• ঢাকা বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫

মিশরে মসজিদে হামলার পেছনে কারা

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক
|  ২৫ নভেম্বর ২০১৭, ১৭:৪৬ | আপডেট : ২৫ নভেম্বর ২০১৭, ১৭:৫৫
মিশরের বিমান বাহিনীর জঙ্গি বিমান উত্তর সিনাইয়ে বোমা-হামলা চালিয়ে একদল সন্ত্রাসীকে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেছে আল জাজিরা সংবাদ মাধ্যম। গতকাল (শুক্রবার) সেখানকার একটি মসজিদে  সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পরই এই হামলা চালানো হয়েছে।    

সুফি আর রাওদা নামের ওই মসজিদে আইএস সন্ত্রাসীদের হামলায় অন্তত ২৫০ জন মুসল্লি নিহত ও একশ জনেরও বেশি আহত হন। ভয়াবহ ওই হামলার প্রেক্ষাপটে মিশরে তিন দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করা  হয়েছে।

সাধারণত মিশরের সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা ও ইসলামী সুফিবাদে বিশ্বাসী মুসলমানরা ওই মসজিদে নামাজ পড়তে যান বলে ওই মসজিদকে টার্গেট করা হয়েছে বলে কোনো কোনো সূত্র জানিয়েছে। মিশরের আল আজহারের প্রধান আহমাদ আল খাতিব এই হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।  

ইরাক ও সিরিয়ায় আইএসের সর্বশেষ ঘাঁটিগুলোর পতনের প্রেক্ষাপটে মিশরে এই সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর  হামলা বেশ তাৎপর্যপূর্ণ। এ থেকে বোঝা যাচ্ছে প্রকাশ্য ময়দানে আইএসের পরাজয় ঘটলেও তাদের সন্ত্রাসী তৎপরতার অবসান খুব সহজেই হচ্ছে না।

তবে বিশেষভাবে লক্ষণীয় ব্যাপার হল মিশরের প্রেসিডেন্ট আবদুল ফাত্তাহ আল সিসি মধ্যপ্রাচ্যে নতুন যে কোনো যুদ্ধের বিরোধিতা করেছিলেন। বিশেষ করে  সাম্প্রতিক সময়ে লেবাননের ওপর নতুন করে যুদ্ধ চাপিয়ে দেয়ার যে পাঁয়তারা সৌদি সরকার ও দখলদার ইসরাইল করছিল তাতে সহযোগী হতে রাজি হননি সিসি।

লেবাননের জনপ্রিয় ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহকে দুর্বল করার জন্য সৌদি সরকার ও ইসরাইল এই যুদ্ধ শুরু করতে চায়। কিন্তু সিসি তার বিরোধিতা করায় মিশরকে এই সন্ত্রাসী হামলার শিকার করা হয়েছে বলে অনেক বিশ্লেষক মনে করছেন। লেবাননের হিজবুল্লাহ এই সন্ত্রাসী হামলাকে আইএসের কাজ বলে তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। 

এমকে/ কে 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়