• ঢাকা মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫

যে কারণে মেগানকে প্রিন্সেস ডাকা হবে না

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
|  ২৯ নভেম্বর ২০১৭, ১১:২৪
রাজপরিবারের সন্তানকে বিয়ে করেছেন মেগান মার্কেল। তারপরও তাকে 'প্রিন্সেস মেগান' হিসেবে ডাকা হবে না। কারণ ব্রিটিশ রাজপরিবারের নিয়ম অনুযায়ী, সাবেক এই হলিউড অভিনেত্রী রাজপরিবারের রক্তের সঙ্গে সম্পর্কিত নন। এর মানে তিনি নিজেকে প্রিন্সেস মেগান বলে পরিচয় দিতে পারবেন না। খবর বিবিসির।

প্রিন্স উইলিয়ামের স্ত্রী কেট মিডেলটনের মতোই তাকেও রাজপরিবারের জটিল নিয়মের বেড়াজালে পড়তে হচ্ছে। ২০১১ সালে ডায়নার বড় ছেলে উইলিয়ামের সঙ্গে কেটের বিয়ের পর তার নতুন উপাধি হয় প্রিন্সেস উইলিয়াম অব ওয়েলস। নিজেকে প্রিন্সেস কেট হিসেবে পরিচয় দেয়ার অধিকার নেই তার।

কেটের মতোই একইভাবে হ্যারিকে বিয়ে করে প্রিন্সেস হ্যারি অব ওয়েলস হিসেবেই পরিচিত হবেন মেগান। কারণ নিজ নামের সঙ্গে প্রিন্সেস যুক্ত হলেই তাকে ব্রিটিশ রাজপরিবারের রক্তের সম্পর্ক হিসেবে ধরে নেয়া হয়। কিন্তু তারা দুইজনই তা নন।

একইভাবে প্রিন্স উইলিয়াম ও হ্যারির মা ডায়নাও রাজপরিবারে প্রিন্সেস অধিকারী ছিলেন না। তিনি ব্রিটেনের বিখ্যাত স্পেন্সার পরিবারের সন্তান ছিলেন। বিশ্বজুড়ে নিজ গুণে তিনি প্রিন্সেস ডায়না হিসেবে পরিচিতি লাভ করলেও যুক্তরাজ্যে তাকে ডাকা হত প্রিন্সেস অব ওয়েলস হিসেবে। তিনি ছিলেন বর্তমান রাণী এলিজাবেথের সন্তান প্রিন্স চার্লসের প্রথম স্ত্রী। ১৯৯৭ সালের আগস্টে এক দুর্ঘটনায় তার মৃত্যু হয়।

তবে রাজপরিবারের এ নিয়মের ব্যতিক্রম হওয়ার ঘটনাও রয়েছে। যেমন রানি এলিজাবেথের স্বামী প্রিন্স ফিলিপ রাজপরিবারের রক্তবহন করেন না। তারপরও তাকে প্রিন্স ডাকা হয়।

১৯৫৭ সালে প্রিন্স ফিলিপ যখন প্রিন্সেস এলিজাবেথকে বিয়ে করেন তখন রাজা ষষ্ঠ জর্জ তাকে ‘ডিউক অব এডিনবার্গ’ উপাধি দেন। পরে রানি এলিজাবেথ তাকে প্রিন্স ফিলিপ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। তাই রানি এলিজাবেথ চাইলেই কেট এবং মেগানকে প্রিন্সেস হিসেবে স্বীকৃতি দিতে পারেন।

উল্লেখ্য, আগামী বসন্তে প্রিন্স হ্যারি তার বান্ধবী মেগানকে বিয়ে করছেন। এ মাসের শুরুতে এই জুটির বাগদান সম্পন্ন হয়। ২০১৬ সালে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক শুরু হয়।

এ/এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়