• ঢাকা মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫

ডিসেম্বরে বাংলাদেশ ছাড়ছে অ্যালায়েন্স

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২৩ জুলাই ২০১৮, ১১:১৭ | আপডেট : ২৩ জুলাই ২০১৮, ১২:০৮
বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাতের নিরাপত্তা নিশ্চিতে গঠিত পশ্চিমা ক্রেতা জোট অ্যালায়েন্স ফর বাংলাদেশ ওয়ার্কার সেফটি আগামী ডিসেম্বরেই বাংলাদেশ ছাড়ছে।

রোববার রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন অ্যালায়েন্সের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর জিম মরিয়ার্টি।

অ্যালায়েন্স ফর বাংলাদেশ ওয়ার্কার সেফটি, যেটি "অ্যালায়েন্স" নামেও পরিচিত। বিশ্বের ২৮টি বিখ্যাত ব্র্যান্ডের সমন্বয়ে গঠিত একটি সংস্থা। যারা বাংলাদেশের পোশাক কারখানার শ্রমিকদের শ্রম নিরাপত্তা নিয়ে কাজ করেছে। এটি রানা প্লাজা দূর্ঘটনার পরে গঠিত হয়। সম্মিলিতভাবে, অ্যালায়েন্স সদস্যরা বিশেষত উত্তর আমেরিকার আমদানিকারক, যারা বাংলাদেশের ৭০০টিরও বেশি কারখানা থেকে তৈরি পোশাক আমদানি করে থাকে।

সংবাদ সম্মেলনে জিম মরিয়ার্টি বলেন, অ্যালায়েন্স এর তত্ত্বাবধানে বাংলাদেশের গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিগুলোতে অতীতের চেয়ে বর্তমানে অনেক নিরাপত্তা ফিরে এসেছে।

তিনি বলেন, অ্যালায়েন্সের অধিভুক্ত কারখানাগুলোর শ্রমিকদের সমস্যা সমাধানে ২০১৪ সালের মাঝামাঝি সময়ে অ্যালায়েন্স একটি হেল্পলাইন চালু করে। এর মাধ্যমে পোশাক কারখানায় শ্রমিকদের হয়রানি, মজুরি ক্ষতিপূরণ বিষয়ক বিভিন্ন সমস্যার সমাধান, রিপোর্ট ও বাস্তবায়নভিত্তিক সমস্যাগুলো সমাধানের সুযোগ করে দিয়েছে এ জোট।

মরিয়ার্টি বলেন, পোশাক শ্রমিকদের জন্য বিনা খরচে হেল্পলাইন চালু করা আছে। হেল্পলাইন প্রতিষ্ঠিত করার পর থেকে এ যাবত এক হাজারেরও বেশি কারখানা থেকে মোট ২ লাখ ৩৩ হাজারেরও অভিযোগ এসেছে। যার মধ্যে এ পর্যন্ত ৮০ শতাংশ সমস্যার সমাধান করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে কারখানা শ্রমিকদের সহযোগী সংগঠন ফুলকির প্রতিষ্ঠাতা এবং এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর সুরাইয়া হক বলেন, বেতন না পাওয়া, কারখানায বন্ধ হয়ে যাওয়া, আগুন লাগা, শ্রমিকদের মধ্যে মারামারি, সুপারভাইজারের অস্বাভাবিক আচরণসহ বিভিন্ন ধরনের সমস্যার অভিযোগ হেল্প লাইনের মাধ্যমে পাওয়া যায়। এর ৮০ শতাংশ সমস্যা মালিকদের জানানোর মাধ্যমে প্রাথমিকভাবে সমাধান করা হয়।

এসআর

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়