• ঢাকা মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫

গল্পটি মনে গেঁথে গেছে : শ্রাবন্তী

এ এইচ মুরাদ
|  ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ২১:৪৫ | আপডেট : ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ২২:০৫
অভিনয় নৈপুণ্যে দুই বাংলায় সমান জনপ্রিয় শ্রাবন্তী। পশ্চিমবঙ্গের এই গ্ল্যামার কন্যা এবার অভিনয় করছেন বেঙ্গল মাল্টিমিডিয়া প্রযোজিত ‘যদি একদিন’ ছবিতে। এরই মধ্যে ঢাকাই সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিতে তুমুল আগ্রহ তৈরি হয়েছে ছবিটিকে ঘিরে। পরিচালনা করছেন মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ। শ্রাবন্তীর সহশিল্পী হিসেবে আছেন সঙ্গীতশিল্পী-অভিনেতা তাহসান খান ও হার্টথ্রব অভিনেতা তাসকিন রহমান। সম্প্রতি ‘যদি একদিন’ ছবির শুটিংয়ে অংশ নিতে ঢাকায় এসেছেন শ্রাবন্তী। সেই শুটিংয়ের ফাঁকে রোববার এসেছিলেন আরটিভি অনলাইনে। এ সময় ছবিতে অভিনয় ও অন্যান্য প্রসঙ্গে খোলামেলা কথা বলেছেন এই নায়িকা। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক এ এইচ মুরাদ। আজ প্রকাশিত হলো দুই কিস্তির সাক্ষাৎকারের প্রথম কিস্তি।    

‘যদি একদিন’ ছবিটি নিয়ে জানতে চাই?

ছবিতে আমার চরিত্রের নাম অরিত্রী। ভালোবাসার মতো একজন মানুষ। ভীষণ সুন্দর একটা চরিত্র। তবে পরিচালক যেহেতু গল্পটি বলতে বারণ করে দিয়েছেন, তাই এ নিয়ে বেশি কিছু বলতে চাইছি না। গল্প শুনেই কাজটি করতে রাজি হয়েছি।

পরিচালক মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজের সঙ্গে প্রথম কাজ কেমন লাগছে?

দারুণ। একসঙ্গে কাজটি করতে গিয়ে ভালো বন্ধু হয়ে গেছি আমরা। রাজ আমাকে খুব স্বাধীনতা দেয়। কাজটি করতে গিয়ে অনেক সময় রাজকে বলেছি এই ডায়লগটি এভাবে বলতে চাই। ও কখনও না করেনি। আমাদের মাঝে ভালো বন্ডিং হয়েছে। আশা করছি আবার যখন কাজটি করতে আসব আরও ভালো কাজ হবে। গল্পটি আমার মনে গেঁথে গেছে। আর সে কারণেই খুব যত্ন নিয়ে কাজটি করার চেষ্টা করছি।

সহশিল্পী হিসেবে তাহসান কেমন?

উনার সঙ্গে আমার শুধু একদিনই শুটিং হয়েছে। আমরা অনেক সিক্যুয়েন্সের কাজ করেছি। একজন ভালো অভিনেতা। কাজের প্রতি তার ভালোবাসা আমাকে মুগ্ধ করেছে। ভীষণ দায়িত্বশীল মানুষ। এটাও জেনেছি উনি বাংলাদেশের একজন জনপ্রিয় গায়ক। এমন একজন জনপ্রিয় তারকার সঙ্গে কাজ করতে পেরে ভালো লাগছে।

ছবিটি নিয়ে আপনার প্রত্যাশা কেমন?

আমার প্রচণ্ড প্রত্যাশা ছবিটি নিয়ে। এটা সম্পূর্ণ বাংলাদেশের প্রযোজিত ছবি। সেই হিসেবে বলা যায় বাংলাদেশে এই ছবির মাধ্যমে এক ধরনের নতুন যাত্রা হতে যাচ্ছে। আমাকে নিউকামারও বলতে পারেন। ছবির গল্পটি ভিন্নধর্মী। অন্য দশটা ছবির মতো হয়তো হবে না। আমি ভীষণ এক্সাইটেড কাজটি করতে পেরে।   

ছবিটির বিশেষত্ব কী?

আমরা অভিনেতা-অভিনেত্রীরা তো আছি সাপোর্ট করার জন্য। তবে এই ছবির বিশেষত্ব হলো গল্প। গল্পটি হলো এই ছবির হিরো। দর্শক গল্পটি দেখার জন্য হলে যাবেন বলে আমার বিশ্বাস।

আরও পড়ুন: 

এম/পিআর   

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়