• ঢাকা সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫

প্লাস্টিক শিল্পনগরীর দ্বার খুলছে ২০১৮ সালে

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ১৯:১৫ | আপডেট : ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ২২:০২
মুন্সিগঞ্জে ৫০ একর জমির ওপর প্লাস্টিক শিল্পনগরী গড়ে তোলা হচ্ছে। ২০১৮ সালের জুনে এ কাজ শেষ হবে। যেখানে প্রায় ১৮ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে। এ প্রকল্পে ব্যয় হবে ১শ’ ৩৩ কোটি টাকা ।  বললেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু।

বুধবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ১২তম আন্তর্জাতিক প্লাস্টিক মেলা-২০১৭ উদ্বোধনকালে শিল্পমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশ প্লাস্টিক দ্রব্য প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক অ্যাসোসিয়েশন (বিপিজিএমইএ) মেলার আয়োজন করেছে।

বিপিজিএমইএর সভাপতি জসিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাতবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, চ্যান চাও ইন্টারন্যাশনাল কোম্পানির নির্বাহী পরিচালক জুডি ওয়াং।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, ‘জাতীয় শিল্পনীতি ২০১৬’ তে প্লাস্টিক শিল্প অগ্রাধিকার পাওয়া খাত তালিকায় শীর্ষে রয়েছে।  বর্তমানে প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে তিন হাজার ৭শ’ কোটি টাকার প্লাস্টিক পণ্য রপ্তানি হয়। বাংলাদেশ যেসব পণ্য রপ্তানি করে তার মধ্যে প্লাস্টিক পণ্যের অবস্থান ১২তম।

মন্ত্রী বলেন, প্লাস্টিক খাতে দূষণ ও অনিয়ম মেনে নেয়া হবে না। পরিবেশবান্ধব সবুজ প্লাস্টিক শিল্পের বিকাশে সরকার বদ্ধপরিকর। বিশ্বব্যাপী প্রতিনিয়ত প্লাস্টিক পণ্যের ব্যাপক চাহিদা বাড়ছে। এ চাহিদা পূরণের জন্য এ খাতকে রপ্তানিমুখী করার পাশাপাশি বৈচিত্র্যকরণ করতে হবে।

বিপিজিএমইএ’র সভাপতি জসিমউদ্দিন বলেন, মেলায় বিভিন্ন দেশ থেকে আসা প্রতিষ্ঠানগুলো প্লাস্টিক পণ্য উৎপাদনকারী মেশিন ও ক্যাটালগ প্রদর্শন করছে। প্লাস্টিক মেলার মাধ্যমে পণ্যের পরিচিতি, নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ছে। বাড়ছে ভোক্তাও। এ পণ্য দেশীয় চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি করা হচ্ছে।

চার দিনব্যাপী এ মেলায় বিশ্বের ১৪টি দেশ অংশ নিয়েছে। আর দেশি-বিদেশি মিলে  রয়েছে ৪শ’ ৫০টি স্টল। মেলায় থাকছে দেশীয় ১৫টি ক্যাটাগরি।

প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত  মেলা খোলা থাকবে। ১৮ ফেব্রুয়ারি মেলা শেষ হবে।

এমসি/এমকে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়