close
ঢাকা, বুধবার, ২৩ আগস্ট ২০১৭ | ০৮ ভাদ্র ১৪২৪

সালমান শাহ সম্পর্কে যা বললেন সামিরার বর্তমান স্বামী (অডিও)

হোসাইন তারেক
|  ০৯ আগস্ট ২০১৭, ১৮:০৪ | আপডেট : ০৯ আগস্ট ২০১৭, ১৮:৫০
প্রয়াত চিত্রনায়ক সালমান শাহ। নিজের অভিনয় ক্যারিয়ারে জনপ্রিয়তার তুঙ্গে থাকা অবস্থায় ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) রহস্যজনকভাবে মৃত্যুবরণ করেন। মরদেহ উদ্ধারের পর ধারণা করা হয় আত্মহত্যা করেছেন সাড়া জাগানো এ চিত্রনায়ক। কিন্তু তার পরিবার দাবি করে, সালমানকে খুন করা হয়েছে। মৃত্যুর দুই দশকের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও এখনো রহস্যের জট খোলেনি।

সালমান শাহের পরিবারের সন্দেহের তালিকায় রয়েছেন সালমান শাহ’র স্ত্রী সামিরা ও সামিরার বর্তমান স্বামী মোস্তাক ওয়াইজ। যিনি আবার সালমানের বাল্যবন্ধুও! সালমান শাহর মৃত্যুর ৩ বছর পর মোস্তাক ওয়াইজ বিয়ে করেন সামিরাকে!

সালমান শাহ মৃত্যু বিষয় নিয়ে সামিরার স্বামী মোস্তাক ওয়াইজের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে কথা হয় আরটিভি অনলাইনের। এসময় তিনি বেশকিছু বিষয়ে খোলামেলা কথা বলেছেন।

মোস্তাক ওয়াইজ বলেন, আমি বলবো না সালমান শাহ নিজে ধোয়া তুলশি পাতা ছিলেন। একটা সময় চিত্রনায়িকা শাবনূরের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন তিনি।

তিনি আরো বলেন, সালমান শাহ তার সময়ে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের অত্যন্ত জনপ্রিয় নায়ক ছিলেন। তার জনপ্রিয়তা নিয়েও কোনো সন্দেহ নেই। মাঝে কিছু সময় চিত্রনায়িকা শাবনূরের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে বিতর্কেও জড়িয়েছিলেন।

শাবনূরের সঙ্গে সম্পর্কের কারণে এফডিসি কেন্দ্রিক সমিতিগুলো তাকে বয়কট করেছিল। এছাড়াও দিনে দুপুরে তাকে ড্রাগস নিতে দেখা গেছে। হয়তো এসব বিষয়ে তাকে মানসিকভাবে আঘাত করেছে। তার মানে এটা বলছি না তিনি খারাপ ছিলেন, বা আমি তার বদনাম করছি।

দীর্ঘ ২১ বছর পর সালমান শাহ হত্যা মামলার ৭ নম্বর আসামি রুবীর ভিডিও স্বীকারোক্তির বিষয়ে সামিরার স্বামী বলেন, আমরা নিজেরাই সারপ্রাইজড। এতদিন তিনি কেন চুপ ছিলেন? হঠাৎ আবার কোথা থেকে এলেন, কেন এলেন তা তিনি ভালো জানেন। কারণ সালমানের বাবা প্রথম শ্রেণির মেজিস্ট্রাট। তাহলে তিনি কেন রমনা থানায় গিয়ে অপমৃত্যু মামলা করেছেন।

মৃত্যুর দিন সালমান শাহ’র বাবাকে বাসায় উঠতে দেয়নি বলে তার মা নীলা চৌধুরী যে অভিযোগ করেছেন সে বিষয়ে তিনি বলেন, এসবের কোনো প্রমাণ আছে? সালমানের বাবা সকাল ৯টায় এসে সামিরার সঙ্গে বসে চা, নাস্তা খেয়েছেন। সামিরা উনাকে বলেছে, বাবা আমি কি সালমানকে ডেকে দেব? তখন তিনি বলেন না, ওহ ঘুমাক, মাত্র একটি দিনই সে ঘুমায়।

সালমানের বাবা কমরউদ্দিন চৌধুরী তখন বলেছিলো, আমাকে ৫০ হাজার টাকা দেয়ার কথা ছিলো। পরে তিনি টাকা নিয়ে চলে যান। কারণ সালমানের মা নীলা চৌধুরী ৯৬ সালে সংসদ নির্বাচন করেছিলেন। সেই সময় তার জামানতও বাজেয়াপ্ত হয়েছিলো। সালমান তার মাকে প্রতি মাসে ভোটের জন্য ৫০ হাজার টাকা করে দিত। সেটি আমি সামিরার কাছে জানতে পেরেছি। সেটার কাগজও আমাদের কাছে আছে। কমরউদ্দিন সাহেব সকালে টাকার জন্য এসেছিলেন, কারণ তিনি সেগুলো নিয়ে সিলেট যাবেন।

কমরউদ্দিন সাহেব চলে যাবার পরও আরো বেশকিছু সময় সালমান ঘুমায়। এক সময় তাকে কাজের ছেলে আবুল ডাকতে গেলে দেখে দরজা ভেতর থেকে বন্ধ। তখন আবুল সামিরাকে বলে, আপু ভাইয়া দরজা খুলছেন না। পরে সামিরাসহ বাসার লোকজন দরজা খুলে দেখে সালমান অচেতন।

স্বামী সহ সামিরা থাইল্যান্ডে বসবাস করেন এমন সংবাদ প্রকাশ হয় গণমাধ্যমে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, আমাদের বিয়ের ১৮ বছরে আমরা এক মাসের জন্যও দেশে বাহিরে যাইনি। অথচ অনেক পত্রপত্রিকায় বলা হচ্ছে আমরা থাইল্যান্ডে থাকি। এসব মিথ্যা।

মোস্তাক ওয়াইজ বলেন, আমরা অপরাধী হয়ে থাকলে অথবা আমাদের মনে ভয় থাকলে আরো আগে দেশ ছেড়ে পালিয়ে যেতাম। কিন্তু আমরাতো দেশে আছি, কোথাও যাইনি। কারণ আইনের প্রতি আমাদের পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস রয়েছে।

সালমান শাহ মৃত্যুর আগে সামিরার সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়ে তিনি বলেন, সালমান আমার ছোট বেলার বন্ধু। তার স্ত্রীর সঙ্গে কি করে পরকীয়ার সম্পর্কে জড়াই? এসব মিথ্যা কথা।

মোস্তাক ওয়াইজ বলেন, সালমান শাহর মৃত্যুর ৩ বছর পর নিজের দায়িত্ব বোধ থেকে আমি সামিরাকে বিয়ে করি। যদিও বিয়েতে মত ছিলো না সামিরার। আমার পরিবারকে দিয়ে তাকে রাজি করানোর পর আমাদের বিয়ে হয়।

 

এইচটি/এইচএম 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়