন ১৪২৫

আইএস বিশ্বের জন্য এখনো বিপজ্জনক

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক
|  ১৯ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৬:৪৮
চলতি বছর ইরাকে ইসলামিক স্টেটকে (আইএস) ব্যাপকভাবে ধ্বংস করা হয়েছে। ইরাক ও সিরিয়ায় তাদের স্বঘোষিত খিলাফতের পুরোটাই হাতছাড়া হয়ে গেছে। তা সত্ত্বেও বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে বলেছেন, আইএস এখনো বিশ্বের জন্যে হুমকি ও বিপজ্জনক।

২০১৭ সাল শুরু হয় নির্বিচার হত্যার মধ্য দিয়ে। বছর শুরুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে তুরস্কের ইস্তাম্বুলের একটি নৈশক্লাবে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে নির্বিচারে গুলি চালিয়ে ৩৯ জনকে হত্যা করে এক উজবেক। হামলাকারী নিজেকে ‘খিলাফতের সৈনিক’ হিসেবে পরিচয় দেয়।

সরাসরি অস্ত্রে সজ্জিত করে বা অনলাইন প্রোপাগান্ডা চালিয়ে আইএস বছরের প্রথম ছয় মাসে পাকিস্তান, ইরাক, সিরিয়া, আফগানিস্তান, মিশর, সোমালিয়া ও যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে হামলা চালাতে জঙ্গিদের উদ্বুদ্ধ করে। এসব হামলায় বিপুল সংখ্যক লোক হতাহত হয়।

এই হামলাকারীদের একজন লিবীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক সালমান আবেদী। ২২ মে ম্যানচেস্টারে অ্যারিয়ানা গ্র্যান্ডের কনসার্ট চলাকালে আবেদীর বোমা হামলায় বেশকিছু শিশুসহ ২২ জন প্রাণ হারায়।

আইএসের মতাদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে জঙ্গিরা লন্ডন, স্টকহোম, নিউইয়র্ক ও বার্সেলোনায় গাড়িচাপা দিয়ে মানুষ হত্যা করেছে। ভিড়ের মধ্যে গাড়ি চালিয়ে এই সব হত্যাকাণ্ড চালানো হয়েছে। এ ধরনের হামলা ঠেকানো খুবই কঠিন হয়ে পড়েছে।

২০১৬ সালের দ্বিতীয়ার্ধে ইরাক ও সিরিয়ায় জঙ্গি সংগঠনটির বিরুদ্ধে সমন্বিত অভিযান শুরু হয়। এতে আইএস অনেকাংশে দুর্বল হয়ে পড়ে। কিন্তু তা সত্ত্বেও আইএস সমর্থিত জিহাদিরা বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে হামলা চালিয়ে মানুষ হত্যা অব্যাহত রাখে।

আইএস বিদেশে নেটওয়ার্ক পরিচালনা, সদস্য সংগ্রহ, অর্থ যোগান ও তাদের অভিযানগুলোর মধ্যে সমন্বয় সাধনের জন্য একটি ঘাঁটি স্থাপন করেছে।

কিন্তু দৃশ্যমানভাবে জঙ্গি সংগঠনটির এই নেটওয়ার্কের কোনো অস্তিত্ব না থাকায় হামলাগুলোর লাগাম টেনে ধরা যাচ্ছে না।

যদিও সম্প্রতি সিরিয়া ও ইরাককে আইএসমুক্ত করার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। কিন্তু ইউরোপ বা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এখনো আইএসের মতাদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে হামলার ঘটনা ঘটছে।

এ/এসআর

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়