• ঢাকা সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫

অ্যাপারেল সামিট শুরু

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ১৮:৩৮ | আপডেট : ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ২০:৩৩
পোশাক শিল্পে টেকসই প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যে রাজধানীতে শুরু হলো এ খাতের সর্ববৃহৎ সম্মেলন 'ঢাকা অ্যাপারেল সামিট-২০১৭'।

রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলের বলরুমে সম্মেলনটি শুরু হয়েছে। শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্মেলনের উদ্বোধন করেন।

এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এবং শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক চুন্নু, আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) ফিল্ড অপারেশন অ্যান্ড পার্টনারশিপ বিভাগের ডেপুটি ডিরেক্টর জেনারেল গিলবার্ট ফুসান হাংবো।

এছাড়া উপস্থিত ছিলেন বিজিএমইএ সিনিয়র সহ-সভাপতি ফারুক হাসান, সহ-সভাপতি এস.এম. মান্নান কচি, মাহমুদ হাসান খান ও মোহাম্মাদ নাসির।

উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, দেশের রপ্তানি আয় ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার করতে পোশাক শিল্পের মালিকদের সহোযগিতা করতে হবে। বর্তমানে দেশের রপ্তানি আয় ৩৪ দশমিক ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের পোশাক শিল্প বিশ্বের উন্নয়নের রোল মডেল। আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় আসে তখনই পোশাক শিল্পের সঙ্গে সম্পৃক্তদের উন্নয়নে সবরকম পদক্ষেপ নেয়। বিএনপি-জামায়াত জোটের সন্ত্রাসী কার্যকলাপে পোশাক শিল্পের যে ক্ষতি হয়েছে তা পুষিয়ে দিতে প্রণোদনা দিয়েছে সরকার।

বিজিএমইএ দ্বিতীয়বারের মতো এ সামিট আয়োজন করছে। ২০১৪ সালে প্রথমবারের মতো অ্যাপারেল সামিটের আয়োজন করা হয়।

‘টুগেদার ফর এ বেটার টুমরো’ প্রতিপাদ্য নিয়ে ঢাকা অ্যাপারেল সামিট-২০১৭ অনুষ্ঠিত হচ্ছে।  এবারের সম্মেলনের লক্ষ্য হচ্ছে এমন একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করা, যেখানে সরকারি, বেসরকারি খাত, দাতা সংস্থা, ব্র্যান্ড, শ্রমিক সংগঠনসহ পোশাক শিল্পের সব স্টেকহোল্ডার মিলে বাংলাদেশের পোশাক শিল্পে টেকসই প্রবৃদ্ধি নিশ্চিত হবে। পাশাপাশি শিল্পে সমন্বিত উদ্যোগ নেয়ার বিষয়ে মতবিনিময় ও টেকসই প্রবৃদ্ধির জন্য অগ্রাধিকারমূলক ক্ষেত্রগুলোর সম্পর্কে দিকনির্দেশনার সুযোগ অবারিত হয়।

উদ্বোধনী সেশন ছাড়াও এ সম্মেলনে ৩টি সেশন রয়েছে। সেগুলো হলো- বিজনেস পলিসি অ্যান্ড ইনভাওরমেন্ট: টুওয়ার্ড এ বেটার বাংলাদেশ, কোলাবোরেটিভ অ্যান্ড রেসপনসিবল সার্সিং ফর সাসটেইন্যাবল গ্রোথ এবং বাংলাদেশ অ্যাপারেল ইন্ডাষ্ট্রি: ট্রান্সফরমেশন অ্যান্ড দ্য রোড অ্যা হেড। এতে আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞরা বক্তব্য রাখবেন।

সেশনগুলোতে যেসব বিষয় অগ্রাধিকার পাবে তা হলো-শিল্পমুখী অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের জন্য কনডাকটিভ বিজনেস, পরিবেশ ও নীতি, তৈরি পোশাকরে সাপ্লাই চেইন টেকসই করার জন্য স্টেকহোল্ডারদের সমন্বিত উদ্যোগ ও টেকসই অর্থনীতির গুরুত্ব কতখানি, শিল্পের আধুনিকীকরণ কেনো গুরুত্বপূর্ণ, পোশাক শিল্পের চ্যালেঞ্জ।

এমসি/ডিএইচ 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়