• ঢাকা বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫

ফিদেলই আমাদের সেরা নেতা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
|  ২৫ নভেম্বর ২০১৭, ১১:১৭ | আপডেট : ২৫ নভেম্বর ২০১৭, ১১:৩৭
কিউবায় শনিবার দেশটির প্রয়াত নেতা ফিদেল কাস্ত্রোর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উদযাপিত হচ্ছে। কিউবার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন জানিয়েছে, দেশটিতে সপ্তাহ জুড়ে ফিদেল কাস্ত্রোর মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হবে। খবর রয়টার্সের।

কিন্তু ফিদেল কাস্ত্রোর মৃত্যুর পর কিউবা জুড়ে যে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছিল সেটি এখনো বিরাজ করছে। কিউবানদের কথা সেটি স্পষ্টভাবেই উঠে এলো।

একজন স্কুল শিক্ষক আরিয়াদনা ভালদিভিয়া বলেন, আমাদের ভবিষ্যৎ কী সেটা আমরা নিজেরাও জানি না। ২০১৮ সালে প্রেসিডেন্ট রাউল কাস্ত্রোর মেয়াদ শেষ হবে। ফিদেলও এখন আর নেই। পরিস্থিতি উন্নতির কোনো রাস্তাই আমি দেখতে পাচ্ছি না।

তিনি আরো বলেন, কারো বেতন বাড়েনি। এদিকে জিনিসপত্রের দাম বেড়ে গেছে। উল্টো মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কিউবার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরো কঠোর করেছেন।

গেলো বছর ফিদেল মারা যাওয়ার পর দেশটিতে নয় দিনের জাতীয় শোক ঘোষণা করা হয়েছিল। পরে তার ভস্মকে দেশটির পূর্বাঞ্চলে নিয়ে যাওয়া হয় যেখান থেকেই কিউবা বিপ্লবের সূচনা হয়।

ওই সময় কিউবার লাখো জনতা ‘আমিই ফিদেল’ ধ্বনিতে মুখরিত করে তোলে রাজধানী হাভানা। তারা সেসময় কিউবা বিপ্লবের প্রতি বিশ্বস্ত থাকারও অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

হাভানার একজন ট্যাক্সি চালক রেনে পেরেজ বলেন, আমাদের নেতা হিসেবে তিনিই ছিলেন সেরা।

তবে কিউবার মানুষ এখনো ফিদেল কাস্ত্রোর নেতৃত্বকে মিস করে। কেননা রাউল নেতা হিসেবে জনগণের খুব কাছে যেতে পারেননি। এর সবচেয়ে বড় উদাহরণ হচ্ছে গেলো সেপ্টেম্বরে দ্বীপ রাষ্ট্রটিতে হারিকেন ইরমা আঘাত করলেও রাউল জনসম্মুখে আসেননি।

ফিদেল কাস্ত্রোর ইচ্ছানুযায়ী তার কোনো স্ট্যাচু তৈরি করা হয়নি। এমনকি তিনি কোনো স্থানের নামও নিজের নামে করতে বারণ করেছেন। সান্তিয়াগো দে কিউবার সান্তা ইফিজেনিয়া সেমিটারিতে তার কবরে শুধু ‘ফিদেল’ লেখা রয়েছে।

এদিকে রোববার কিউবায়ে পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনী প্রক্রিয়া সাধারণ কিউবানদের অংশগ্রহণে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

এরপর প্রাদেশিক এবং জাতীয় অ্যাসেম্বলি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নতুন জাতীয় অ্যাসেম্বলি আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে রাউল কাস্ত্রোর উত্তরসূরি নির্বাচন করবে। তবে ধারণা করা হচ্ছে দেশটির ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট মিগুয়েল দিয়াজ-কানেল রাউলের স্থলাভিষিক্ত হবেন।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মধ্য দিয়ে দ্বীপ রাষ্ট্রটিতে কাস্ত্রো ভাইদের ৬০ বছরের শাসনামলের অবসান ঘটবে।

কিউবার জাতীয় লাইব্রেরির পরিচালক এদুয়োরদো টোরেস বলেন, প্রেসিডেন্ট হবার তালিকায় বেশ কয়েকজন রাজনীতিক রয়েছেন। কিন্তু কিউবা আরেকটা ফিদেল পাবে না। দেশটি এখন ফিদেলবিহীন নতুন যুগে প্রবেশ করছে।

টোরেস বলেন, রাউলের পর আরেকটি জেনারেল শুরু হবে। আর সেখান থেকে শুরু হবে আরেক ইতিহাসের।

২০১৬ সালের ২৫ নভেম্বর ৯০ বছর বয়সে মারা যান ফিদেল কাস্ত্রো। তিনি ফেব্রুয়ারি ১৯৫৯ থেকে ডিসেম্বর ১৯৭৬ পর্যন্ত কিউবার প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। এরপর ফেব্রুয়ারি ২০০৮ সালে স্বেচ্ছায় সরে যাওয়ার আগ পর্যন্ত কিউবার মন্ত্রী পরিষদের প্রেসিডেন্ট ছিলেন ফিদেল।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়