• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫

কথাটি সময়ই বলে দেবে: বুবলী

এ এইচ মুরাদ, আরটিভি অনলাইন
|  ২৯ আগস্ট ২০১৮, ১৭:১৯ | আপডেট : ২৯ আগস্ট ২০১৮, ১৯:০৮
ছবি সংগৃহীত
ঢাকাই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির হালের অন্যতম আলোচিত চিত্রনায়িকা শবনম বুবলী। এখন পর্যন্ত বুবলী অভিনীত মুক্তিপ্রাপ্ত বেশিরভাগ চলচ্চিত্র ব্যবসা সফল ও আলোচিত হয়েছে। ফলে বাণিজ্যিক ধারার ছবির নায়িকাদের মধ্যে খানিকটা এগিয়ে বুবলী। ক্যারিয়ারের শুরু থেকে সবগুলো ছবিতে বুবলী নায়ক হিসেবে পেয়েছেন শাকিব খানকে। দর্শক চাহিদার কথা বিবেচনা করে পরিচালক-প্রযোজকরা এই জুটিকে নিয়ে ধারাবাহিকভাবে কাজ করছেন। এরই ফলশ্রুতিতে এবারের ঈদেও শাকিব-বুবলী জুটির ‘ক্যাপ্টেন খান’ চলচ্চিত্রটি প্রায় ১৮০ টির মতো সিনেমা হলে প্রদর্শিত হচ্ছে। ছবিটি পরিচালনা করেছেন ওয়াজেদ আলী সুমন। ক্যাপ্টেন খান ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে আরটিভি অনলাইনের সঙ্গে কথা বলেছেন চিত্রনায়িকা শবনব বুবলী। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক এ এইচ মুরাদ।

আপনার অভিনীত ‘ক্যাপ্টেন খান’ ছবিটি ঈদে মুক্তি পেয়েছেকেমন সাড়া পাচ্ছেন?

‘ক্যাপ্টেন খান’ বড় আয়োজনের চলচ্চিত্র। ছবিতে একঝাঁক তারকা শিল্পী অভিনয় করেছেন। শাকিব খান তো রয়েছেনই। সেই সঙ্গে আরও আছেন জনপ্রিয় অভিনেতা মিশা সওদাগর, নায়ক সম্রাট, শিবা শানু, ডন ভাইসহ অনেকে। শিল্পীনির্ভর ছবি হওয়াতে দর্শকের দিক থেকে ভালো রেসপন্স পাচ্ছি।
-------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : ভক্তদের সঙ্গে আড্ডা দেবেন শাওন
-------------------------------------------------------

প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে ছবিটি কী দেখেছেন?

হ্যাঁ, দেখেছি। আপনি জানেন, গেল কয়েক বছর ধরেই আমার অভিনীত চলচ্চিত্র ঈদে মুক্তি পাচ্ছে। আমি বোরকা পরে নিজের অভিনীত ছবি দর্শকদের সঙ্গে বসে দেখি। এবারও সিনেমা হলে গিয়ে ছবি দেখেছি। সেক্ষেত্রে আমি যেটা করে থাকি সিনেপ্লেক্স না, একেবারে লোকাল হলগুলোতে নিজের অভিনীত সিনেমা দেখে থাকি। এবারের ঈদেও এর ব্যতিক্রম ঘটেনি। তবে ছবিটি দেখতে একটু দেরি হয়ে গেছে। কারণ এই ছবির গানের শুটিংয়ে ঈদের আগে দেশের বাইরে যেতে হয়েছিল। ফলে ঈদের জন্য নির্মিত টেলিভিশন অনুষ্ঠানগুলোতে যোগ দিতে পারেনি। ঈদের মধ্যে বাসায় সময় দিতে হয়েছে। সব কিছু সামলে নিয়ে ঈদের দিন ও পরে টেলিভিশন অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছি। গতকাল (২৮ আগস্ট) চম্পাকলি সিনেমা হলে ‘ক্যাপ্টেন খান’ দেখলাম। ছবিটি দেখার সময় দর্শকদের চিৎকার, শিস বাজানো, হাততালি ভীষণ উপভোগ করেছি। দর্শকের জন্যই অভিনয় করি। কেমন কাজ করলাম তার প্রকৃত বিচারক দর্শক। তাদের এই সাপোর্ট আমাকে আগামী দিনেও কাজ করার অনুপ্রেরণা যোগাচ্ছে।

শাকিব খানের সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?

