পোশাক শ্রমিকদের দাবি ১২ হাজার টাকা, মালিকদের প্রস্তাব ছয়

প্রকাশ | ১৬ জুলাই ২০১৮, ২১:২৯ | আপডেট: ১৬ জুলাই ২০১৮, ২২:২৬

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট

নতুন কাঠামোতে পোশাক শ্রমিকদের সর্বনিম্ন মজুরি ১২ হাজার ২০ টাকা দাবি করেছে শ্রমিক পক্ষ। তবে মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ গার্মেন্ট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন(বিজিএমইএ) প্রস্তাব করেছে ছয় হাজার ৩৬০ টাকা।

সোমবার রাজধানীর তোপখানা রোডের নিম্নতম মজুরি বোর্ডের চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে শ্রমিক ও মালিকরা তাদের প্রস্তাবনা দেয়।

এসময় শ্রমিকদের পক্ষ থেকে গ্রেড-৬-এর এর ক্ষেত্রে ১২ হাজার ৯৩০ টাকা, গ্রেড-৫-এর ক্ষেত্রে ১৩ হাজার ৯১০ টাকা, গ্রেড-৪-এর ক্ষেত্রে ১৪ হাজার ৯৬০ টাকা, গ্রেড-৩-এর ক্ষেত্রে ১৬ হাজার ১৫০ টাকা, গ্রেড-২-এর ক্ষেত্রে ১৭ হাজার ৫৫০ টাকা ও গ্রেড-১-এর ক্ষেত্রে ২১ হাজার ৫০ টাকা মজুরির প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, গ্রেড-৬-এর ক্ষেত্রে ১৮ দশমিক ৯২ শতাংশ বাড়িয়ে ৬ হাজার ৭৫২ টাকা, গ্রেড-৫-এর ক্ষেত্রে ১৮ দশমিক ৭৭ শতাংশ বাড়িয়ে ৭ হাজার ১৭৬ টাকা, গ্রেড-৪-এর ক্ষেত্রে ১৮ দশমিক ৪৫ শতাংশ বাড়িয়ে ৭ হাজার ৬০৪ টাকা ও গ্রেড-৩-এর ক্ষেত্রে ১৭ দশমিক ৩১ শতাংশ বাড়িয়ে ৭ হাজার ৯৮৩ টাকার প্রস্তাব দিয়েছে মালিক পক্ষ। তবে তারা গ্রেড ১ ও ২-এর মজুরির কোনও প্রস্তাবনা প্রকাশ করেনি।

বৈঠক শেষে নিম্নতম মজুরি বোর্ডের চেয়ারম্যান সিনিয়র জেলা জজ সৈয়দ আমিনুল ইসলাম বলেন, খুব অল্প সময়ের মধ্যেই গার্মেন্ট শিল্পের শ্রমিকদের মজুরি নির্ধারণের ব্যাপারে আমাদের বোর্ডের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাতে পারব।

তিনি বলেন, আমরা আশা করছি, সেপ্টেম্বর নাগাদ এসব কাজ শেষ করতে পারব। ইতোমধ্যে আরও তিন মাস সময় বাড়ানোর জন্য গতকাল(রোববার) সরকারের কাছে প্রস্তাব পাঠিয়েছি। নভেম্বর পর্যন্ত আমরা সময় চেয়েছি। তবে এর আগেই কাজ শেষ করতে পারব বলে আশা করছি।

এর আগে, গত ৮ জুলাই অনুষ্ঠিত বৈঠকে উভয় পক্ষের প্রস্তাবনা জমা দেয়ার কথা থাকলেও কোনও পক্ষই সেদিন প্রস্তাবনা জমা দেয়নি।

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের গেজেট অনুযায়ী পোশাক মালিকদের সর্বনিম্ন মজুরি(গ্রেড-৭) ৫ হাজার ৩০০ টাকা। নতুন মজুরি কাঠামোতে তা ২০ শতাংশ বাড়িয়ে সর্বসাকুল্যে ৬ হাজার ৩৬০ টাকা করতে চায় মালিকরা। অন্যদিকে, ১২৬ দশমিক ৭৯ শতাংশ বাড়িয়ে এই মজুরি ১২ হাজার ২০ টাকা করার দাবি করেছে শ্রমিক পক্ষ। এই গ্রেডে বর্তমানে মূল মজুরি ৩ হাজার টাকা। মালিকপক্ষ তা ৩ হাজার ৬০০ টাকা করতে চেয়েছে। আর শ্রমিক পক্ষ তা ৭ হাজার ৫০ টাকা করার দাবি করেছে।

কে/ এমকে