‘তরুণদের নিয়ে ১০টি নাটক মঞ্চে আনবে নাগরিক’

প্রকাশ | ১৩ এপ্রিল ২০১৮, ১৪:৪৬ | আপডেট: ১৩ এপ্রিল ২০১৮, ১৫:১৯

পাভেল রহমান
ছবিতে আতাউর রহমান

নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের ৫০ বছর পূর্তি ও স্বাধীন বাংলাদেশে দর্শনীর বিনিময়ে নাটক প্রদর্শনের ৪৫ বছর উদযাপন উপলক্ষে আজ শুক্রবার থেকে শুরু হতে যাচ্ছে তিন দিনের এক বর্ণাঢ্য উৎসব। নাগরিকের আয়োজনে রাজধানীর নাটক সরণীর (বেইলী রোড) মহিলা সমিতি মঞ্চে এই উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। এই উৎসব নিয়ে আরটিভি অনলাইনের মুখোমুখি হয়েছিলেন নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও নাট্যব্যক্তিত্ব আতাউর রহমান। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন পাভেল রহমান।

নাগরিকের সুবর্ণজয়ন্তী উৎসবের বিষয়ে জানতে চাই?

আমাদের জন্য ভীষণ আনন্দের। ১৯৬৮ সালে নাগরিক প্রতিষ্ঠা করেছিলাম। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে নাগরিক দর্শনীর বিনিময়ে নাট্য প্রদর্শন শুরু করে। মনে আছে, বৃটিশ কাউন্সিল মিলনায়তনে ১৯৭৩ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি নাগরিক মঞ্চস্থ করেছিল ‘বাকি ইতিহাস’ নাটকটি। তখন ৩ ও ৫ টাকা ছিল টিকেটের মূল্য। এরপর থেকেই বাংলাদেশে টিকেটের বিনিময়ে নিয়মিত নাট্য প্রদর্শনী শুরু হয়। ৫০ বছরে নানা কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে বাংলাদেশের নাট্য ইতিহাসের অংশ হয়ে উঠেছে নাগরিক।

উৎসবের স্লোগাণ ‘নব নাট্যের অভিযাত্রা’। বিষয়টি নিয়ে জানতে চাই?

একটা প্রজন্ম শেষ হয়, আরেকটা প্রজন্ম তৈরি হয়। তরুণদের সৃজনশীল কাজের মাধ্যমে নাগরিক নতুন কিছু করবে। নাগরিক ভাবছে, মেধাবী তরুণদের নির্দেশনায় বছরের শেষ দিকে নাগরিকের প্রযোজনায় ১০টি নতুন নাটক মঞ্চে আনবে। সেই নাটকগুলো নিয়ে ‘নাগরিক উৎসব’ নামের একটি আয়োজন হবে।

এই ১০ জন তরুণ কি নাগরিকের সদস্য?

না, বিভিন্ন দলের হতে পারে। সমকালীন নাট্যচর্চায় যারা ভালো কাজ করছেন আমরা তাদের সঙ্গে কথা বলবো। তরুণদের নাটক নিয়ে নাগরিক একটা বড় উৎসব আয়োজন করবে। সেই সাথে এই নাটকগুলো যেন সারাদেশে নিয়মিত মঞ্চস্থ হয়ে তার ব্যবস্থা করবে। আমাদের বয়স হয়েছে, এখন তো আমাদের তরুণদের উপরই নির্ভর করতে হবে। আমরা মনে করি তরুণদের মাধ্যমে নাগরিক আরও অনেক দিন নাট্যচর্চায় যুক্ত থাকবে।  

উৎসবে কী আয়োজন থাকছে?

আজ শুক্রবার বিকেলে রয়েছে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। সেখানে উপস্থিত থাকবেন আমাদের দলের সিনিয়র সদস্য- আলী যাকের, আতাউর রহমান, আসাদুজ্জামান নূর, আবুল হায়াত। সেই সঙ্গে এখন যে তরুণেরা আমাদের সঙ্গে যুক্ত আছেন তাদের অংশগ্রহণ থাকবে। এদিন সৈয়দ শামসুল হক এবং খালেদ খান স্মৃতি সম্মাননা ঘোষণা করা হবে। সন্ধ্যায় আলী যাকেরের গ্রন্থণায় ‘নাট্যমালা’ শিরোনামের একটি পরিবেশনা থাকবে।

উৎসবের দ্বিতীয় দিন (শনিবার) বিকেল সাড়ে ৫টায় থাকবে নাগরিকের বৈশাখ ও জয়িতার গান। সন্ধ্যা ৭টায় পাঠ ও আবৃত্তি করবেন- আতাউর রহমান, আসাদুজ্জামান নূর, আবুল হায়াত, নিমা রহমান, নাজনীন নাজ, নায়লা তারন্নুম কাকলী, মাহফুজ রিজভী।

উৎসবের সমাপনী দিন (রোববার) সন্ধ্যা ৭টায় দারিও ফো এবং ফ্রাঙ্কা রামে রচিত নাটক ‘ওপেন কাপল্’ এর উদ্বোধনী প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে। এটি রূপান্তর ও নির্দেশনা দিয়েছেন সারা যাকের। এছাড়া ‘নব নাট্যের অভিযাত্রা’ শীর্ষক প্রদর্শনী থাকবে। সাজসজ্জায় রয়েছেন শ্রিয়া সর্বজয়া ও অপি করিম।  

পিআর/এম