শাকিব খানের সঙ্গেই আমার চলচ্চিত্রে অভিষেক হয়। তিনি প্রমাণিত একজন ভালো শিল্পী। অনেক বড় মাপের একজন নায়ক। আমার ক্ষেত্রে যেটা হয়েছে তার সঙ্গে পাল্লা দিয়েই অভিনয় করতে হয়েছে। যদিও এটা খুব কঠিন একটি কাজ। শুটিংয়ের সময় শাকিব খানের কাছে অনেক সহযোগিতা পেয়েছি। এমন হয়েছে কোনও ডায়লগ হয়তো বুঝতে পারছি না তখন তিনি সহযোগিতা করছেন। শুধু সহশিল্পী নয়, শুটিং ইউনিটের কোনও সমস্যা বা অন্য বিষয়গুলোতেও তিনি সবাইকে সহযোগিতা করেন। এক কথায় অসাধারণ একজন শিল্পী তিনি।  

সিনেমা হলে গিয়ে দর্শক হিসেবে শাকিব-বুবলীর রসায়নটা কেমন উপভোগ করলেন?

ভীষণ ভালো। তবে এক্ষেত্রে আমি নিজের কথা বলবো না, দর্শকের কথাই বলবো। আমাদের রোমান্টিক বা কিছু কমেডি দৃশ্যও ছিল। সবখানেই দর্শকের প্রচুর রেসপন্স পেয়েছি। আসলে এটা সামনা-সামনি না দেখলে বলে বোঝানোটা কঠিন। দর্শকের এই ভালোবাসার কথা আমি কোনোদিন ভুলবো না।

ঢালিউডের অনেক নায়িকাই যৌথ প্রযোজনা ও কলকাতার ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করছেআপনার কী এমন কোনও পরিকল্পনা আছে?

কয়েক মাস আগেই আমি এমন একটি কাজের অফার পেয়েছিলাম। সেটা টালিউডের ছবিই ছিল। কিন্তু তখন আমার অন্য একটি ছবি ‘সুপারহিরো’র শুটিং চলছিল। ফলে কাজটি আর করা হয়ে উঠেনি। সামনে যদি ভালো কোনও গল্প পাই তাহলে হয়তো কাজ করবো।

সেই ছবিতেও কী শাকিব খানই নায়ক থাকবেন?

(হাসি)... একটা জুটির কয়েকটি ছবি যখন হিট হয় তখন নির্মাতা-প্রযোজকরা কিন্তু তাদের নিয়েই চলচ্চিত্র করে থাকেন। আমার হয়তো অন্য নায়কের সঙ্গে কাজ করা হয়নি। তবে শাকিব খান তো সবার সঙ্গেই কাজ করেছেন। এদেশের বিদ্যা সিনহা মিম, ইয়ামিন হক ববি, নুসরাত ফারিয়ার সঙ্গে কাজ করেছেন। আরও নতুন নতুন অনেক নায়িকার সঙ্গেই কাজ করছেন। কলকাতায় শ্রাবন্তী, শুভশ্রী, নুসরাত জাহান, সায়ন্তিকা, পায়েল সরকারের সঙ্গে কাজ করেছেন। আমি সব সময়ই একটা কথাই বলেছি ভালো গল্প, নির্মাতা হলে আমি অন্য নায়কের সঙ্গেও কাজ করবো। হয়তো একই কথা বারবার হয়ে যাচ্ছে। ভাবছি এখন থেকে বলবো কথাটি সময়ই বলে দেবে (হাসি)।      

আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী?

শতভাগ হতেই হবে এমন কোনও পরিকল্পনা আমি করি না। তবে রাফ একটা পরিকল্পনা তো আছেই। আর সেটা হলো মানসম্মত কিছু চলচ্চিত্রে কাজ করতে চাই। সিনেমার প্রাণ হলো গল্প ও নির্মাতা। আমাদের দেশে অনেক গুণী নির্মাতা রয়েছেন। নতুনদের মধ্যেও অনেকে আসছেন। যদি ভালো গল্প হয়। আর একজন ভালো নির্মাতা সেই গল্পের ছবিটি নির্মাণ করেন তাহলে ছবি ভালো হবেই। আমি চাই ভালো গল্পের ছবিতে কাজ করতে। 

আরও পড়ুন : 

 

এম/পিআর   

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়