• ঢাকা বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫

ওয়াশিংটনের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার হুঁশিয়ারি ফিলিস্তিনের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
|  ১৯ নভেম্বর ২০১৭, ১১:২৩ | আপডেট : ১৯ নভেম্বর ২০১৭, ১৩:০২
ফিলিস্তিন লিবারেশন অর্গানাইজেশন (পিএলও) যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে। ওয়াশিংটনে পিএলও’র অফিস বন্ধ করে দেয়া হবে যুক্তরাষ্ট্রের এমন হুমকির প্রেক্ষিতে তারা এই ঘোষণা দেয়। খবর বিবিসির।

এক ভিডিও বার্তায় পিএলও মহাসচিব সায়েব এরেকাত ওয়াশিংটনের ওই পদক্ষেপকে ‘অগ্রহণযোগ্য’ হিসেবে অভিহিত করেছেন।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রে পিএলও আইনি নিয়ম ভাঙছে বলে অভিযোগ করেন মার্কিন কর্মকর্তারা।

মার্কিন আইনে বলা হয়েছে, ইসরায়েলের বিষয়ে তদন্ত করতে ফিলিস্তিন আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতকে (আইসিসি) চাপ দিতে পারবে না।

আন্তর্জাতিক মহলে পিএলও ফিলিস্তিনের প্রতিনিধি হিসেবে স্বীকৃত। ১৯৯৪ সালের পিএলও ওয়াশিংটনে একটি অফিস খোলে।

এই প্রথমবারের মতো মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্ট ষাণ্মাসিক লাইসেন্স পুনরায় ইস্যু করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।

স্টেট ডিপার্টমেন্টের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ‘ফিলিস্তিনি নেতাদের কিছু মন্তব্যের’কারণে এই পুনঃ নবায়নে অস্বীকৃতি জানানো হয়েছে।

স্টেট ডিপার্টমেন্টের ওই কর্মকর্তা আরো জানিয়েছেন, ওয়াশিংটনে পিএলও’র অফিস রাখা না রাখার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেনে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। পরবর্তী  ৯০ দিনের মধ্যে ফিলিস্তিন যদি ‘ইসরায়েলের সঙ্গে সরাসরি ও অর্থবহ আলোচনায়’ সম্পৃক্ত হয়েছে বলে মনে করেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প, তবে সেটি সিদ্ধান্ত গ্রহণে ভূমিকা রাখবে।

এর আগে গেলো সেপ্টেম্বরে ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস জাতিসংঘে জানায়, তারা ইসরায়েলের অবৈধ দখলদারিত্ব এবং ফিলিস্তিনি জনগণের ওপর নির্যাতনের বিষয়ে তদন্তে আইসিসিকে আহ্বান জানিয়েছেন।

এদিকে প্রেসিডেন্ট আব্বাস বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের এই পদক্ষেপে তিনি ‘গভীরভাবে অবাক’ হয়েছেন। এটিকে তিনি ‘যুক্তরাষ্ট্র-আরব সম্পর্কের জন্য বিপজ্জনক’ হিসেবেও অভিহিত করেছেন।

ফিলিস্তিন বলছে, তাদের বিশ্বাস ইসরায়েলি সরকার ট্রাম্প প্রশাসনের ওপর চাপ দিয়ে যাচ্ছে। তবে ইসরায়েল এ ধরনের অভিযোগ অস্বীকার করেছে। দেশটি বলছে, এ ধরনের সিদ্ধান্ত যুক্তরাষ্ট্রের আইনি ব্যাপার।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়