• ঢাকা মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫

দেশ আবিষ্কার করে নিজেই হলেন রাজা!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
|  ১৫ নভেম্বর ২০১৭, ২৩:৩৩
সম্প্রতি একটি দেশের রাজা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন এক পর্যটক। পেশায় সফটওয়ার ইঞ্জিনিয়ার সুযশ দীক্ষিত। ভারতের এ তরুণ বর্তমানে আমেরিকার সফটিনেটর নামের একটি তথ্য প্রযুক্তি কোম্পানির প্রধান নির্বাহী (সিইও)। গুগল, মাইক্রোসফট, জোমাটো’র মতো কোম্পানির সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে তার।

পৃথিবীর বিভিন্ন সুন্দর জায়গায় ঘুরে বেড়ানো সুযশের নেশা। আর পাঁচটা তরুণের মতই তিনি। তবে সম্প্রতি একটি ‘নো ম্যানস ল্যান্ডে’ নিজের রাজত্ব কায়েম করে বিশ্ব গণমাধ্যমের শিরোনাম হয়েছেন তিনি। ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন, রাজ্যের নাম 'কিংডম অব দিক্ষিত'।

ওই পোস্টে নিজের দেশের জাতীয় পতাকাও প্রকাশ করেছেন তিনি। শুধু তাই নয় জাতীয় প্রাণী হিসেবে টিকটিকির নামও ঘোষণা করেছেন তিনি। পাশাপাশি নিজের ভাইকে দেশের কার্যনির্বাহী প্রধানমন্ত্রী ও সামরিক প্রধান হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন। বাবাকে জন্মদিনের উপহার হিসেবে দেশটির সবচেয়ে সম্মানজনক পদ রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব তুলে দিয়েছেন।

আসল ঘটনা হচ্ছে, মিশর ভ্রমণে গিয়েছিলেন এই তরুণ, সেখান থেকে বির তওয়াইয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা নেন তিনি। মিশর ও সুদানের মধ্যের এ এলাকাটি কোনো দেশের আওতায় পড়ে না।

বহু অনুরোধের পর একটি গাড়ি ওই এলাকায় যেতে রাজি হয়। যেহেতু জায়গাটি কোনো দেশের মধ্যে পড়ে না, তাই নিরাপত্তা নিশ্চিত করার মতো কোনো ব্যবস্থাই সেখানে নেই। মিশরের সেনারা জানিয়েছিলেন, সেখানে গেলে সেনা আউটপোস্টের কোনো ছবি তোলা যাবে না। শর্ত ছিল একদিনের মধ্যে ফিরে আসতে হবে। নিয়ে যাওয়া যাবে না কোনো মূল্যবান সামগ্রী।

সব শর্ত মেনে নিজে ৬ ঘণ্টা গাড়ি চালিয়ে নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছান সুযশ। তারপর নিজেকে সেখানের রাজা ঘোষণা করেন। নিজ দেশের একটি পতাকা ও কিছু গাছের বীজ বপন করে রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করে আসেন। এখানের অনুর্বর, মরুভূমিতে উন্নত প্রযুক্তির সাহায্যে উৎপাদক এবং বাসযোগ্য অঞ্চলে পরিণত করবেন বলে দাবি এ পর্যটকের। পাশাপাশি বিষয়টিতে স্বীকৃতি পেতে জাতিসংঘের দ্বারস্থ হবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

‘কিং দীক্ষিত’ প্রথম ব্যক্তি নন এখানে রাজত্বের দাবিদার হিসেবে। এর আগে এক আমেরিকান নাগরিক নিজের মেয়েকে এই অঞ্চলের রাজকুমারী বানানোর লক্ষ্যে এখানে এসেছিলেন।

যদিও আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুসারে, কোন ব্যক্তি এরকম জায়গার অধিকার দাবি করতে পারে না। কোনো রাজ্য বা দেশই জায়গার দাবিদার হতে পারে। 

ওয়াই/ এএ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়