• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫

তিল ধরার ঠাঁই নেই বাণিজ্য মেলায়

মিথুন চৌধুরী
|  ২৮ জানুয়ারি ২০১৭, ১২:৫৯ | আপডেট : ২৮ জানুয়ারি ২০১৭, ১৩:১৩
৩ দিন পরেই পর্দা নামছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য  মেলার। আর তাই সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্রবারের মতো শনিবারও মেলায় ক্রেতা-দর্শনার্থীর ছিল উপচে পড়া ভিড়।  

শনিবার সকাল থেকে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রাজধানীর বিভিন্ন প্রান্ত ছাড়াও দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে ক্রেতা-দর্শনার্থীরা আসতে শুরু করেন। এতে ফার্মগেট, খামারবাড়ি হয়ে মিরপুর-১০ নম্বর রুট ও মহাখালী থেকে বিজয় সরণি হয়ে মিরপুর রুটে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। এদিকে সকাল থেকে মেলার পার্কিং কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়।

আসছে মঙ্গলবার পর্দা নামবে মাসব্যাপী এই মেলার। শনিবার ছিল মেলার ২৮তম দিন। মেলার সময় যত শেষ হয়ে আসছে ততই ক্রেতা সমাগম বাড়ছে। আর বিক্রেতারাও বিভিন্ন ছাড় দিচ্ছে। ফলে বিক্রিও বাড়ছে প্রতিদিন।

মেলায় এখন ক্রেতাদের আধিপত্য। হাত ভর্তি শপিংব্যাগ নিয়ে ছুটে চলা মানুষজনকেই চোখে পড়ছে বেশি। সে সঙ্গে স্টল আর প্যাভিলিয়নগুলোতে কর্মব্যস্ততার সর্বোচ্চ পর্যায়ে রয়েছেন বিক্রেতারা। দর্শক-ক্রেতাদের বেশিরভাগের আকর্ষণ ঘর সাজানো সামগ্রী ঘিরে।

কেউ আবার নিজেকে সাজানোর উপকরণের দিকে ঝুঁকছেন। বাদ যায়নি শিশুরাও। সবাই নিজের পছন্দের পণ্যটি কিনতে ছুটছেন স্টলে স্টলে। শেষ মুহূর্তে বেচাকেনা আর ক্রেতা দর্শনার্থীর সমাগমে মুখরিত মেলা প্রাঙ্গণ। বিক্রেতারাও এসব ক্রেতা টানতে অতিরিক্ত ছাড় দিয়েছে প্রায় প্রতিটি পণ্যে।

প্রতিটি স্টল ও প্যাভিলিয়নে ক্রেতাদের সামলাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে বিক্রেতাদের। একদিন হাতে থাকায় পণ্য বিক্রিতে ব্যস্ত সময় কাটাতে দেখা গেছে বিক্রেতাদের। ক্রেতাদের মাঝেও লেগেছে পণ্য কেনার ধুম।

ক্রেতারা বলছে, বছরে একবার বাণিজ্যমেলার আয়োজন হওয়ায়, কোম্পানিগুলো মেলাকে কেন্দ্র করে নতুন নতুন ডিজাইনের পণ্য নিয়ে আসে। যা বছরের অন্য সময়ে পাওয়া যায় না। নতুন ডিজাইনের পণ্য থাকায় এসব পণ্যের চাহিদা বেশি।

মেলা ফেরত মানুষের হাতের পণ্যের মধ্যে সবচেয়ে বেশি চোখে পড়েছে গৃহস্থালি বিভিন্ন পণ্য। এর মধ্যে প্লাস্টিকের পাশাপাশি রয়েছে প্রেসার কুকার, জুস মেকার, জুস ব্লেন্ডার, ওভেন, রাইস কুকার, ইস্ত্রি, ইন্ডাকশন চুলা, ফ্যানসহ নানা ধরনের ইলেক্ট্রনিক ও ইলেক্ট্রিক গৃহস্থালি পণ্য। অপরিচিত বিভিন্ন ব্র্যান্ডের পাশাপাশি বেঙ্গল প্লাস্টিক, ওয়ালটন, আরএফএল, সিঙ্গারসহ বিভিন্ন নামি-দামি ব্র্যান্ডের পণ্য বেশি বিক্রি হচ্ছে মেলাতে। পরিবারের সবার জন্যই কোনো না কোনো পণ্য যেন কিনতেই হবে। তবে রান্না ঘরের জন্য প্লাস্টিক ও ডিজিটাল পণ্য প্রায় সবার হাতেই চোখে পড়ে। প্রযুক্তির উৎকর্ষতায় রান্না ঘরের ঝামেলা থেকে গৃহিণীদের মুক্তি দিতে বিভিন্ন প্যাভিলিয়ন বিক্রি হচ্ছে ইন্ডাকশন চুলা, ইলেক্ট্রিক প্রেসার কুকারসহ নানা ধরনের পণ্য।

মিরপুর থেকে মেলায় বনাধুসহ আসা বেসরকারি ব্যাংকের কর্মকর্তা মুরাদ বলেন, ছুটির দিনের সুযোগটি হাতছাড়া না করতেই মেলায় আসা। মেলায় এক সঙ্গে অনেক পণ্য থেকে পছন্দসই পণ্যটি বাছাই করে কেনার পাশাপাশি পাওয়া যাচ্ছে ছাড় ও গিফট সামগ্রী। বিভিন্ন অফারের কারণে ছুটির দিনে জমে ওঠে মেলার বিভিন্ন স্টল।

পরিবারসহ মেলায় ঘুরতে আসা কাঠাঁলবাগানের বাসিন্দা আনোয়ার জাহিদ বলেন, এত দিন মেলায় আসার সুযোগ হয়নি। সাপ্তাহিক ছুটি হওয়ায় পরিবারের সবাইকে নিয়ে মেলায় এসেছেন। গৃহস্থালির আসবাব কেনার পাশাপাশি ছেলেমেয়েদের পোশাক কিনেছেন। মেলা ঘুরে বিভিন্ন পণ্য দেখছেন। পছন্দ হলে আরো কিনবেন।

নতুন সংসার করা রুমকি ছুটির দিনে এসেছেন মেলায়। বিফলও হননি। একটির সাথে ১০টি ফ্রি এমন অফারে ২২ হাজার টাকায় একটি ওভেন কিনে পান প্রেসার কুকার, বেস্নন্ডার, ডিনার সেট, আয়রন মেশিন, চামচ সেটসহ ১০ ধরনের গিফট সামগ্রী।

এদিকে, বাণিজ্যমেলায় আগত দর্শনার্থীদের অভিযোগেরও অন্ত নেই। বিশেষ করে খাবারের দোকানগুলোয় গলাকাটা দাম নেয়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন অধিকাংশ আগন্তুক। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে মেলায় এসে অনেককে বাধ্য হয়ে খেতে হয় জানিয়ে তারা বলেন, খাবারের মান এবং দামের বিষয়টি কর্তৃপক্ষের তদারকির আওতায় আনা উচিত।

রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের পাশে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) উদ্যোগে ১ জানুয়ারি শুরু হয় মাসব্যাপী ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা।

এমসি/ওয়াই

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়