• ঢাকা মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫

এবার ফাঁস প্যারাডাইস পেপার্স, নাম আছে রানি-ট্রাম্প-ট্রুডোর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
|  ০৬ নভেম্বর ২০১৭, ১০:৪৫ | আপডেট : ০৬ নভেম্বর ২০১৭, ১৫:২৪
আলোচিত পানামা পেপার্স কেলেঙ্কারির পর এবার ফাঁস হলো আরেকটি আর্থিক কেলেঙ্কারির তথ্য। যেটিকে বলা হচ্ছে ‘প্যারাডাইস পেপার্স’। আর ফাঁস করা এসব নথিতে ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ থেকে শুরু করে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর নামও রয়েছে। খবর বিবিসির।

গেলো বছর পানাসা পেপার্স কেলেঙ্কারি ফাঁস করে বিশ্বজুড়ে হৈচৈ ফেলে দিয়েছিল জার্মান দৈনিক সুডয়েচে জেইতাং। এরই রেশ কাটতে না কাটতে এবার ফাঁস হলো এই প্যারাডাইস পেপার্স। এবারো তারাই বিশ্বের খ্যাতিমান রাজনীতিবিদ, তারকা, করপোরেট অঙ্গনের ক্ষমতাধর ও ব্যবসায়ী নেতাদের আর্থিক লেনদেন ফাঁস করেছে। এ ধরনের গোপন অ্যাকাউন্ট পরিচালনায় সহায়তা প্রদানকারী বারমুডাভিত্তিক সংস্থা অ্যাপলবাইয়ের কাছ থেকে এই নথিগুলো পেয়েছে বলে জানাচ্ছে জার্মান পত্রিকাটি।

বিবিসির খবরে বলা হচ্ছে মোট ১ কোটি ৩৪ লাখ নথি ফাঁস করা হয়েছে এই প্যারাডাইস পেপার্সের মাধ্যমে।

গোপন নথিতে দেখা গেছে, বিট্রেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের ব্যক্তিগত এক কোটি পাউন্ড গোপনে বিদেশে বিনিয়োগ করা হয়েছে। ওই অর্থ কেম্যান আইল্যান্ড এবং বারমুডায় বিনিয়োগ করেছে ডাচি অব ল্যানচেস্টার। ডাচি অব ল্যানচেস্টার রানির আয়ের একটি উৎস এবং এটি তার ৫০ কোটি পাউন্ডের প্রাইভেট এস্টেটের বিনিয়োগের বিষয়টি দেখভাল করে।

রানির এ ধরনের বিনিয়োগ করাটা অবৈধ কিছু নয়। অর্থাৎ তিনি কর ফাঁকি দিয়েছেন এ ধরনের কোনো তথ্য নেই। তবে প্রশ্ন উঠেছে রাজ পরিবার কি এ ধরনের কোনো গোপন বিনিয়োগ করতে পারেন?

এদিকে নথিতে দেখা গেছে রুশ সংস্থাকে তেল ও গ্যাস শিপিং করে এমন একটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে জড়িত মার্কিন বাণিজ্যমন্ত্রী উইলবার রস। ওই প্রতিষ্ঠানের অংশীদার রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের জামাতাসহ যুক্তরাষ্ট্রের চোখে অপরাধী দুই ব্যক্তি। এই উইলবারই নব্বই দশকে ট্রাম্পকে আর্থিক সহায়তা দিয়েছিলেন। শুধু উলবারই নন, ট্রাম্প প্রশাসনের প্রধান অর্থনৈতিক উপদেষ্টা গ্যারি কন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন এবং অর্থমন্ত্রী স্টিভেন মানচিনও অন্য দেশে বিনিয়োগের সঙ্গে জড়িত বলে জানা গেছে।

গোপন নথিতে দেখা যাচ্ছে, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর নির্বাচনে আর্থিকভাবে সহযোগিতা করা স্টেফান ব্রন্ফম্যান ও তার প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৬ কোটি ডলার বিনিয়োগ রয়েছে কেম্যান আইল্যান্ডে।

রুশ সরকার নিয়ন্ত্রিত প্রতিষ্ঠান ফেসবুক ও টুইটারে বিনিয়োগ করেছে বলেও প্যারাডাইস পেপারসে বেরিয়ে এসেছে।

বিনোদন দুনিয়ার তারকাদের মধ্যে ইউটু ব্যান্ডের গায়ক বোনো নিম্ন হারে কর দেয়ার সুবিধা পেতে মাল্টার একটি হোল্ডিং প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে লিথুয়ানিয়ায় এক বিপণি বিতানে বিনিয়োগ করেছেন।

মূলত কর থেকে বাঁচার জন্য গোপনে অন্য দেশে বিনিয়োগ করা ব্যক্তিদের আর্থিক কেলেঙ্কারি ফাঁস করা হয়েছে এই পানামা পেপার্স ও প্যারাডাইস পেপার্সের মাধ্যমে। কর দিতে হয় না বা খুবই অল্প হারে কর দেয়া যায় এমন দেশে গোপনে বিনিয়োগ করে আর্থিকভাবে লাভবান হওয়াটাই এসব ব্যক্তির উদ্দেশ্য।

প্যারাডাইস পেপার্স কেলেঙ্কারির গোপন নথিগুলো এখন খতিয়ে দেখছে ৬৭টি দেশের ১০০টি মিডিয়া গ্রুপ। এর মধ্যে আছে গার্ডিয়ান ও বিবিসির মতো আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম।

এ/এসএস

 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়