• ঢাকা রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫

৬ মাস বেতন পান না গ্রামীণ ব্যাংকের ৩ হাজার কর্মী!

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১৪ জুলাই ২০১৮, ১৯:৫৮ | আপডেট : ১৪ জুলাই ২০১৮, ২৩:২৯
দৈনিক মজুরিভিত্তিতে সারাদেশে নিয়োগপ্রাপ্ত তিন হাজারের বেশি কর্মচারী প্রায় ৬ মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না। ফলে তাদের এখন মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে। সেই সঙ্গে তাদের চাকরিতেও স্থায়ী করা হচ্ছে না। শান্তিতে নোবেল জয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনুসের গ্রামীণ ব্যাংকের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ উঠেছে।

আরও অভিযোগ- আন্দোলন, সংগ্রাম করেও ভুক্তভোগীরা ন্যায্য দাবি আদায়ে ব্যর্থ হয়ে উল্টো ছাঁটাইয়ের শিকার হচ্ছেন। 

ভুক্তভোগীরা বলছেন, দীর্ঘদিন কাজ করার পরও গ্রামীণ ব্যাংক তাদের এখনও স্থায়ী করেনি। তাদের কারও কারও গত ৫-৬ মাস ধরে বেতন দেয়া হচ্ছে না। গ্রামীণ ব্যাংক তাদের সঙ্গে প্রতারণা করছে।

গ্রামীণ ব্যাংক অস্থায়ী কর্মচারী সমিতির আহ্বায়ক মো. আজিজুল হক বাবুল এ বিষয়ে আরটিভি অনলাইনকে বলেন, ১০ থেকে ১৫, ১৫ থেকে ২০ বছর কাজ করার পরও গ্রামীণ ব্যাংক আমাদের স্থায়ী করছে না। গত মার্চেও আমরা এ নিয়ে আন্দোলন করেছিলাম। ওই সময় তারা আমাদের বলেছিল- দুই মাসের মধ্যে ব্যবস্থা নেবে। আশ্বাসও দিয়েছিল। কিন্তু এখনও কোনও ব্যবস্থা তারা নেয়নি।

“এমনকি আন্দোলনে নামার পর তারা এই শ্রেণির কর্মচারীদের দৈনিক বেতন ২৫ টাকা করে কমিয়ে দিয়েছে। আগে যেখানে ৪০০ টাকা করে দেয়া হতো। এখন তা কমিয়ে আনা হয়েছে ৩৭৫ টাকায়।”

তিনি বলেন, আমরা দীর্ঘদিন গ্রামীণ ব্যাংকে চাকরি করলেও আমাদের চাকরি স্থায়ী হয়নি। গ্রামীণ ব্যাংক আমাদের ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করেছে। ৯ মাস চাকরির পর স্থায়ীকরণের কথা ছিল। কিন্তু আমাদের বেলায় তা মানা হচ্ছে না।

‘উপরন্তু আমরা গ্রামীণ ব্যাংক কর্মকর্তাদের দ্বারা ক্রমাগত হয়রানি, কারণ ছাড়াই কাজে যোগদানে বাধা, বিনাশ্রমে দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা কাজ করাসহ নানা অমানবিক আচরণের শিকার হচ্ছি।’

আজিজুল হক বাবুল বলেন, পিয়ন কাম গার্ড হিসেবে কর্মরত ৩ হাজারেরও বেশি কর্মচারী গত প্রায় ৬ মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না। এদের কেউ ৪ মাস, কেউ ৫ মাস, কেউ আবার ৬ মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না। ফলে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

অনিতিবিলম্বে গ্রামীণ ব্যাংককে এই সমস্যা সমাধানের দাবি জানান তিনি।

এসআর/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়