হোয়াইট হাউজে ইঁদুর-তেলাপোকা-পিঁপড়ার উপদ্রব

প্রকাশ | ০২ ডিসেম্বর ২০১৭, ২৩:৫০ | আপডেট: ০৩ ডিসেম্বর ২০১৭, ০০:০৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

হোয়াইট হাউজে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কর্মকর্তারা রক্ষণাবেক্ষণ কর্মীদের কাছে কয়েক ডজন সমস্যার কথা জানিয়েছিলেন যার মধ্যে ছিল ইঁদুর-তেলাপোকা-পিঁপড়ার উপদ্রব আর সেই সঙ্গে টয়লেটের ভেতর ভাঙ্গা কমোড।

এক প্রতিবেদনে বিবিসি জানায়, আমেরিকার প্রেসিডেন্টের দাপ্তরিক বাসভবনে রক্ষণাবেক্ষণ কাজের আদেশের একটি তালিকা সংগ্রহ করেছে এনবিসি ওয়াশিংটন। এর মধ্যে বারাক ওবামার প্রশাসনের শেষ বছরের কার্যাদেশও রয়েছে। সেই তালিকা থেকেই এসব তথ্য জানা গেছে।

এর আগে হোয়াইট হাউজে নৌবাহিনীর কর্মকর্তাদের মেসে খাবার সরবরাহ করা হয় সেখানোও ইঁদুর দেখা যায়। এছাড়া সিচুয়েশন রুমেও ইঁদুর দৌড়ানোর অভিযোগ রয়েছে।

গত দু বছরে এসব সমস্যার সমাধানের জন্য কয়েকশ’ অনুরোধ জানানো হয়েছিল।

ইউ এস জেনারেল সার্ভিসেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (জিএসএ) রক্ষণাবেক্ষণ কাজগুলোর তদারকি করে। এর সাবেক ইন্সপেক্টর জেনারেল ব্রায়ান মিলার এনবিসি ওয়াশিংটনকে বলেন, সেগুলোতো খুব পুরনো ভবন। এরকম পুরোনো বাড়ি যাদের আছে, তারা জানে যে এরকম বাড়িতে কী পরিমাণ কাজ থাকে।

এই কার্যাদেশ তালিকা দেখে বোঝা যাচ্ছে, ডাইনিং রুমে তেলাপোকা আর চিফ অব স্টাফ কোয়ার্টারগুলোতে পিঁপড়া খুব বড় সমস্যা। সাংবাদিকরা কাজ করেন যে প্রেস লবিতে, সেখানকার রান্নাঘরে তেলাপোকা আর পিঁপড়া, দুটিরই উপদ্রব।

চলতি বছরের শুরুতে ট্রাম্প প্রশাসনের কর্মকর্তারা যখন হোয়াইট হাউজে আসেন, তখন এসব উপদ্রব মোকাবেলার পাশাপাশি আরও অনেক মেরামত কাজের অনুরোধ জানানো হয়েছিল।

সাবেক প্রেস সেক্রেটারি শন স্পাইসার তার অফিসের আসবাবপত্র সরানোর জন্য আবেদন করেছিলেন।

অন্যদিকে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স তার ফায়ার প্লেসের সামনের বিখ্যাত ‘মার্থা ওয়াশিংটন চেয়ার’ এর পায়া মেরামত করার জন্য রক্ষণাবেক্ষণ কর্মী চেয়েছেন।

এছাড়াও ফার্স্ট লেডির তিন তলার ইস্ট উইং অফিসে সাজানোর জন্য নতুন পর্দা লাগানোর অনুরোধ করা হয়েছিল।

ইন্সপেক্টর জেনারেল মিলার বলেন, হোয়াইট হাউসের রক্ষণাবেক্ষণ করা সাঙ্ঘাতিক কাজ, এর একটা বড় কারণ স্থানটির ঐতিহাসিক গুরুত্ব।

ওয়াই/জেবি