• ঢাকা বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫

পদ্মাবতী মুক্তির দাবিতে টালিউডে ধর্মঘট

বিনোদন ডেস্ক
|  ২৮ নভেম্বর ২০১৭, ১৬:৫৮ | আপডেট : ২৮ নভেম্বর ২০১৭, ১৭:০৮
সঞ্জয় লীলা বানশালী পরিচালিত ‘পদ্মাবতী’ বিতর্কে বলিউডের মতো টালিউড নির্মাতারাও ব্ল্যাক আউট (মিডিয়া থেকে বিরত) পালন করেছে। আজ মঙ্গলবার বেলা ১২ টা থেকে ১২টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট সকল কাজ ১৫ মিনিটের জন্য বন্ধ রাখা হয়।

টালিগঞ্জের সিনেমা পাড়ায় এই ধর্মঘট ডাকে ফেডারেশন অব সিনে টেকনিশিয়ানস অ্যান্ড ওয়ার্কারস অব ইস্টার্ন ইন্ডিয়া এবং ইস্টার্ন ইন্ডিয়া মোশন পিকচারস অ্যাসোসিয়েশন (ইম্পা)। এ সময় রাজ্যের সব সিনেমা হলে ছবির প্রদর্শন বন্ধ রাখা হয়। 

এর আগে গতকাল সোমবার  টালিগঞ্জের টেকনিশিয়ান স্টুডিওতে এই বিষয়ে একটি সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হয়। সেখানে পদ্মাবতী নিয়ে যারা আপত্তি তুলছেন, তাদের বিরুদ্ধে কথা বলেন পরিচালক গৌতম ঘোষ ও অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়, শ্রীকান্ত মেহেতাসহ চলচ্চিত্র অঙ্গনের বিশিষ্ট ব্যক্তিরা।

গৌতম ঘোষ বলেন, ইতিহাস নিয়ে আলোচনা অবশ্যই হওয়া উচিত। ইতিহাসের প্রেক্ষাপটে তৈরি সিনেমা নিয়ে আলোচনা বা কারও আপত্তি থাকতেই পারে। কিন্তু সিনেমা মুক্তির আগে বা সিনেমাটা না দেখেই এ ধরনের আপত্তি তোলা উচিত নয়। গণতান্ত্রিক দেশে মত প্রকাশের অধিকার সকলেরই আছে।

প্রসেনজিৎ বলেন, ‘কিছু মানুষ যখন নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিয়ে নিচ্ছেন কোন ছবি দেখানো যাবে আর কোন ছবি দেখানো যাবে না, তখন আর সেন্সর বোর্ডের দরকার কী? এবার তাহলে ওই সব মানুষের কাছ থেকে ছবি তৈরির অনুমোদন নিতে হবে?’

এদিকে ‘পদ্মাবতী’ ছবির পাশে দাঁড়িয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপর হরিয়ানার এক বিজেপি নেতা মুখ্যমন্ত্রীর নাক কাটার হুমকি দেন। ফলে রাজ্যের পরিস্থিতি আরও ঘোলাটে হয়ে পড়ে। পশ্চিমবঙ্গের সর্বত্র প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে।

পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল থেকে দাবি করা হয়েছে, হরিয়ানার ওই বিজেপি নেতা সুরজ পাল অমুকে তার মন্তব্যের জন্য মমতার কাছে ক্ষমা চাইতে হবে।

তবে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট আজ মঙ্গলবার সরকারের দায়িত্বশীল পদে থেকে ছবিটি নিয়ে কোনো রকম মন্তব্য না করার কথা বলেছেন। সুপ্রিম কোর্ট থেকে বলা হয়েছে, ছবিটি নিষিদ্ধ নয়। আর ছবিটি ছাড়পত্র পাবে কি না, সেটা দেখবে চলচ্চিত্র সেন্সরবোর্ড। সরকারের দায়িত্বশীলদের এই বিষয়ে কথা বলার ক্ষেত্রে সাবধান হতে আদালতের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

পিআর / এমকে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়