৩ বছরে ১০ লাখ পেশাজীবী পরিবারসহ কানাডায় স্থায়ী হবার সুযোগ

প্রকাশ | ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৩:৫৯ | আপডেট: ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৪:১১

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক

২০১৬ সালে কানাডাতে একটি আদমশুমারি হয়েছিল। সেখানে বলা হয়, কানাডাতে বর্তমানে শিশুদের জন্মের তুলনায় বয়ষ্ক মানুষের সংখ্যা দিন দিন অনেক বেশি হারে বাড়ছে। এজন্য ২০১৮, ২০১৯ ও ২০২০ সালে অর্থাৎ তিন বছরে কানাডার বিভিন্ন প্রদেশে পর্যায়ক্রমে ১০ লাখের বেশি পেশাজীবী বিভিন্ন খাতে নেয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে দেশটির সরকার।

পৃথিবীর সেরা পাঁচটি দেশের একটি হলো কানাডা। অনেকেরই ইচ্ছা থাকে কানাডাতে পরিবারসহ স্থায়ী হবার। তাই পৃথিবীর অন্য দেশের মতো বাংলাদেশের পেশাজীবীরাও ১০ ক্যাটাগরিতে আবেদন করতে পারবেন। সাধারণত এক্সপ্রেস এন্ট্রি ও পিএনপি ধরনের প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে আবেদন করা যায়।

-------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার হুমকি ট্রাম্পের
-------------------------------------------------------

 

যে ১০ ক্যাটাগরিতে আবেদনের মাধ্যমে দ্রুত যাওয়া যাবে সেগুলো হলো- সেলস রিপ্রেজেন্টেটিভ, অ্যাকাউন্ট্যান্ট, ইঞ্জিনিয়ারিং প্রজেক্ট ম্যানেজার, বিজনেস এনালিস্ট, কাস্টমার সার্ভিস রিপ্রেজেন্টেটিভ, আইটি প্রজেক্ট ম্যানেজার, সিনিয়র অ্যাকাউন্ট ম্যানেজার, সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার।  এসব পদেই অভিজ্ঞ জনবল নেয়া হচ্ছে। তবে এদের মধ্যে যারা কমপক্ষে ডিপ্লোমা বা ডিগ্রি পাস, কমপক্ষে তিন বছরের চাকরির অভিজ্ঞতা ও ইংরেজি ভাষার উপর খুব ভালো দখল আছে শুধু তারাই আবেদন করতে পারবেন।

কানাডায় ইমিগ্রেশন সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে আগ্রহী যে কেউ যোগাযোগ করতে পারেন আন্তর্জাতিক অভিবাসন আইন বিশেষজ্ঞ ও বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী শেখ সালাহউদ্দিন আহমেদের সাথে।

এ বিষয়ে অ্যাডভোকেট শেখ সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, মূলত যেকোনো ডিপ্লোমাধারী অথবা ডিগ্রি পাসধারী দক্ষ ও অভিজ্ঞ পেশাজীবীরা সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেন। বাংলাদেশিরা যদি প্রথম থেকেই দ্রুত ও দক্ষতার সাথে ফাইল প্রসেস করে, তবে স্বল্প সময়ে এই ভিসা পাওয়া নিশ্চিত।

কানাডার অভিবাসন আইন নিয়ে দীর্ঘদিন কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে এই লেখক, কলামিস্ট, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব, আন্তর্জাতিক অভিবাসন আইন বিশেষজ্ঞ ও বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী শেখ সালাহউদ্দিন আহমেদের।

তিনি বলেন, প্রকৃতপক্ষে যারা যোগ্যতা রাখেন, তাদের আর দেরি করা ঠিক হবে না। সেইসঙ্গে অযোগ্য ব্যক্তিরা যেন অযথা আবেদন করে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট না করেন সেই অনুরোধও করেন এই আইনজীবী।

এ বিষয়ে ফ্রি অ্যাসেসমেন্টের জন্য আগ্রহীরা ওয়ার্ল্ডওয়াইড মাইগ্রেশন কনসালট্যান্টস লিমিটেডের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শেখ সালাহউদ্দিন আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন। পূর্ণাঙ্গ জীবনবৃত্তান্ত পাঠানো যাবে [email protected] ই-মেইল ঠিকানায়। বিস্তারিত জানতে ভিজিট করা যাবে www.wwbmc.com. ওয়েবসাইটে।

এছাড়া ঢাকার উত্তরায় ৭ নম্বর সেক্টরের ৫১ সোনারগাঁও জনপথে অবস্থিত খান টাওয়ারে ওয়ার্ল্ডওয়াইড মাইগ্রেশন কনসালট্যান্টস লিমিটেডের অফিসেও খোঁজ নেয়া যেতে পারে। ফোনে প্রাথমিক তথ্যের জন্য কথা বলতে পারেন:

 ০১৯০৯-০৮৩৯৬২, ০১৯০৯-০৮৩৯৬৩, ০১৯৬৬০৪১৫৫৫, ০১৯০৪০৩৬৮৯৯. ০১৯৯৩৮৪৩৩৪০ নম্বরে।

বিজ্ঞপ্তি

আরও পড়ুন :

এসআর/