• ঢাকা রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫

নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে তিন সন্ধ্যায় ‘সীতায়ন’

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২৪ জুলাই ২০১৮, ১৬:৩৪
ছবি: সংগৃহীত
ত্রিশালের জাতীয় কবি কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার এন্ড পারফরর্মেন্স স্টাডিজ বিভাগ টানা তিন দিন মঞ্চস্থ করবে নাটক ‘সীতায়ন’। ২৪-২৬ জুলাই টানা তিন সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মিলনায়তনে নাটকটি মঞ্চস্থ হবে।

এই নাটকের নির্দেশনা দিয়েছেন বিভাগের শিক্ষক নীলা সাহা। স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের দ্বিতীয় সেমিস্টারের চূড়ান্ত পরীক্ষার অংশ হিসেবে নাটকটি মঞ্চায়িত হবে। সীতা নামে এক কন্যার জীবনকাহিনীর উপর নির্মিত হয়েছে নাটক ‘সীতায়ন’।

জন্ম থেকে বিলীন হয়ে যাওয়া এই কন্যার দুর্ভাগ্যের আঁধার ছিল নিবিড় ছায়াসঙ্গী। সেই কন্যার পরিবৃত্ত জীবনে আলো ফেলেছিলেন শ্রীরামচন্দ্র। তার জীবনের প্রথম পুরুষ, শেষ পুরুষ, উত্তর পুরুষ, মধ্যম পুরুষ সবই অযোধ্যার আদর্শবান রাজা রামচন্দ্র নামে এক আর্য যুবক। যে রাজা শুধু নিজের রাজধর্ম বজায় রাখার জন্য নিজ পত্নীকে পঞ্চ মাসের গর্ভবতী অবস্থায় বনবাসে দিতেও দ্বিধাবোধ করেননি।

সীতা আদর্শবানের বীজ গর্ভ ধারণ করে, নিজের গর্ভিণী জীবন একাকী লালন করে আশ্রমবাসী হয়। রাজা শ্রীরামচন্দ্র শুধু সত্য প্রতিষ্ঠার জন্য মরিয়া, যার কাছে সবার উপরে রাজধর্ম, পিতৃসত্য, প্রজাসত্য। অনার্যদের বিনাশ করাই ছিল তার কাছে মহৎ দায়িত্ব।

নিজ পত্নীর প্রতি কোন দায়িত্ববোধ ছিল না কখনও। লঙ্কা থেকে ফেরার পর সীতাকে পাপ মোছার জন্য সতীত্বের পরীক্ষা দিতে হয়। মনে মনে সীতার কেবল একটাই প্রশ্ন জাগে সীতায়ণে। নারীর কলঙ্ক মোচনের জন্য আগুনই কি প্রকৃত পরীক্ষক?

নাটকের নির্দেশক নীলা সাহা বলেন, এর আগে আমরা রামায়ণকে বহু দৃষ্টিকোণ থেকে দেখেছি। আমাদের ইচ্ছে ছিল রামায়ণকে ভিন্ন দৃষ্টি থেকে উপস্থাপন করা। সেভাবেই নারী চরিত্রগুলোকে আমরা প্রাধান্য দিয়েছি। আমরা সীতার দৃষ্টিকোণ থেকে ‘সীতায়ন’কে দেখেছি। একজন নারীর গর্ভ থেকেই তো পুরুষের জন্ম। তাই মনে করি নারীর প্রতি পুরুষের, সমাজের শ্রদ্ধাবোধ জাগ্রত হওয়া উচিৎ।’

নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন- ইসরাত জাহান রিমি, পিংকু চন্দ্র, প্রিয়ং পাল, রাব্বি ভূঁইয়া, মনিরা আক্তার, কানিজ ফাতেমা জুঁই, সৈয়দা তাসমিম পুঁথি, সাজ্জাদ হোসেন, মজনু শাহ্, সাবরিনা আক্তার, জনি মাথিয়াস নকরেক, কাসফিয়া তাবাসসুম রিদিতা ও এনামুল করিম।

পিআর/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়